কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে নতুন স্কুল ড্রেস পেল প্রতিবন্ধী শিশুরা


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৪:১৯ | কলকাকলি 


নূরণ ফাউন্ডেশনের আর্থিক সহায়তায় মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালার শতাধিক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা পেল নতুন স্কুল ড্রেস। মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার একমাত্র বিশেষায়িত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালার সকল শিক্ষার্থীর মাঝে এ ড্রেস বিতরণ করা হয়।

মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) উপজেলার গোথালিয়া প্রাইমারী স্কুল মাঠ প্রাঙ্গণে ‘প্রতিবন্ধী শিশুদের মাঝে নতুন স্কুল ড্রেস বিতরণ অনুষ্ঠান’ অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাজিতপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছারওয়ার আলম।

গেস্ট অব অনার সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মুহাম্মদ সামছুল ইসলাম, বাজিতপুর উপজেলা হাসপাতালের প্রধান কর্মকর্তা ডা. বিথী রাণী রায় এবং নূরণ ফাউন্ডেশন এর প্রেসিডেন্ট এ এন এম মঈন উদ্দিন ঠাকুর।

মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আ.কা. ম গোলাম মোস্তফা-এর সভাপতিত্বে ও প্রতিবন্ধী শিশু স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ম. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাজিতপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদ মিয়া, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলনাহার, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. আফজাল হোসেন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ বি এম রাকিবুল হাসান, বিশিষ্ট সাংবাদিক নাসরুল আনোয়ার ও পিরিজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাফর ইকবাল জুয়েল।

প্রতিবন্ধী স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সহযোগী সাংবাদিক নাসরুল আনোয়ারের শুভেচ্ছা বক্তব্যের মধ্য দিয়ে মূল অনুষ্ঠান শুরুতে তিন শতাধিক আগত অতিথির সামনে স্কুলের প্রতিবন্ধী শিশুরা দলীয় সংগীত পরিবেশন করে।

আলোচনা সভা শেষে অতিথিবৃন্দ অটিস্টিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধীসহ ১৩৬ জন প্রতিবন্ধী শিশুর মাঝে নতুন স্কুল ড্রেস বিতরণ করেন।

উল্লেখ্য যে, কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার আওতাধীন পিরিজপুর ইউনিয়নের গোথালিয়া গ্রামে ২০১৫ সাল থেকে ‘পরিবর্তনে আমরাও অংশীদার’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে “মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র” এর শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে।

এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি সরকার কর্তৃক প্রণীত ‘সমন্বিত শিক্ষা নীতিমালা ২০১৯’ এর আইন মোতাবেক ‘মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউ-েশন’ এর অধীনে প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত হচ্ছে। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির সরকারি স্বীকৃতি কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

ইতোমধ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম স্থাণীয় সাংসদ, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব, জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপার, উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণসহ একাধিক সরকারী গুরত্বপূর্ণ ব্যক্তিগণ পরিদর্শন করেছেন এবং জেলা পর্যায়ে একবার এই বিশেষায়িত বিদ্যালয় এবং এর প্রতিষ্ঠাতা পর্যায়ক্রমে সেরা বিদ্যালয় ও সফল প্রতিবন্ধী ব্যক্তি হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন। বিদ্যালয় কার্যক্রম সংক্রান্ত নিউজ একাধিক প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে।

এ পাঠশালাটি বাজিতপুর উপজেলার একমাত্র বিশেষায়িত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে উক্ত প্রতিষ্ঠানে ১৮ জন শিক্ষক ও কর্মকর্তা কর্মরত (২ জন ভ্যান চালকসহ) এবং ১৩৬ জন শিক্ষার্থী (৯৫ জন বুদ্ধি, ডাউন্স, সিপি ও অটিজমসহ অন্যান্য) অধ্যয়নরত রয়েছে।

প্রায় ৫ বছর ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষক ও কর্মকর্তাগণ স্বেচ্ছাসেবক হিসাবে কাজ করে আসছেন। দীর্ঘদিন যাবত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি গোথালিয়া গ্রামে অস্থায়ীভাবে একটি ৪৫ ফিট লম্বা আধা-পাকা ঘরের দুটি কক্ষে পরিচালিত হয়ে আসছে।

পার্শ্ববর্তী উপজেলাগুলোতে এ ধরণের বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান না থাকায় দিন দিন এ প্রতিষ্ঠানটিতে প্রতিবন্ধী শিশুর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর