কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


এবার জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্বর্ণ পদক পেলেন ডা. সুলতানা রাজিয়া


 স্টাফ রিপোর্টার | ২২ জুন ২০১৯, শনিবার, ১০:১৯ | স্বাস্থ্য 


চিকিৎসা সেবা ও মানব কল্যাণে বিশেষ অবদানের জন্য এবার জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্বর্ণ পদক-২০১৯ পেয়েছেন কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক (উপ-পরিচালক) ডা. সুলতানা রাজিয়া।

শুক্রবার (২১ জুন) বিকালে রাজধানীর বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তাঁর হাতে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্বর্ণ পদক-২০১৯ তুলে দেয়া হয়।

বাংলাদেশ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক সোসাইটি আয়োজিত “বাংলাদেশেউন্নয়নে শেখ হাসিনার অবদান” শীর্ষক আলোচনা সভায় এই সম্মাননা প্রদান করা হয়।

গণতদন্ত কমিশনের চেয়ারম্যান বিচারপতি শামছুল হুদা প্রধান অতিথি হিসেবে ডা. সুলতানা রাজিয়ার হাতে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্বর্ণ পদক-২০১৯ তুলে দেন।

অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন দৈনিক আমার সময় এর নির্বাহী সম্পাদক লায়ন মো. মিজানুর রহমান। অধ্যক্ষ গোলশান আরা বেগম এর সভাপতিত্বে এতে প্রধান আলোচক ছিলেন মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী নিশাত আহমেদ খান।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট কেন্দ্রিয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও মুখপত্র অরুন সরকার রানা।

ডা. সুলতানা রাজিয়া এর আগে গত ২৮ মে জ্ঞানতাপস ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ স্বর্ণ পদক এবং ৫ এপ্রিল মাদার তেরেসা সম্মাননা পদক লাভ করেছেন।

গত বছরের ২৮শে জুন কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক (উপপরিচালক) হিসেবে যোগদান করেন ডা. সুলতানা রাজিয়া। তত্ত্বাবধায়ক ডা. সুলতানা রাজিয়া-এর ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও আন্তরিকতায় বর্তমানে হাসপাতালটি সেবা বান্ধব প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।

এছাড়া তাঁর প্রচেষ্টা ও উদ্যোগে হাসপাতালে বিশেষায়িত বহির্বিভাগ ছাড়াও বেশ কয়েকটি নতুন ওয়ার্ড এবং ডিজিটাল এক্সরে চালু হয়েছে।

ডা. সুলতানা রাজিয়া এর আগে ২০১৬ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে সিভিল সার্জন হিসেবে নরসিংদী স্বাস্থ্য বিভাগের নেতৃত্ব দিয়েছেন। অত্যন্ত সুনাম ও দক্ষতার সাথে সেখানে দায়িত্ব পালনের সময় তিনি জাতীয় পর্যায়ে পুরস্কৃতও হন।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্বর্ণ পদক পাওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় ডা. সুলতানা রাজিয়া বলেন, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্বর্ণ পদক পেয়ে আমি খুবই আনন্দিত। এই স্বীকৃতি আমার কর্তব্যকে অনেকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। আমি আমার জেলার মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করে সকলের মুখে হাসি ফোটাতে চাই। এ জন্য আমি সকলের কাছে দোয়া চাই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর