কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অটোরিকশা ছিনিয়ে নিতে খুন করা হয় রাব্বীকে


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ আগস্ট ২০২০, রবিবার, ৬:০৩ | অপরাধ 



কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাসহ নিখোঁজ হওয়ার এক সপ্তাহ পর গত ১৪ জুলাই অটোরিকশাচালক মো. রাব্বী মিয়া (২০) এর লাশ উদ্ধার করা হয়। কিন্তু দীর্ঘদিনেও এ ঘটনার হোতাকে গ্রেপ্তার কিংবা অটোরিকশাটি উদ্ধার হয়নি। এ নিয়ে এলাকাবাসী মানববন্ধন ও বিক্ষোভসহ নানা কর্মসূচিও পালন করেছেন।

অবশেষে র‌্যাবের বিশেষ অভিযানে অটোরিকশাটি উদ্ধার এবং রাব্বী হত্যা মামলার প্রধান আসামি হৃদয় ওরফে সাচ্চু (২০) সহ মোট ৬ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। হৃদয় ওরফে সাচ্চু ছাড়া অন্যরা হচ্ছে, সাদ্দাম (৩৩), জুটন (৩৫), শুভ (১৯), ইমন (১৯) ও রেজাউল (২৩)।

শনিবার (১৫ আগস্ট) দিবাগত মধ্যরাতে চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানার অলংকার এলাকায় র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের একটি টিম অভিযান পরিচালনা করে রাব্বী হত্যার হোতা হৃদয় ওরফে সাচ্চুকে গ্রেপ্তার করে।

এছাড়া কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর ও অষ্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে সাদ্দাম, জুটন, শুভ, ইমন ও রেজাউলকে আটক করা হয়।

তাদের মধ্যে অষ্টগ্রাম উপজেলার আলীনগর থেকে রেজাউলকে আটকের পর তার কাছ থেকে রাব্বীর অটোরিকশাটি উদ্ধার করা হয়।

বিশেষ এই অভিযানে নেতৃত্ব দেন র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের এবং স্কোয়াড কমান্ডার উপ-পরিচালক চন্দন দেবনাথ।

তারা জানান, নিহত অটোচালক রাব্বী মিয়া বাজিতপুর উপজেলার নিলখী হাফানিয়া গ্রামের মো. লিলু মিয়ার ছেলে। একই গ্রামের বাদল মিয়ার ছেলে হৃদয় ওরফে সাচ্চু একটি অটো ছিনতাই চক্রের হোতা। রাব্বীর অটোরিকশাটির ওপর হৃদয় ওরফে সাচ্চুর নজর পড়ে।

গত ৭ জুলাই ঘটনার দিনের ৭-৮ দিন আগে সাচ্চু, ইয়াছিন, দুলাল, আজিজুল, মাসুম, বিল্লাল, ছারোয়ার, ফারুক, কাইয়ুম, আলফাজ, টিপু এবং আরো কয়েকজন ছিনতাইচক্রের সদস্য মিলে রাব্বীর অটোবাইকটি ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করে।

কিন্তু তারা ৭-৮ দিনের মধ্যে রাব্বীকে অটোবাইকসহ একা না পেয়ে অটোবাইকটি ছিনতাই করতে পারেনি। পরবর্তীতে ৭ জুলাই রাত ৯টার দিকে সাচ্চু, ইয়াছিন, আজিজুল ও মাসুম অটোচালক রাব্বীকে ফোন করে অটোবাইকসহ স্থানীয় ঈদগাহ মাঠে ডেকে নিয়ে যায়। ঈদগাহের পাশে বালুর মাঠে তারা রাব্বীর গলায় গামছা পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে কয়েকজন মিলে মনিরের বাড়ির সেপটিক ট্যাংকির ভেতরে রাব্বীর লাশ রেখে আসে।

র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের এবং স্কোয়াড কমান্ডার উপ-পরিচালক চন্দন দেবনাথ আরো জানান, অটোরিকশা ছিনতাই করাই এই চক্রের প্রধান কাজ। ছিনতাইয়ের কাজে বাধা প্রদান করলে হত্যাকা- ঘটাতেও চক্রটি দ্বিধাবোধ করে না।

অটোবাইক ছিনতাইয়ের পরে এদের মধ্যে থেকে ৩-৪ জনের একটি গ্রুপ অটোবাইক বিক্রয়ের জন্য সাদ্দাম ও জুটনের সাথে বিক্রয়ের ব্যাপারে যোগসূত্র স্থাপন করে, যাদের কাজ হলো অটোবাইক বিক্রয় করে টাকা নিয়ে আসা।

রাব্বীর অটোবাইকটি সাচ্চু, ইয়াছিন, আজিজুল ও মাসুম ৩০ হাজার টাকায় সাদ্দাম ও জুটনের কাছে বিক্রয় করে দেয়। সেখান থেকে সাদ্দাম, জুটন, জুটনের ছেলে শুভ ও ইমন এর নেতৃত্বে দূরবর্তী উপজেলা অষ্টগ্রামের রেজাউল মিয়ার কাছে বিক্রয় করে দেয়। যাতে করে দূরবর্তী এলাকায় অটোবাইক বিক্রয় করলে খোঁজ পাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

পরবর্তীতে রেজাউল আবার তার এলাকায় অটোবাইকটির বিভিন্ন অংশ আলাদা আলাদা করে বিক্রয় করে, যাতে করে অটোবাইকটি দেখে কেউ চিহ্ণিত করতে না পারে। এইভাবে একের পর এক মিশন চালায় এই অটোবাইক ছিনতাই চক্রটি।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ জুলাই দুপুরে হাফানিয়া গ্রামের মনির হোসেনের বাড়ির সেপটিক ট্যাংকির ভেতর থেকে রাব্বীর লাশ উদ্ধারের পর ওইদিনই রাতে নিহতের বড় ভাই সাদেক বাদী হয়ে সাচ্চুকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের নামোল্লেখ ও অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে বাজিতপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। পরদিন ১৫ জুলাই বিকালে কাইয়ুম (২০) নামে মামলার এজাহারভুক্ত এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। সম্প্রতি মামলাটি পিবিআই’তে হস্তান্তর করা হয়।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর