কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জ নিউজ এর সংবাদে মায়ের কোলে ফিরলো শিশু মাশরাফি


 স্টাফ রিপোর্টার | ৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৮:৪৫ | সম্পাদকের বাছাই  


কিশোরগঞ্জ নিউজ এ প্রকাশিত সংবাদের সূত্র ধরে কান্না থেমেছে হারিয়ে যাওয়া ছোট্ট শিশুটির। মায়ের কোলে ওঠে হেসেছে সে স্বস্তির হাসি। ফিরে পেয়েছে তার মা-বাবা ও স্বজনদের।

সোমবার (৮ জুলাই) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শিশুটির মাসহ পরিবারের সদস্যরা পাকুন্দিয়া থানায় গিয়ে শিশুটিকে কোলে তুলে নিয়ে সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। পরে পাকুন্দিয়া থানার ওসি মো. মফিজুর রহমান আনুষ্ঠানিকভাবে শিশুটিকে তার মায়ের জিম্মায় প্রদান করেন।

শিশুটির নাম মাশরাফি। আড়াই বছর বয়সী শিশুটি পাকুন্দিয়া উপজেলার ঘাগড়া গ্রামের বাচ্চু মিয়া-হুসনা দম্পতির সন্তান।

শিশুটির মা হুসনা আক্তার জানান, শিশু মাশরাফি বাড়ি থেকে সবার আগোচরে বের হয়ে যায়। হাঁটতে হাঁটতে সে কোথায় যেন হারিয়ে যায়। ছেলের সন্ধানে তারা বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজি করেন। এক পর্যায়ে একজন জানান, তার শিশু সন্তান মাশরাফি পাকুন্দিয়া থানায় রয়েছে। থানায় এসে তিনি ছেলেকে ফিরে পেয়ে এখন আনন্দে আত্মহারা।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সোমবার (৮ জুলাই) বিকাল ৩টার দিকে পাকুন্দিয়া উপজেলার ছোট আজলদী বাজার সংলগ্ন সালংকা ব্রীজের কাছে রাস্তায় দাঁড়িয়ে শিশুটি কাঁদছিল।

বাজারের ব্যবসায়ী এবং পথচারী অনেকেই বিষয়টি দেখে শিশুটির অভিভাবকের খোঁজ করেন। কিন্তু আশপাশে কোথাও অভিভাবকের দেখা মিলেনি।

এ পরিস্থিতিতে বাজারের ব্যবসায়ী এবং স্থানীয়দের উদ্যোগে ছেলে পাওয়ার বিষয়টি নিয়ে মাইকিং করা হয়। এরপরও মিলেনি শিশুটির অভিভাবকের সন্ধান।

অভিভাবক হারা শিশুটি কিছুই বলতে পারছিল না। অভিভাবককে হারিয়ে সে শুধুই কাঁদছিল। বাজারের ব্যবসায়ী এবং স্থানীয়দের দেয়া চিপস-চকোলেট কোন কিছুতেই তার কান্না থামছিল না। ফলে শিশুটির নাম বা পরিচয় কিছুই জানা যাচ্ছিল না।

শিশুটির বাড়ি কোথায়, কিভাবেই বা শিশুটি এখানে এলো, কিছুই নিশ্চিত হতে পারেননি এলাকাবাসী।

স্থানীয় সব উদ্যোগের পরও শিশুটির অভিভাবকের সন্ধান পাওয়া না যাওয়ায় সালংকা গ্রামের বাসিন্দা ছোট আজলদী বাজারের ব্যবসায়ী এনামুল হক ও শফিকুল ইসলাম শিশুটিকে নিয়ে সন্ধ্যায় ছুটে যান পাকুন্দিয়া থানায়। সেখানে গিয়ে থানা পুলিশকে সব ঘটনা খুলে বলেন তারা।

বিষয়টি নিয়ে সন্ধ্যা ৬টা ৩৩ মিনিটে ‘পথের ধারে কাঁদছিল শিশুটি, মিলছে না পরিচয়, নেয়া হয়েছে পাকুন্দিয়া থানায়’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয় কিশোরগঞ্জ নিউজ এ। মুহুর্তেই সংবাদটি ভাইরাল হয়ে যায়।

হন্যে হয়ে শিশু সন্তানকে খোঁজে ফেরা মা-কে কিশোরগঞ্জ নিউজ এর পাঠক জানান, হারিয়ে যাওয়া একটি শিশু পাওয়া গেছে, শিশুটি পাকুন্দিয়া থানায় আছে। ওই পাঠক তার মোবাইল থেকে ছবিও দেখান শিশুটির। এতেই নিশ্চিত হন মা ‍হুসনা।

ছুটে যান পাকুন্দিয়া থানায়। সেখানে মাকে দেখেই কান্না থেমে যায় শিশু মাশরাফির। হুসনা ছেলেকে কোলে তুলে বুকে জড়িয়ে রাখেন। তৈরি হয় এক আবেগঘন পরিবেশের।

পরে পাকুন্দিয়া থানার ওসি মো. মফিজুর রহমান আনুষ্ঠানিকভাবে শিশুটিকে তার মায়ের জিম্মায় প্রদান করেন।

পূর্ববর্তী সংবাদ: পথের ধারে কাঁদছিল শিশুটি, মিলছে না পরিচয়, নেয়া হয়েছে পাকুন্দিয়া থানায়




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর