কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জ নিউজ শক্তিশালী অনলাইন পোর্টাল হিসাবে স্থান করে নিয়েছে


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ১ জুন ২০২০, সোমবার, ১২:৪০ | বর্ষপূর্তি উৎসব 


বর্তমান সময়ে গণমাধ্যম হলো মানুষের নিত্যসঙ্গী। এর ব্যাপক বিস্তৃতি ও কালারফুল আয়োজন ছোট বড় সকল মানুষের মনোজগতকে আলোড়িত ও আকৃষ্ট করে নিয়েছে। বর্তমানে কেবল  প্রিন্ট মিডিয়া নয়, এখন এটি নানা প্রক্রিয়ায়, বিভিন্ন পন্থায় তথ্যের জোগান ও সরবরাহে নতুনত্ব এনেছে এবং এর আধুনিকায়ন ঘটেছে।

মাধ্যমটি এখন নানা শাখায় পল্লবিত হয়ে শতফুলে প্রস্ফুটিত হয়ে বিশ্বকে চমকিত করছে। মানুষ নিমেষেই সংবাদসহ বিশ্বের তাবত বিষয়াদি জানতে পারছে। বলা যায় মিডিয়া জগতে একটা বিশ্বয়কর বিপ্লব ঘটে গেছে।

যে কারণে, “কিশোরগঞ্জ নিউজ” এবং এর মত বহু অনলাইন পোর্টাল সারা বিশ্বের মানুষকে তথ্য প্রবাহের আলোকময় বাতায়নে সহজেই সংযুক্ত করে নিতে পারছে।

গণমাধ্যম হলো মানুষের মৌলিক স্বাধীনতার রক্ষা কবচ। স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার ক্ষেত্র নির্মাণে এর বিপুল ভূমিকা রয়েছে। এজন্যেই গণমাধ্যমকে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ বলা হয়ে থাকে। একটি স্বচ্ছ, জবাবদিহিমূলক গণতান্ত্রিক সমাজ ও রাষ্ট্র গঠনে তাই গণমাধ্যমের স্বাধীনতাও অপরিহার্য। জাতিসংঘের সর্বজনিন মানবাধিকারের ঘোষণার ১৯ নম্বর ধারায় তাই মত প্রকাশের অধিকারকে মৌলিক অধিকার হিসাবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়েছে।

গণমাধ্যমের গুরুত্বই স্মরণ করিয়ে দেয় এর ব্যবহারকারী ও কর্মীদের দায়িত্বশীলতার কথাও। কারণ, সংবাদপত্র, টেলিভিশন, বেতার, অনলাইন পোর্টাল, ইন্টারনেট ও ফেসবুক ব্যবহারকারী বা পরিচালনাকারীদের দায়িত্বশীল ভূমিকাই্ একটি সৃজনশীল, বিজ্ঞানসমৃদ্ধ ও সুস্থ সমাজ গঠনে সহায়ক হতে পারে।

গণমাধ্যম ছাড়া একটি রাষ্ট্র মরুভুমির মত। যেখানে বৃক্ষ নেই, নদী নেই, পাখি নেই যেন প্রাণহীন ধূসর প্রান্তর। একটি রাষ্ট্রে জনমতের প্রতিফলন ও জনমত গঠনে তাদের যেমন ভূমিকা রয়েছে, তেমনি গণতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় মত প্রকাশের মৌলিক অধিকার গড়ে তোলার ক্ষেত্রেও গণমাধ্যমের দায়িত্ব রয়েছে। এ ক্ষেত্রে সৎ, শিক্ষিত ও  দক্ষ কর্মীর্ইা দায়িত্বটি সুচারুরূপে পালনে সক্ষম। কারণ কাজটি সহজ ও মসৃণ নয়।

সারা বিশ্বেই মিডিয়াগুলোকে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই কঠিন ও ঝুঁকির মধ্য দিয়েই কাজ করতে হয়। এছাড়াও রয়েছে নানা সীমাবদ্ধতা। যেমন প্রয়োজনীয় বিজ্ঞাপন ও পৃষ্ঠপোষকতার অভাব আর সরকারের সহায়তা তো সোনার হরিণ। এছাড়াও রয়েছে, নিরপেক্ষ সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে স্বার্থান্বেষী মহলের চরম অসহিষ্ণুতা।

অন্যদিকে রয়েছে, আইনের কৌশলে তথ্যের প্রবাহকে বাঁধাগ্রস্থ করার অপপ্রয়াস। গোষ্ঠী বিশেষের রয়েছে বৈজ্ঞানিক দর্শন ভিত্তিক স্বাধীন মতামতের প্রতি চরম অবহেলা ও বিদ্বেষ। ফলে মুক্ত বুদ্ধির চর্চা ব্যাহত হয়। অন্যদিকে নি¤œমুখি চিন্তার প্রসার ঘটে।

ইত্যকার নানা প্রতিকূলতা সত্ব্যেও গণমাধ্যমগুলো তাদের দায়িত্ব পালন করায় এখনো মানুষ অনেক কিছু জানতে পারছে। মিথ্যাচার, অনাচার, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতি, অগণতান্ত্রিকতার বিরুদ্ধে মিডিয়ার ভূমিকা সমাজ ও রাষ্ট্রের উন্নয়ন ও কল্যাণে অবদান রাখতে পারছে।

‘কিশোরগঞ্জ নিউজ’ পোর্টালটিও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। প্রথম থেকেই পোর্টালটি স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ করছে। যার ফলে এটি এতদঞ্চলের মানুষের মনোজগতকে স্পর্শ করতে পেরেছে এবং ইতোমধ্যে একটি জনপ্রিয় ও শক্তিশালী গণমাধ্যম হিসাবে স্থান করে নিয়েছে।

এর কারণ একাধিক। স্থানীয় ঘটনা প্রবাহ, শিক্ষা-সংস্কৃতি, রাজনীতি, অর্থনীতি, প্রশাসনিক কর্মযজ্ঞ, ক্রীড়া-বিনোদনসহ প্রায় সব বিষয়েই পোর্টালটি দ্রুততার সাথে ও নিপুনভাবে পাঠকের সামনে তুলে ধরছে।

তাদের প্রকাশিত সরেজমিন প্রতিবেদন, খবরের পেছনের খবর, ইন্টারভিউ, রিসার্স ও মতামত ইত্যাদি পাঠকদের চমৎকৃত করতে পারছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে আমার ধারণা, এটি অচিরেই গণমানুষের কন্ঠস্বর হিসাবে প্রতিষ্ঠা পাবে।

পোর্টালের অনন্য একটি বৈশিষ্ট হলো, ইতিবাচক নিউজ উপস্থাপনার মাধ্যমে মানুষের মননে একটি সুস্থ ও সুন্দর আবহ সৃষ্টির প্রয়াস। বর্তমান পরস্পর বিরোধী বৈরী রাজনৈতিক পরিবেশেও তারা  নিরপেক্ষতার সাথে সংবাদ প্রকাশে দক্ষতা দেখিয়েছে। এটি নিঃসন্দেহে তাঁদের প্রবল আত্মবিশ্বাসেরই প্রতিফলন।

তাঁরা বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সাফল্য, দেশের উন্নয়ন ও সম্ভাবনাকে প্রাধান্য দিয়ে পাঠকের সামনে তুলে ধরে প্রকারান্তরে অপার সম্ভাবনাময় বাংলাদেশকেই উপস্থাপন করার চেষ্টা করছে। কৃতী ও সফল ব্যক্তি যারা দেশের বাইরে রয়েছেন তাঁদের সফলতার ইতিবৃত্ত প্রকাশ করে ওইসব গুণীদের সম্মানীত করা এ পোর্টালটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য।

তাদের এসব গঠনমূলক ও অনুপ্রেরণাদায়ক প্রতিবেদনগুলির প্রতি পাঠকদেরও যথেষ্ঠ সমর্থন লক্ষ্য করা গেছে। এর ফলে পোর্টালটির কর্মীরাও উৎসাহিত ও  আত্মবিশ্বসী হয়ে উঠেছে। অন্যদিকে তাঁদের মধ্যে তৈরি হয়েছে আরো দায়বদ্ধতা দায়িত্বশীলতার মনোভাব।

এখানকার আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য বিষয়ক প্রতিবেদন ও গ্রামে-গঞ্জে ছড়িয়ে থাকা অবহেলিত প্রতিভাবান শিল্পী, সাহিত্যিক, ক্ষুদে উদ্ভাবক, শিক্ষক, ক্রীড়াবিদদের সংগ্রামী জীবন-গাঁথা নিয়ে তাদের প্রকাশিত প্রতিবেদন পোর্টালটির জনপ্রিয়তাকে আরো বৃদ্ধি করেছে। এটি তাঁদের বিঘোষিত নীতি যা, বিচক্ষণ ও মননশীল চিন্তারই বহিঃপ্রকাশ, এতে কোনো সন্দেহ নেই।

তাঁদের সবচেয়ে বড়গুণ সংবাদ বাছাই ও তা নির্মোহ এবং নিরপেক্ষতার সাথে প্রকাশের দায়বদ্ধতা। এ কারণে পোর্টালটি মানুষের সমর্থন ও আস্থা অর্জনের সাথে সাথে দেশে ও বিদেশে অগণিত মানুষের আকর্ষণীয় পোর্টালে পরিণত হয়েছে।

জানা গেছে, বর্তমানে পোর্টালটি ১৮২টি দেশ থেকে পড়া হচ্ছে। সাধারণ যে কোনো খবর ‘রিড’ হচ্ছে ১০ থেকে ২০ হাজার, গুরুত্বপূর্ণ খবর ‘রিড’ হয় প্রায় লক্ষাধিক। এ থেকেই পোর্টালটির গুরুত্ব ও জনপ্রিয়তা বোঝা যায়।

প্রকৃত অর্থে কোনো মিডিয়াই দক্ষ কর্মী ছাড়া টিকে থাকতে পারে না। যে মিডিয়ার কর্মী যত দক্ষ-বিচক্ষণ ও নিরপেক্ষ তাদের সাফল্য ততটাই। স্বচ্ছ আয়নায় প্রকৃত ছবি প্রতিবিম্বিত হয়। ওই আয়নার কারিগর দক্ষ হলেই তা সম্ভব। মিডিয়ার বেলায়ও একই কথা প্রযোজ্য।

দক্ষ কর্মীরাই মিডিয়ার প্রাণ। এদেরকে অবশ্যই চৌকস হতে হয়। এদের শিক্ষা, ভাষা জ্ঞান, শব্দ বিন্যাস ও নিউজ সেন্স জরুরি। সবচেয়ে জরুরি মিডিয়ায় যোগ্য নেতৃত্ব। ‘কিশোরগঞ্জ নিউজ’ এর প্রধান সম্পাদক মো. আশরাফুল ইসলাম তাঁর অভিজ্ঞতালব্ধ জ্ঞান ও মেধা দিয়ে দক্ষতার সঙ্গে সুচারুরূপে সেই কঠিন  কাজটিই করে যাচ্ছে।

আশা করা যায়, তাঁর যোগ্য নেতৃত্বে ‘কিশোরগঞ্জ নিউজ’ দেশ ও মানুষের কল্যাণে আরো এগিয়ে যাবে এমনটাই প্রত্যাশা।

জয় হোক জনতার। জয় বাংলা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর