কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


তাকওয়া অর্জন ও গুনাহ মাফের মাস রমযান


 মাওলানা হাফেজ আহসান জামিল | ১ মে ২০২০, শুক্রবার, ১:১৮ | ইসলাম 


হে মুমিনগণ তোমাদের উপর রোজা ফরজ করা হয়েছে। যেমন তোমাদের পূর্বসূরীদের উপর ফরজ করা হয়েছিল। এই পবিত্র আয়াতে... من قبلكم বাক্যটি পূর্বের সমস্ত শরীয়তে রোজা ফরজ ছিল বলিয়া ঘোষণা করা হয়েছে। যাতে করে তোমরা তাকওয়া অর্জন করতে পারো।

রোজা এমন একটি ইবাদত, যা শুধু উম্মতে মুহাম্মদীর উপর ফরজ করা হয়নি। বরং এটি পূর্ববর্তী শরীয়ত, পূর্ববর্তী উম্মতের ও নবীদের  উপরও রোজা ছিল। হযরত আদম,হযরত মুসা,  হযরত দাউদ আলাইহিস সালামের যুগেও রোযা  ছিল। কিন্ত ধরণ ছিল ভিন্ন।

আর তা এজন্য দিয়েছেন যাতে করে বান্দা দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার মাধ্যমে তাকওয়াবান হতে পারে। আর এই তাকওয়ার এতই গুরুত্ব যে তাকওয়া ছাড়া তিনি বান্দার আমলের দিকে তাকাবেন না।

অর্থাৎ বান্দা নামাজ পড়েছে, রোজা রেখেছে, কিন্তু এর পিছনে তাকওয়া ছিল না। ছিল বাহ্যিক দৃষ্টিভঙ্গি মানুষকে দেখাবার চিন্তা। এজন্য তার কষ্ট করে হজ্জ করা, নামাজ পড়া, রোজা রাখা, যাকাত দেয়া সব বিফলে যাবে। আর তাকওয়া থাকে, দিলে যা শরীরের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

বিশ্ব নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ সম্পর্কে আমাদেরকে বলেছেন, মানুষের শরীরের মধ্যে একটি গোস্ত পিণ্ড রয়েছে, যতক্ষণ তা ভালো থাকবে সমস্ত দেহ ভালো থাকবে। আর যখন উহায় পচন ধরবে সমস্ত দেহেই  পচন ধরে যাবে। শুনে রাখ সেই গোশতের টুকরাই় হইতেছে ক্বলব।

আর এই ক্বলবকে সুস্থ রাখার অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে রোজা। আর এজন্যই আমরা যেন আমাদেরকে পরিশুদ্ধ করতে পারি তাই দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনা দান করেছেন।

আর আল্লাহ তাই বলেছেন তাক্বওয়া সম্পর্কে আল্লাহর নিকট পৌঁছে না কুরবানীর জন্তুর গোশত ও রক্ত। বরং তার কাছে পৌঁছে তোমাদের তাকওয়া।

একটি হাদীসে এসেছে, আল্লাহ পাক তোমাদের বাহ্যিক অবয়ব বা ধন ঐশ্বয্যের দিকে দৃষ্টিপাত করেন না। তাহার দৃষ্টি তোমাদের অন্তরসমূহ আর আমলসমূহের উপর হয়ে থাকে।

এছাড়াও কুরআনের বিভিন্ন স্থানে তাকওয়া সম্পর্কে বর্ণিত হয়েছে। মহান আল্লাহ বলেন, মুত্তাকীরা শীতল ছায়া ও ঝরনা বিশিষ্ট উদ্যানে নিজেদের পছন্দ মত ফল-মুলের মাঝে থাকবে। আর তোমরা যে সমস্ত আমল করেছ, তাহার বদৌলতে পানাহার করো। এমনিভাবে আমি মুত্তাকীদেরকে প্রতিদান দেই।

অন্যত্র ঘোষণা হয়েছে, নিশ্চয়ই মুত্তাকীরা সফল। তাদের জন্য  আছে বাগ বাগিচা এবং আঙ্গুর আর পরিচ্ছন্ন সমবয়সী এবং উপচাইয়া পড়ে এমন পানীয় পেয়ালা। তাহারা তথায় অর্থহীন ও মিথ্যা কথা শুনতে পাবে না।

আর এই রমজান মাসই হলো তাকওয়া অর্জনের শ্রেষ্ঠ মাস। কেননা রমজান মাসের প্রথম ভাগে আল্লাহর পক্ষ হইতে একজন ঘোষণাকারী ঘোষণা করে বলেন, হে নেকীর প্রত্যাশী অগ্রসর হও। এবং খুব নেকীর কাজ কর। আর হে পাপের অবিলাসি এখন থেকে বিরত থাকো।

অন্য হাদীসে এসেছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন। রমজানে বেহেশতের দরজা সমূহ খুলে যায়। জাহান্নামের দরজাসমূহ বন্ধ হয়ে যায়। এবং শয়তানকে কারাগারে আবদ্ধ করা হয়।

রমজানের রোজার প্রতি উদ্বুদ্ধ করিয়া রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন। যে ব্যক্তি ঈমান ও ইখলাসের সাথে রমজানে রোজা পালন করে, তাহার পূর্বের সমুদয় পাপ মার্জনা করা হয়।

রমজান আগমনের পূর্বেই রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাহাবীদেরকে এ মাস সম্পর্কে বলেন, হযরত সালমান ফারসি রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, শাবান মাসের শেষ দিন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দানকালে বলেন, হে লোক সকল তোমাদের নিকট উপস্থিত, একটি মর্যাদাপূর্ণ এবং বরকতপূর্ণ মাস। এতে রয়েছে এমন এক রাত যা হাজার মাসের চেয়ে উত্তম। এ মাসে আল্লাহ সওম ফরজ করেছেন। যে ব্যক্তি এই মাসে একটি নেক কাজ করলো সে যেন অন্য কোন মাসে ফরজ কাজ করলো। যে ব্যক্তি এ মাসে একটি ফরজ আদায় করল। সে যেন অন্য কোন মাসে ৭০ টি ফরজ কাজ আদায় করল। এ মাস ধৈর্য্যের মাস। আর ধৈয্যের বিনিময় হচ্ছে জান্নাত। সহানুভূতি প্রদর্শনের মাস। (মেশকাত)

সাওমের পুরস্কার ক্ষমা। (বুখারী -মুসলিমের) হাদীসে এসেছে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি ঈমান ও আত্মবিশ্লেষণের সাথে রমজানের সাওম আদায় করল। সে তার অতীতের গুনাহ সমূহ মাফ করে নিল। আর যে ব্যক্তি ঈমান ও আত্মবিশ্লেষণের সাথে রমজানে দীর্ঘ সালাত আদায় করল। সে  অতীতের গুনাহ মাফ করে নিল( বুখারী )

রোযা ও কোরআন একত্রে সুপারিশ করবে: রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, সিয়াম বলবে, হে রব আমি এই ব্যক্তিকে দিনে খাবার ও অন্যান্য কামনা-বাসনা থেকে ফিরিয়ে রেখেছি। আপনি আমার সুপারিশ গ্রহণ করুন। আল কুরআন বলবে, আমি এই ব্যক্তিকে রাতের নিদ্রা থেকে বিরত রেখেছি। আপনি আমার সুপারিশ গ্রহণ করুন।

দুর্ভাগা রোজাদারদের সম্পর্কে হাদিসে এসেছে। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, এমন কত রোজাদার আছে যারা তাদের রোজার দ্বারা ক্ষুৎপিপাসার কষ্ট ছাড়া আর কিছুই পায় না। এমন কত নামাজে দণ্ডায়মান অবস্থায় রাত জাগরণকারি আছে, যারা শুধুমাত্র জাগরণ ছাড়া আর কিছুই পায় না।

কিছু মানুষ শুধু শুধু কষ্ট করে। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি মিথ্যা বলা এবং মিথ্যার উপর আমল করা ছাড়তে পারেনি তার খাবার ও পানীয় দ্রব্য বর্জন করাতে আল্লাহর কোন প্রয়োজন নেই। (বুখারী)

পাপের কাফফারা হবে নামায, রোযা ও যাকাত। হুযাইফা রাদিয়াল্লাহু বলেন, আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি, মানুষ তার পরিবার, সম্পদ এবং প্রতিবেশীর ব্যাপারে যে ভুল ত্রুটি করে, তার সালাত সাওম এবং সদকা দ্বারা সেগুলোর কাফফারা হয়ে যায়। (বুখারী)

ইফতারে বিলম্ব না করার কথা হাদীসে এসেছে, হযরত সাহল বিন সা'দ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, লোকেরা যতদিন তাড়াতাড়ি ইফতার করবে ততদিন ভালো অবস্থায় থাকবে। (বুখারী)

ইতেকাফ: ইবনে উমর রা. আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল (সাঃ) রমযানের শেষ দশদিন ইতেকাফ করতেন। (বুখারী-মুসলিম) মুতাকেফ তথা ইতেকাফকারী ব্যক্তি যাবতীয় গুনাহ হইতে নিজেকে মুক্ত রাখে। এবং তাকে ঐরূপ পুণ্যের প্রতিদান দেয়া হয়, যেমন দেয়া হয় সর্বক্ষণ পূণ্যকর্মে নিয়োজিত ব্যক্তিকে।

ঈদুল ফিতরঃ ঈদের চাঁদ আকাশে উদয় হওয়ার সাথে সাথে মুবারক মাস রমযান শেষ। ঈদের দিন, খুশি ও পুরস্কার বিতরণের দিন। যাহারা দীর্ঘ সাধনায় উত্তীর্ণ হইল, আর যাহারা মাসব্যাপি রবকে সন্তুষ্ট করার জন্য আরাম আয়েশ, নিদ্রা ত্যাগ করিল, আজ তাহারা আল্লাহু আকবার ধ্বনিতে পুরস্কার বিতরণ স্থান ঈদগাহ গমন করবে।

হাদীসে ঈদের রাতেরও বেশ ফযিলত রয়েছে, যে ব্যক্তি দুই ঈদের দিনের রজনীতে জাগ্রত থাকিয়া ইবাদাত করবে, সেই ব্যক্তি কিয়ামতের দিবসে ভয়ংকর আতংক হইতে বাচিয়া থাকবে।

এক হাদীসে রাসূল (সাঃ) ইরশাদ করেন, এই রজনীতে উম্মতে মুহাম্মদীকে ক্ষমা করা হয়। কারণ শ্রমিককে কাজ শেষ করার পরই হাদীয়া দেওয়া হয়।

আর একটি বিশুদ্ধ হাদীসে রয়েছে যে, আল্লাহপাক ঈদের রজনীতে ফেরেশতাদিগকে লক্ষ্য করে বলেন, হে আমার ফেরেশতাগণ যাহারা পূর্ণভাবে সাধনা করিয়াছে তাহাদের কি পুরস্কার হইবে? ফেরেশতাগণ বলিবেন, হে বিশ্বজগতের প্রভু তাহাদিগকে তাহাদের পূর্ণ প্রাপ্য প্রদান করা উচিৎ।

তখন আল্লাহ পাক স্বীয় মর্যাদা ও ক্ষমতার শপথ করিয়া ঘোষণা করবেন, হে রোযাদারগণ নিশ্চয়ই আমি তোমাদিগকে ক্ষমা করলাম এবং তোমাদের গুনাহসমূহ স্বভাবে পরিণত করে দিলাম। অতঃপর রোযাদারগণ এমন অবস্থায় ঈদের মাঠ থেকে ফিরবে যে তাহাদের কোন গুনাহ নাই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর