কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে দেড় মাসে ৫ জনকে কুপিয়ে জখম, হামলাকারীরা অধরা


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, স্টাফ রিপোর্টার, কটিয়াদী | ১৮ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার, ৭:৪৭ | কটিয়াদী 


কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে বৃহস্পতিবার (১৭ অক্টোবর) রাত ১০টায় পৌর সদরের ৩নং ওয়ার্ডের পূর্বপাড়া মহল্লায় ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান জুয়েল (৩৫) কে তার বাড়ির সামনে একদল মুখোশধারী দুর্বৃত্ত ধারালো দা দিয়ে এলোপাথারী কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে দ্রুত চলে যায়। তাকে উদ্ধার করে কটিয়াদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে প্রাথমিক চিকিৎসার পর রাতেই তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

কটিয়াদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের ডাক্তার সঞ্জয় দাস বলেন, তার ডান হাতে, বগলের নিচে, বাম হাতের তালু, কনুই, পিঠের ডান দিকে ও ঘাড়ে কোপ রয়েছে। হাবিবুর রহমান জুয়েলের ভাই সোহেল জানান, শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) সকালে তাকে অপারেশন থিয়েটারে নেয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা বলছেন, শান্তির জনপদ কটিয়াদী হঠাৎ করেই যেন অস্থির হয়ে ওঠেছে। একের পর এক দুর্বৃত্তপনার ঘটনা ঘটছে। গত দেড় মাসে পৃথক হামলায় পাঁচ জনকে গুরুতর জখম করেছে দুর্বৃত্তরা।

এর মধ্যে দেড় মাস পূর্বে গত ৪ সেপ্টেম্বর রাত ৮টার দিকে কলেজের সামনে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নূরুল হক, এরপর দিন ৫ সেপ্টেম্বর রাতে জালালপুর নিবাসী আওয়ামী লীগ নেতা ফারুকুল ইসলাম ফারুক, তারপর কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ডে দেলোয়ার হোসেন এবং ১৪ অক্টোবর বাজারের কাঁচা বাজার সংলগ্ন রেঁস্তোরার ভিতর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মাহমুদুল ইসলাম মামুন হামলার শিকার হয়ে গুরুতর আহত হন।

তাদের মধ্যে মামুন বর্তমানে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার হয়নি কেউ। এ নিয়ে এলাকায় আতংক বিরাজ করছে।

কিশোর গ্যাং এর আধিপত্য না দলীয় প্রভাব বিস্তারে কিশোর গ্যাংকে ব্যবহার করা হচ্ছে তা নিয়ে এলাকার ছোট-বড় সকল মহলে আলোচনা থাকলেও সঠিক তথ্য আড়ালেই থেকে যাচ্ছে। স্থানীয়রা বলছেন, ঘটনার সাথে জড়িতরা গ্রেপ্তার না হওয়ায় একের পর এক ঘটনা ঘটেই চলেছে।

এ ব্যাপারে অ্যাডভোকেট বজলে কাদের মুকুল বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশে চলমান অভিযানে বহু রাঘব বোয়াল এখন জেল হাজতে। কিন্তু কটিয়াদীতে এর ব্যত্যয় ঘটছে। শান্তির শহরে জরুরী ভিত্তিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ না হলে পরিবেশ আরো অশান্ত হয়ে যেতে পারে।

কটিয়াদী থানার ওসি আবু শামা মো. ইকবাল হায়াত বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। সন্দেহজনক একজনকে আটক করা হয়েছে। পর পর দুটি ঘটনার কোন মামলা হয়নি। এ ধরণের ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে ব্যাপারে পুলিশ সতর্ক রয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর