কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


লোকালয়ে পাখির স্বর্গ


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার, ৬:১০ | ফিচার 


কিশোরগঞ্জের হাওর উপজেলা নিকলী সদরের পুকুরপাড় জামে মসজিদ সংলগ্ন পশ্চিমগ্রাম গোরস্থানের গাছে গাছে এখন হাজারো পাখির ভিড়। প্রতিদিন বিকাল বেলায় ডানা ঝাপটানোর শব্দ আর পাখিদের কল-কাকলিতে মুখরিত থাকে আশেপাশের এলাকা।

সূর্য পশ্চিম দিকে হেলে পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই চারিদিক থেকে হাজার হাজার বক প্রজাতির পাখি এসে আশ্রয় নেয় বিশালাকৃতির গাছসমূহের ডালে ডালে। ফলে এই স্থানটি এখন পাখিদের এক প্রাকৃতিক অভয়াশ্রমে পরিণত হয়েছে। পাখিদের রাত্রি যাপনের জন্য এটি এক অনন্য নিরাপদ আশ্রয়স্থল।

স্থানীয়রা জানান, গত প্রায় ২৫/৩০ বছর ধরে পাখিরা এখানে আসা-যাওয়া করছে। বিশেষ করে শীত মৌসুমে হাজার হাজার পাখি গোরস্থানের বৃক্ষরাজির শাখা-প্রশাখাকে অভয়াশ্রম হিসেবে ব্যবহার করে থাকে।

গোরস্থান সংলগ্ন নয়াহাটি গ্রামের ইসরাইল মিয়া জানান, এসব পাখির মধ্যে রয়েছে সাদা বক, কালো বক ও কানি বক। সাদা বক ও কালো বক প্রতিদিন ভোরে খাবারের সন্ধানে বেরিয়ে পড়ে হাওর-বাওড়, নদী-নালা, খাল-বিল ও ডোবা-জলাশয়ের উদ্দেশ্যে।

কখনো কখনো পাখিরা এক-দুইশত কিলোমটিার দূরে পর্যন্ত চলে যায়। আবার সূর্য ডোবার আগেই এই অভয়াশ্রমে ফিরে আসে। আর কানি বক সারাদিন গাছে বসে ঝিমোয় আর সন্ধ্যা হলেই দল বেঁধে বেরিয়ে পড়ে।

পাখির প্রতি ভালবাসা থেকে স্থানীয় টিএন্ডটি অফিসে কর্মরত অপারেটর লুৎফুর রহমান লিটন প্রায় নিয়মিত এসব পাখিদের দেখাশোনা করেন। তিনি বলেন, পাখিদের কলতানে জায়গাটি মুখর থাকে। দেখলে চোখ জুড়িয়ে যায়।

বেশ কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, এই অভয়াশ্রমে পাখি শিকার একেবারে নিষিদ্ধ ছিল। এমন কি পাখিদের প্রতি কেউ ঢিল পর্যন্ত ছুঁড়তে পারতো না। এ ব্যাপারে মসজিদ কমিটির পক্ষ থেকে মাইকিং করেও লোকদের সতর্ক করে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এরপরও কিছু শিকারী অপতৎরতায় লিপ্ত হয়। পাখিদের এই অভয়াশ্রমটি ধরে রাখতে প্রশাসনের এদিকে নজর দেয়া উচিত।

স্থানীয়রা জানান, ঝড়-বৃষ্টি শুরু হলে পাখিদের আবাসস্থল তছনছ হয়ে যায়। ডাল-পালা ভেঙ্গে অনেক পাখি মারা যায়। অনেক পাখি বাঁচার আশায় মানুষের বাড়ি-ঘরে ঢুকে পড়ে আশ্রয় খোঁজে। মানুষও এতে কোন বিরক্তবোধ বোধ করে না।

অজস্র পাখির এই মেলা দেখতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ছাড়াও দূরবর্তী বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষ এখানে ভীড় করে। শীতের পুরোটা সময় এমন দৃশ্য হাওরপাড়ের মানুষদের অভিভূত করে রাখে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর