কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মাদারীপুরের ডিসি হিসেবে আলো ছড়াচ্ছেন কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান ওয়াহিদুল ইসলাম


 মো. হেলাল উদ্দিন | ১৪ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ২:৪৬ | প্রশাসন 


মাঠ প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ পদ হচ্ছে জেলা প্রশাসক (ডিসি)। ডিসি জেলার শীর্ষপদ। সরকারের উপসচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তাদের জেলা প্রশাসক নিয়োগ দেয়া হয়। মাদারীপুরে জেলা প্রশাসক পদে দায়িত্ব পালন করছেন কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান মো. ওয়াহিদুল ইসলাম।

অত্যন্ত দক্ষতার সাথে জেলা প্রশাসকের দায়িত্ব পালন করে প্রশংসিত হচ্ছেন তিনি। গত ১১ই মে মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক হিসাবে কৃতিত্বের সাথে তিনি তিন বছর পূর্ণ করেছেন।

বাংলাদেশের প্রশাসনিক ক্যাডারে একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার একটি স্টেশনে তিন বছর অবস্থান  করা অত্যন্ত কঠিন ও দুরুহ একটি বিষয়। কিন্তু এ অসম্ভবকে জয় করেছেন মো. ওয়াহিদুল ইসলাম।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার যশোদল গ্রামের কালিকা সরকার বাড়ির শিক্ষা পরিবারের জনক মরহুম আব্দুল হামিদ ও আনোয়ারা বেগমের বীর সন্তান মাদারীপুরের জনতার কর্মমুখর জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম।

৯ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। ব্যক্তি জীবনে তিনি একজন বিনয়ী ও সাদা মনের মানুষ। সততা, আদর্শ এবং নিষ্ঠার সাথে নিরলসভাবে তিনি সরকারি দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

দেশের প্রতি রয়েছে তাঁর অগাধ দরদ ও ভালবাসা। অবিচল আস্থা হৃদয়ের সেতুবন্ধন নিজ দপ্তরের কাজকে  জীবনের চেয়েও আপন মনে করেন তিনি। দেশ ও জাতির যোগ্য সন্তানের মানসে দেশকে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয়ে বলিয়ান এক কর্মবীর মো. ওয়াহিদুল ইসলাম।

মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালনে তাঁর  সফলতার  চিত্র দেশের বিভিন্ন মিডিয়ার কর্মীরা জাতির সামনে তুলে ধরেছেন।

যে সমস্ত কাজে তিনি বিচক্ষণতার সাথে সহায়তা প্রদান করেছেন সেসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে, বালাদেশ সরকারের  তিনটি মেগা প্রকল্প পদ্মা ব্রীজ, (মাদারীপুরের অংশ ) ঢাকা থেকে ভাঙা পর্যন্ত সিক্স লেন হাইওয়ে, পদ্মা রেইললিংক প্রকল্প বাস্তবায়ন, শিবচরে প্রধানমন্ত্রীর নামে প্রতিষ্ঠিত চারটি প্রতিষ্ঠান: জননেত্রী শেখ হাসিনা টেক্সটাইল কলেজ, শেখ হাসিনা তাঁত পল্লী, শেখ হাসিনা হাইটেক পার্ক ও শেখ হাসিনা ফোর লেন সড়ক, মাদারীপুরে সরকারি কর্মকর্তাদের সমন্বিত দশতলা অফিস ভবন, চরমুহুরিয়া ইকোপার্ক, মাদারীপুরের শকুনি লেকের সৌন্দর্য বর্ধন ইত্যাদি।

শান্তিপূর্ণভাবে জাতীয় সংসদ এবং উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পরিচালনা ছাড়াও একনিষ্ঠভাবে সরকারের নীতি, আদর্শ ও কর্মসূচী বাস্তবায়ন।

জেলা পর্যায়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবসসমূহ ও অনুষ্ঠানাদি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কাজে প্রাণান্তকরভাবে ই-ফাইলিং, ই-মোবাইল কোর্ট, ই-মিউটেশন ও অনলাইন ভিত্তিক সেবা কার্যক্রম মাদারীপুরে চালু করা।

ছয়তলা বিশিষ্ট মাদারীপুর অফিসার্স ক্লাবের ভবন নির্মাণ। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও সার্কিট হাউসের দৃষ্টিনন্দন  সৌন্দর্য বর্ধন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত স্থান সংরক্ষণ। সরকারি স্কুলের সামনে জাতির পিতা ও বঙ্গমাতার ম্যুরাল স্থাপন।

প্রতিদিন গণশুনানীর মাধ্যামে মানুষের বহুবিধ সমস্যার সমাধান লাঘবে চেষ্টা করে যাচ্ছেন। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী পালনের জন্য বছরব্যাপী ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ যা করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে কিছুটা বিঘ্নিত হয়েছে।

কোভিড-১৯ মহামারি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবেলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে মাদারীপুরের প্রতিনিধি হিসেবে সফলতার সাথে অনলাইন ব্রিফিংমাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষা করে যাচ্ছেন।

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য উপহার সামগ্রী হতদরিদ্র মানুষদের মাঝে বিতরণ করছেন।

জেলার জাতীয় সংসদ সদস্য, বিভিন্ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি ও নেতৃবৃন্দসহ আপামর জনসাধারণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করে মাদারীপুর জেলাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন।

মাদারীপুরে জেলা প্রশাসক হিসেবে মো. ওয়াহিদুল ইসলামের তিন বছর পুর্তি উপলক্ষে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও নিজ এলাকার লোকজন এবং আত্মীয় স্বজনসহ সূধীজন বন্ধুজন তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর