কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ঠোঁট লাল করা ‘লালডিঙ্গি’ পান


 মো. আল আমিন ও মুহিবুল্লাহ বচ্চন | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, ৯:৩৯ | ফিচার 


পান পিপুল পরিবারভুক্ত গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলের এক প্রকার গুল্মজাতীয় গাছের পাতা। সবুজ রঙের এই পান কারো কাছে খুবই সখের বস্তু। কারো কাছে নেশার সাথি। দক্ষিণ এশিয়াসহ আমাদের দেশে অনেক নারী-পুরুষ পান-সুপারিকে নানা উপাচারে স্থায়ীভাবে আবদ্ধ করে রেখেছেন। বাংলাদেশে ঐতিহ্যগতভাবে সামাজিক রীতি, ভদ্রতা এবং আচার-আচরণের অংশ হিসেবেই পানের ব্যবহার চলে আসছে। এক সময় বিয়ে-শাদি পূজা-পার্বনসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান পান ছাড়া চলতোই না। কনের বাড়িতে বর পক্ষ পান না নিয়ে এলে বিয়ে পর্যন্ত ভেঙে যেত।

প্রাচীন অভিজাত জনগোষ্ঠীর মাঝে বিভিন্ন উপকরণে পান তৈরি এবং তা সুন্দরভাবে পানদানিতে সাজানো লোকজ শিল্প হিসেবে স্বীকৃতি পেত। ওই সময়ের নানী দাদিদের পান খাওয়ার শখ ছিল গল্পের মতো।  তারা খুবই শৌখিনতার আদলে পান খেতেন। ছিল পানের বাটা। সরতা। যুগ পরিবর্তনে পানের বাটা, সরতা সোনালী অতীতে ঠাঁই নিলেও বাঙালী সমাজে পানের সমাদর কমেনি। পান খাওয়ার রীতি গ্রাম থেকে শহরের প্রায় প্রতিটি অনুষ্ঠানে এখনো চোখে পড়ে।

ঐতিহ্য পরম্পরায় গ্রামের অধিকাংশ নারীরা এখনো পান খায়। নতুন বৌ এলে শখ করে নানী দাদীরা তাদের পান খাওয়ানো শেখায়। পান খেয়ে ঠোঁট লাল করলে নাকি স্বামীর আদর বেশি পাওয়া যায়! গ্রামের মুরব্বি কিছিমের মোড়ল চাচাদের পান চিবাতে চিবাতে শালিস-দরবার করার বিষয়টি এ দেশে দীর্ঘকাল থেকে পরিচিত। পুরান ঢাকার লোকদের মুখভর্তি পান নিয়ে পিচকি ফেলতে ফেলতে শাদা লুঙ্গির এক কোণে ধরে রাস্তায় হাঁটার বিষয়টিও সবার কাছে পরিচিত দৃশ্য।

সময়ের পরিবর্তনে এখন পান খাওয়ার ট্রেন্ডে ভিন্নতা এসেছে। এখন বাজারে বিভিন্ন উপকরণ মেশানো রেডিমেট পান পাওয়া যায়। যেটাকে বলা হয় ‘খিলিপান’। একটি বড় পান বা একাধিক পান ঠোঙার মতো করে প্যাঁচিয়ে বানানো হয় এ পান। এ পানে থাকে কুচিকুচি করে কাটা সুপারি, জর্দা, খয়ের, বিভিন্ন ধরণের মিষ্টিযুক্ত মসলা, সুগন্ধি ইত্যাদি। এগুলোর বাহারি নাম আছে যেমন- নবাবি পান, বাদশাহিপান, জমিদার পান। ঢাকা শহরের বিশেষ করে পুরনো ঢাকার বাসিন্দারা এসব পানের সমজদার।

শুধু কি তাই? রসময় সম্পর্কের নামেও রয়েছে পানের খিলির নাম যেমন- বেয়াই-বেয়াইন পান, শালি-দুলাভাই পান, ভালোবাসা পান, হাসিখুশি পান। এসব পান টঙ দোকোনে কিংবা গ্রামের মেলায় বিক্রি করতে দেখা যায়। যারা সব সময়ের পানসেবী নয় তারাও শখের বসে হরেক রকম মসলায় সাজানো এসব পান খায়। বৌ এর জন্য নিয়ে যায়, প্রেমিকার জন্য নিয়ে যায়।

কিশোরগঞ্জের জেলখানা মোড়ে এক ধরণের ‘আগুন পান’ বিক্রি হয়। কুল্লি পাকানো এই পানে নানান ধরণের মসলা মেশানো থাকে। খাওয়ার আগে মসলায় আগুন ধরিয়ে খেতে হয়। পান খেতে খেতে আগুনটা এক সময় নিভে যায়। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে সুগন্ধ। তবে এসব পান খাওয়ার ব্যাপারে ডাক্তারদের নিষেধাজ্ঞাও আছে।

এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জের বিশিষ্ট ওরাল এন্ড ডেন্টাল সার্জন ডা. ফারুক আহমেদ বলছেন, রঙ-বেরঙের মসলাযুক্ত পান-সুপারি-জর্দার কারণে মুখগহ্বরের ক্যান্সারের ঘটনা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাছাড়া দাঁতের ক্ষয়, মাঢ়ির রোগেরও অন্যতম কারণ এই পান সুপারি।

খিলিপান হোক বা ঘরের বানানো পান হোক। বড় আকারের পানের প্রতি বাঙালির আগ্রহ সব সময়ের। আর সেটা যদি হয় দেখতে সুন্দর, খেতে সুম্বাদু? তাহলে তো কথাই নেই !

বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরণের পান উৎপাদন হয়। পানের মান ও ধরনের ভিন্নতা আছে। চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও সিলেট অঞ্চলে বেশ কয়েকটি  পানের জনপ্রিয় জাত রয়েছে। আজকে এ বিষয়ে আলোচনা নয়। আলোচনা ‘লালডিঙি’ পান নিয়ে। এই পান বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের মানুষের কাছে খুব পরিচিত একটি পান।  আকারে বড়, মসৃন, পুরু এবং সুস্বাদু রকমের এই ‘লালডিঙি’ পানের চাষ কিশোরগঞ্জেই বেশি হয়।

কিশোরগঞ্জ তথা বৃহত্তর ময়মনসিংহের মানুষ ‘পান’ বলতে যা  বোঝে ওই ‘লালডিঙি’ পানকেই বোঝে। প্রাকৃতিক সুগন্ধিযুক্ত, পুরু ও রসে ভরপুর থাকায় তাদের কাছে এ পান সমাদৃত। এই পানেরই মিষ্টি-মধুর স্বাদে প্রতিদিন ‘ঠোঁট রাঙাচ্ছেন’ বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের মানুষ। আকারে বড়, সুস্বাদু ও খিলিপানের উপযুক্ত হওয়ায় এই পানের এখন বাজার তৈরি হচ্ছে ঢাকাসহ সারা দেশে। আমেরিকা, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মালয়েশিয়া ও সৌদি আরবেও এখন যাচ্ছে কিশোরগঞ্জের এই ‘লালডিঙি’ পান।

কিশোরগঞ্জ শহরের পুরানথানা বাজারের প্রবেশ মুখ ধরে কয়েক কদম সামনে এগুলেই গলির দুই ধারে পড়বে অসংখ্য পানের দোকান। এখানে পাইকারি ও খুচরা দুইভাবেই পান বিক্রি হয়। গলি ধরে সামনে এগুলেই কাঁচাবাজারে যাওয়ার একটা মোড়। এই মোড়েই আবদুল মালেকের পানের দোকান। তার কাছ থেকেই প্রথমে জানা গেল  ‘লালডিঙি’ পান সম্পর্কে।

কোথা থেকে আসে এ পান? উত্তরে তিনি জানান, বাপ-দাদার আমল থেকেই তাদের পানের বরজ (বাগান) রয়েছে। বংশ পরম্পরায় পান বিক্রির সাথেও তিনি জড়িত।  করিমগঞ্জ উপজেলার সুবন্দি, সাঁতারপুর ও জাঙ্গাল গ্রামে অসংখ্য পানের বরজ রয়েছে। এসব বরজ থেকে প্রতিদিন পান সংগ্রহ করে আনেন তিনি।

আবদুল মালেক জানান, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় এই পানের চাষ বেশি হয়। এ ছাড়া করিমগঞ্জ, পাকুন্দিয়া, হোসেনপুর কটিয়াদী ও ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলাসহ বিভিন্ন উপজেলায় এ পানের চাষ হয়।

বিড়া হিসেবে (প্রতি বিড়ায় পান ১২০টি) এ পান কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন বাজারে পাইকারি ও খুচরা বিক্রি করা হয়। পুরানথানা বাজারের পানের ব্যবসায়ীরা মিলে গড়ে প্রতিদিন ৪ থেকে ৫ লাখ টাকার ‘লালডিঙি’ পান বিক্রি করেন।

পান দোকানদার রাজা আলম (৩৮) জানান, প্রতিদিন তার পক্ষে ৮ থেকে ৯ হাজার টাকার ‘লালডিঙি’ পান সংগ্রহ করা সম্ভব হয়। বাজারে তা মানভেদে ১০০ থেকে ২৮০টাকা বিড়ায় বিক্রি করা যায়। চাহিদাও বেশ ভালো।

পান বিক্রেতা ফিরোজ মিয়া (৫০) জানান, দেশের অন্যান্য পানের চেয়ে এই পানের আকৃতি অনেক বড়। কোনো কোনো পান ১০ ইঞ্চি পর্যন্ত লম্বা হয়। পানের বোঁটার আকারও বড়। পানের পুরুত্ব, মসৃন ও খেতে সুস্বাদু হওয়ায় এই পানটা লোকজন পছন্দ করেন বলে তিনি জানান।

এবার জানা যাক এই পান  যারা চাষ করেন তাদের কী অবস্থা। ‘লালডিঙি’ পান চাষের খোঁজ-খবর নিতে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার বিভিন্ন পানের বরজে গিয়েছিলেন মুহিবুল্লাহ বচ্চন। তিনি জানান, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় সুস্বাদু লালডিঙি পান চাষ করে অনেকে লাভবান হচ্ছেন এবং দিনদিনই এর ফলন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ উপজেলার কমবেশি সকলেই নিজেদের আবাদি জমির মধ্যে একটি অংশে পান চাষ করে থাকেন। নিজেদের খাবারের চাহিদা মিটিয়ে সপ্তাহে এক-দুইবার পান বাজারে বিক্রি করে সংসারের খরচ চালিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রামগুলোতে ঘুরে তিনি জানান, উপজেলার সকল ইউনিয়নে কমবেশি পানের চাষ হয়েছে। তবে পৌরসদরের বরাটিয়া, সৈয়দগাঁও, চালিয়াগোপ, হোসেন্দী ইউনিয়নের হোসেন্দী চরপাড়া, পূর্বপাড়া, চরফরাদী ইউনিয়নের হিজলিয়া, দরদরা, বর্ষাগাতী, এগারসিন্দুর ইউনিয়নের বাহাদিয়া এই গ্রামগুলোতে পানের ব্যাপক আবাদ হয়েছে। কমবেশি সকল কৃষকই কিছু না কিছু জমিতে পানের চাষ করেছেন।

এখানকার চাষিরা দেশীয় জাতের পান লাল ডিঙি এবং ঘয়াসুর এই দুটি জাতের পান চাষ করে থাকেন। তবে সুস্বাদু লাল ডিঙি পানের আবাদ তুলনামূলক অনেকটা বেশি। বিশেষ করে গরম সিজনে লাল ডিঙি পান খেতে সুস্বাদু হয়। বছরের বেশির ভাগ সময় গরম থাকায় এখানকার কৃষকরা লাল ডিঙি পানের আবাদ বেশি করে থাকেন। ভোক্তাদের চাহিদাও অনেকটা বেশি। শীতকালে আবার ঘয়াসুর পান খেতে অনেকের কাছে ভাল লাগে। তাই কেউ কেউ এই পানেরও চাষ করে থাকেন।

বর্তমান বাজারে লাল ডিঙি বড় সাইজের পান প্রতি কুড়ি বিশ বিড়া অর্থাৎ ২৪০০পান একসাথে ৫০০০থেকে ৫৫০০টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। খুচরা বাজারে ৬০০০-৬৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাংলা মাসের ভাদ্র, আশি^ন, কার্তিক ও অগ্রহায়ন এই চার মাস পানের মৌসুম। এই সময় পান গাছে প্রচুর পরিমাণে পান ধরে থাকে। এবং বাজারে পানের মূল্যও কম থাকে। তবে ফাল্গুন ও চৈত্র মাসে পানের ফলন অনেকটা কমে যায়। এই সময় পান খুব চড়া দামে বিক্রি হয়।

হিজলিয়া গ্রামের কৃষক আবদুল আউয়াল জানান, তিনি তিন কাঠা জমিতে লাল ডিঙি জাতের পান চাষ করেছেন। ফলনও বেশ ভাল হয়েছে। এতে তার খরচ হয়েছে দেড় লাখ টাকা। বর্তমানে প্রতি সপ্তাহে ৮ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকার পান বাজারে বিক্রি করছেন। আরও অনেক দিন এভাবে বিক্রি করা যাবে।

চালিয়াগোপ গ্রামের হাদিউল ইসলাম চার কাঠা জমিতে পান চাষ করেছেন। পানের ফলনও ব্যাপক হয়েছে। বর্তমান বাজার দরে তা বিক্রি করে ভাল লাভবান হবেন বলে তিনি জানান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর