কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নাভেদ আফ্রিদীর কাব্য: সকল মুখ ভালোবাসার জন্য

ভাবনার ভেতরে দুইটি ভেতর


 মাইন সরকার | ৩ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৬:০১ | সাহিত্য 


আচ্ছা। আমি যদি বলি-তোমার ভেতর থাকা উচিত নয়। তোমার ভেতর আমি থাকি, তোমাকে উলট-পালট করে তোমার ভেতরে বাহিরে উন্মাদ লুকিয়ে রাখি ; যা ইচ্ছে তাই বলতে পারি।  তবে যা ইচ্ছে তা কবিতা হতে পারে না। কবিতা হবে মহৎ, কবিতা পৃথিবীর সবচেয়ে  গভীরতম শিল্পকলা। যেখানে  মেকি কোনো কিছুর স্থান নেই। যেখানে নতুন ভাবের উদয়খেলায় কবি নিজেকে লিপ্ত করবে এবং লেপ্টে যাবে বিস্ময়কর বহির্জগতে।

আর তখনি কবি বলতে পারবেন-’ তোমার ভেতর নীল রকমের জল/ এবং রহস্যময় অগ্নি। ধ্বংস আর সৃষ্টির প্রস্তুতি/ তোমার ভেতর বিস্ময়কর বহির্জগৎ/ তোমার খুব জরুরি/ নিজের সাথে নিজে কথা বলা/ দুটি ভেতর থাকা জরুরি/ একটি উন্মাদ লুকিয়ে রাখার জন্য/ একটি সকল মুখ ভালোবাসার জন্য।’

কবিতাটির নাম ‘ঝিনুক ’। ঝিনুক নামটি দেখার সাথে সাথে আমি হাজার লোকের ভীড়ে একা হয়ে গেছি। হারিয়ে গেছি পৃথিবীর সীমারেখা  ভেদ করে প্রেমের শহরে। যে শহর একান্ত আমার। যেখানে স্বপ্নরা আকাশে ওড়ে। আবার কোনো কোনো স্বপ্ন উড়ে উড়ে মেঘ ছুঁয়ে আসে। এসে একদম দিগন্তে মিলে যায়।

আমিও একদম দিগন্তে মিলে গেছি। কারণ ’ঝিনুক ' নামটি কোনো না কোনো কারণে আমার প্রিয়। হতে পারে আমার কোনো গোপন প্রেমিকা।

‘সকল মুখ ভালোবাসার জন্য’ কবি নাভেদ আফ্রিদীর কবিতার বই। বইটির প্রথম কবিতা এটি। পুরো বইটিতে নাভেদ আফ্রিদীর ২৪ টি কবিতা রয়েছে।  প্রথম -’ঝিনুক 'যেহেতু আমার গোপন কোনো জলপিয়াসির নাম।

'ঝিনুক’ নামটি যেহেতু আমাকে ভাবনায় ফেলেছে তাই কবি নাভেদ আফ্রিদীর সাথে আমিও বলতে চাই- আসলেই দুটি ভেতর থাকা খুব জরুরি। তা না হলে আমি প্রেম করতে পারবো না, আর ভেতরে যদি শুধু একটি ভেতর থাকে আমার তাহলে এই শতাব্দীতে এসে আমার প্রেমিকাও আমার বিরুদ্ধে দাঁড়াবে। দুটি ভেতর থাকা যেমন খুব জরুরি তেমন জরুরি বিষয়টির নামই হলো কবিতা।

‘সকল মুখ ভালোবাসার জন্য’ বইয়ের ২৪টি কবিতাই এসব সুক্ষ্মাতিসুক্ষ্ম বিষয়, চিরন্তন ধারণাকে জরুরি করেছে। তাই এই বইটির কবিতাগুলো কবিতা হয়েছে। বইটির নামকরণ আমাকে ভাবনায় ফেলেছে। ভাবনার পাল উড়িয়ে আমিও কবির কবিতার শহরে ঘুরে এসেছি।

বইটি প্রকাশ করেছেন  কবি বদরুল হায়দার তাঁর কবিতাচর্চা প্রকাশনী থেকে। ২০১৯ বই মেলায় বেশ কিছু কবিতার বই প্রকাশ করেছেন কবিতাচর্চা প্রকাশনী।

প্রকাশক হিসেবে বদরুল হায়দার বইটির চমৎকার একটি ভূমিকা লিখেছেন। ভূমিকায় শেষে তিনি লিখেছেন ‘সকল মুখ ভালোবাসার জন্য’ কাব্যগ্রন্থটি প্রকৃত পাঠকের ভালো লাগবে। বইটি সংগ্রহের মতো’।

বইয়ের ‘দুঃখের নিসর্গ’ কবিতার একটি লাইন বিশেষভাবে আমাকে ভাবায়। লাইনটি হলো- ‘চোখের ভেতরে কারও সাগর থাকে না’। যদি আমি বলি চোখের ভেতর তুমি থাকো আর সাগর আমার ছায়া, তুমি আর সাগর পাশাপাশি হাঁটো। কিন্তু কবি যেটা বলেছেন সেটাই সত্য, কারণ সাগর অনেক দূরে থাকে, চোখের ভেতর সাগর নেই। আমার মনে হয় এখানে কবি রাগান্বিত, চরম জীবন উপলব্ধিতে কবি উজ্জ্বলিত এবং অনেকটা উত্তেজিত হয়েই কবি তার কোনো ভাবসঙ্গীকে বলছেন- চোখের ভেতর কোনো সাগর টাগর নেই যে তোমার মনের আগুন নেভাবো।

মির্জা গালিব বলেছিল- প্রেমের আগুন জ্বালাইলেও জ্বলে না, নিভাইলেও নিভে না। কবি এখানে মূলত বলতে চেয়েছেন তুমিসহ পৃথিবী পুড়ে গেলেও আমার চোখে সাগর নেই যে জল ঢেলে দেব।

যেখানে কবির জীবন খেয়ে কবিতা জন্ম নেয়। সেখানে আত্মার গভীরে সীমাবদ্ধতা না থাকলেও আত্মার আকুতি বিছানো পলিমাটিতে রোপিত হবে দুঃখের নিসর্গ।

বইটি  উৎসর্গ করা হয়েছে কবি ফকির লালন সাঁইকে। উৎসর্গ পাতায় কবি লিখেছেন- জগতের ধ্যান ধারণার প্রবাহে, মহাত্মা ফকির লালন সাঁই, মাটি থেকে বালি আর পলি আলাদা করে দেখবার চোখ আবিষ্কার করেছেন। প্রকৃতির নিগূঢ় প্রেমের ভেতর ঘোষণা করেছেন মানবাত্মার স্বাদ।

বইটির প্রচ্ছদ করেছেন মহিউদ্দিন মোহন। বইটির মূল্য একশত টাকা। আপনি চাইলে বইটি সংগ্রহ করতে পারেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর