কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অটোরিকশা ছিনতাই-ই যাদের নেশা, বাধা পেলেই খুন


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ১৬ আগস্ট ২০২০, রবিবার, ৮:৪১ | অপরাধ 


এ এক ভয়ঙ্কর চক্র। অটোরিকশা ছিনতাই করাই তাদের প্রধান কাজ। বাধা পেলে খুন করতেও তারা দ্বিধাবোধ করে না। অটোরিকশা ছিনতাই করতে গিয়ে চালককে খুনের এ ভয়ঙ্কর মিশনে সরাসরি অংশ নেয় সহযাত্রী বেশে চক্রের সদস্যরা।

সবার সঙ্গেই থাকে মাফলার, গামছা বা ওড়না। নির্জন রাস্তায় এই মাফলার, ওড়না ও গামছাই হয়ে ওঠে তাদের হাতিয়ার। শ্বাসরুদ্ধ করে চালককে খুন করে ছিনতাই করে অটোরিকশা।

পরে চোরাইচক্রের বিক্রেতাদের হাতে অটোরিকশার রঙ ও হুড পরিবর্তন এবং ব্যাটারি অদল-বদল হয়ে চলে যায় ক্রেতার কাছে।

অটোরিকশা ছিনতাই চক্রের এমন নৃশংসতার শিকার কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের নিলখী হাফানিয়া গ্রামের মো. লিলু মিয়ার ছেলে মো. রাব্বী মিয়া (২০)। রাব্বীকে শ্বাসরোধে হত্যা করে তার অটোরিকশা ছিনতাই করে ছিনতাই চক্রের সদস্যরা।

গত ৭ জুলাই এই ঘটনার এক সপ্তাহ পর গত ১৪ জুলাই একই গ্রামের মনির হোসেনের বাড়ির সেপটিক ট্যাংকির ভেতর থেকে রাব্বীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

এই হত্যাকাণ্ডের সূত্র ধরেই র‌্যাবের হাতে আটক হয়েছে ছিনতাইচক্রের ৬ সদস্য। তারা হচ্ছে, হৃদয় ওরফে সাচ্চু (২০), সাদ্দাম (৩৩), জুটন (৩৫), শুভ (১৯), ইমন (১৯) ও রেজাউল (২৩)।

তাদের মধ্যে হৃদয় ওরফে সাচ্চু বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের নিলখী হাফানিয়া গ্রামের মো. বাদল মিয়ার ছেলে, সাদ্দাম (২৬) ও জুটন বাজিতপুর উপজেলার মথুরাপুরের মো. ফরিদ মিয়ার ছেলে, শুভ একই এলাকার জুটনের ছেলে, ইমন একই এলাকার জাহাঙ্গীর ভূইয়ার ছেলে এবং রেজাউল অষ্টগ্রাম উপজেলার সাভিয়ানগরের মো. আলী হোসেন মিয়ার ছেলে।

বিশেষ এই অভিযানে নেতৃত্ব দেন র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের এবং স্কোয়াড কমান্ডার উপ-পরিচালক চন্দন দেবনাথ।

গত ১৪ জুলাই দুপুরে রাব্বীর লাশ উদ্ধারের পর ওইদিনই রাতে নিহতের বড় ভাই সাদেক বাদী হয়ে সাচ্চুকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের নামোল্লেখ ও অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে বাজিতপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। পরদিন ১৫ জুলাই বিকালে কাইয়ুম (২০) নামে মামলার এজাহারভুক্ত এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ।

র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের এবং স্কোয়াড কমান্ডার উপ-পরিচালক চন্দন দেবনাথ জানান, মামলা রুজুর পর থেকে ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট আসামীগণ এলাকা হতে উধাও হয়ে যায়। পরবর্তীতে র‌্যাবের গোয়েন্দা দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন যে, মামলার প্রধান আসামী হৃদয় ওরফে সাচ্চু মিয়া এলাকা থেকে পালিয়ে চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানাধীন অলংকার নামক এলাকায় রাজমিস্ত্রীর কাজ করছে।

এরই প্রেক্ষিতে শনিবার (১৫ আগস্ট) দিবাগত মধ্যরাতে চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানার অলংকার এলাকায় র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের একটি টিম অভিযান পরিচালনা করে রাব্বী হত্যার হোতা হৃদয় ওরফে সাচ্চুকে গ্রেপ্তার করে।

এছাড়া কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর ও অষ্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে সাদ্দাম, জুটন, শুভ, ইমন ও রেজাউলকে আটক করা হয়।

তাদের মধ্যে অষ্টগ্রাম উপজেলার আলীনগর থেকে রেজাউলকে আটকের পর তার কাছ থেকে রাব্বীর অটোরিকশাটি উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের এবং স্কোয়াড কমান্ডার উপ-পরিচালক চন্দন দেবনাথ আরো জানান, অটোরিকশা ছিনতাই করাই এই চক্রের প্রধান কাজ। ছিনতাইয়ের কাজে বাধা প্রদান করলে হত্যাকাণ্ড ঘটাতেও চক্রটি দ্বিধাবোধ করে না।

অটোবাইক ছিনতাইয়ের পরে এদের মধ্যে থেকে ৩-৪ জনের একটি গ্রুপ অটোবাইক বিক্রয়ের জন্য সাদ্দাম ও জুটনের সাথে বিক্রয়ের ব্যাপারে যোগসূত্র স্থাপন করে, যাদের কাজ হলো অটোবাইক বিক্রয় করে টাকা নিয়ে আসা।

রাব্বীর অটোবাইকটি সাচ্চু, ইয়াছিন, আজিজুল ও মাসুম ৩০ হাজার টাকায় সাদ্দাম ও জুটনের কাছে বিক্রয় করে দেয়। সেখান থেকে সাদ্দাম, জুটন, জুটনের ছেলে শুভ ও ইমন এর নেতৃত্বে দূরবর্তী উপজেলা অষ্টগ্রামের আলীনগর এলাকার রেজাউল মিয়ার কাছে বিক্রয় করে দেয়। যাতে করে দূরবর্তী এলাকায় অটোবাইক বিক্রয় করলে খোঁজ পাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

পরবর্তীতে রেজাউল আবার তার এলাকায় অটোবাইকটির বিভিন্ন অংশ আলাদা আলাদা করে বিক্রয় করে, যাতে করে অটোবাইকটি দেখে কেউ চিহ্ণিত করতে না পারে। এইভাবে একের পর এক মিশন চালায় এই অটোবাইক ছিনতাই চক্রটি।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর