কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে উঠান বৈঠক


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:৩৫ | শিক্ষা  


“মানসম্মত শিক্ষা, শেখ হাসিনার দীক্ষা” এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে কিশোরগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শতভাগ উপস্থিতি মিড ডে মিল ও ঝরে পড়া রোধ নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সদর উপজেলার মনোহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অভিভাবক মিলন মিয়ার বাড়ি প্রাঙ্গণে এই উঠান বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

উঠান বৈঠকে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষক বান্ধব জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সুব্রত কুমার বণিক। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবু আহমেদ বাচ্চুর সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহবুব জামান, সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এনামুল হক খান ও সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এমদাদুল হক।

প্রধান অতিথি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সুব্রত কুমার বণিক তার বক্তৃতায় মা-কে শিশুর প্রথম শিক্ষক আখ্যা দিয়ে বিদেশী চ্যানেল থেকে নিজকে ও শিশুদের দূরে রাখতে বলেন। তিনি বলেন, এটি একটি অপসংস্কৃতি, এ অপসংস্কৃতি মানুষকে বিষাক্ত করে তুলে। ডিস কোন উপকারে আসে না। সন্তান হলো আসল সম্পদ। প্রকৃত সম্পদ চাইলে ডিস বন্ধ করে দিতে হবে। একজন ভালো সন্তান এলাকার গর্ব আর  দেশের সম্পদ। এসম্পদ রক্ষা করতে হলে সন্তানদের প্রতি নজর  রাখতে হবে।

তিনি আরো বলেন, মেয়ে সন্তানদের অন্য দৃষ্টিতে দেখার কোন সুযোগ নেই । তাদেরকে কোন অংশ থেকে বঞ্চিত করলে নিজেই বঞ্চিত হবেন। তিনি ছেলে মেয়ে দুজনের প্রতি সমান সুযোগ দেওয়ার জন্য উপস্থিত মা-দের প্রতি আহবান জানান।

অতিরিক্ত জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহবুব জামান বলেন, প্রাথমিক শিক্ষার প্রথম হাতিয়ার হলেন মা। একজন মা পারেন তার সন্তানকে একজন সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে। তিনি বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তুলতে হলে শিশুকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুসরণ করে তাদেরকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার আহবান জানান প্রতিটি মায়ের কাছে।

সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এনামুল হক খান বলেন, শিশুকে মানুষ করতে হলে মাকে অনেক ত্যাগ স্বীকার  করতে হবে। তার পাশে বসে থাকতে হবে। তার খোঁজ খবর রাখতে হবে। তবেই সে মানুষের মতো মানুষ হবে। তিনি আরো বলেন, মা জ্ঞানী হলে তার সন্তানও জ্ঞানী হবেই। একজন শিক্ষার্থী প্রতিদিন স্কুলে আসলে তার মেধাশক্তি বৃদ্ধি পাবেই।

তিনি আরো বলেন, শিক্ষিত হওযার দরকার নেই, সুশিক্ষিত হওয়া দরকার। শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন স্কুলে আসলে সে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠবেই। আর এ ক্ষেত্রে মায়ের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। এজন্য তিনি প্রতিদিন শিশুদের স্কুলে পাঠানোর জন্য উপস্থিত মায়েদের প্রতি আহবান জানান।

অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন সদর উপজেলার কড়িয়াইল ক্লাস্টারের সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ আবুল বাসার মৃধা। এতে বিদ্যালয়ের নারী অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কোহিনুর রেখা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর