কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মাইন সরকার সম্পাদিত কবিতা সঙ্কলন ‘মানসিক বুনন’


 কাজী বর্ণাঢ্য | ১৭ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ২:২৭ | সাহিত্য 


মানসিক বুনন একটি নিরঙ্কুশ কবিতার বই। নয়জন কবির কবিতার সমন্বয়ে এই বইটি সম্পাদনা করেছেন কবি মাইন সরকার। এ সময়ের প্রতিশ্রুতিশীল নয়জন কবির কবিতা পাঠকের সুদূরপ্রসারী চিন্তার দরজা খুলে দিয়েছে। মানসিক বুননের প্রতিটি ভাঁজে ভাঁজে বস্তুত, কোমল চাঁদের দুটি চোখ ঠুকরে খেলো।

কবি মাসুদ পথিকের পাঁচটি কবিতা ভিন্ন ভিন্ন আবেদন রাখে। তাঁর দুঃখ তোর বাড়ি যাবো কবিতাটি পাঠ করে আমিও গিয়েছিলাম দুঃখের বাড়ি। দুঃখের গহীন চোখে তাকিয়ে আমি কেবল কান্নাকে খুঁজে পেতাম। তবে কি কান্না আমার আবহমান কবিতা,  কবি স্বিগ্ধা বাউল ‘হাতের নখগুলো জমা রেখেছিলাম কালো চ্যাকশার্টের প্যাকেটে’।

আমি বেঁচে থাকি প্রতিদিন  স্বপ্ন বেশ্যার মতো। অথবা মাঘ মাসের বুড়া সন্ধ্যাটার সাথে চলে যায় মাগিটার ওম। গতরের গন্ধে আমারও প্রেম  লাগে। এরকম প্রতিবাদী উচ্চারণের পাঁচটি কবিতা।

শূন্য চাই শাহ্ বোরহান মেহেদীর পাঁচটি কবিতার একটি অধ্যায়। সদ্য খাঁচা মুক্ত পাখির মতো পালকের তীব্র কোলাহল  আমি অপাঠ্য ক্যালিওগ্রাফের জ্যাম দৃশ্য বইটির পূর্ণতা দিয়েছে।

তাপ চাই আগুনের স্পর্শ চাই, ওমটুকুও চাই, পূর্ণতা চাই, কবি শাহ্ আলম চৌধুরীর পাঁচটি কবিতার একটি সোনালী ভোর। সোনালী ভোরের অপেক্ষায় আছি তোমাকে আঁকবো বলে। বইয়ের প্রতিটি কবিতাতেই চেতনার আগুনে জ্বলে উঠেছে।

আমরা স্বপ্নের দিকে যাই, শব্দের পেখম উড়িয়ে আমরা স্বপ্নের বাড়ি যাই, দীর্ঘ দীর্ঘ স্বপ্ন এককদম  দুকদম আমরা হাঁটতে থাকি আমাদের পথ গেছে স্বপ্নের ঠিকানায় কবিতা আমাদের পথ কবিতা আমাদের ডানা, আমরা ডানা মেলে রুবি নামে নদীটার দিকে গেলাম। নদীটির উত্তাল ঢেউয়ে জেগে আছে কবি শরিফুল ইসলাম। শব্দের জাল দিয়ে তুলে এনেছেন কবিতা।

আসলে কোন সৌন্দর্যই শেষ হবার নয়। আসলেও না। পাঁচটি কবিতার এই অধ্যায়টিকে মাহমুদা নামে ঢেউয়ে এ কবির নিকুঞ্জ। রুবি নামের নদীটি পার হলেই স্বপ্নের জংশন। স্বপ্নের জংশনের স্টেশন মাস্টার হয়ে বসে আছেন দুনিয়া মামুন। কবির হুঁইসেলে কতগুলো স্মৃতির ধূসর রোমাঞ্চ নিয়ে পাশাপাশি হাসে। বৃক্ষেরা সমস্বরে আলপনা আঁকে তাঁর চোখ, সব ভূমি পৃথিবীর আমরাই গড়ে তুলেছি নিজস্ব বাড়ি। অথচ পৃথিবীটাই আমাদের ঘর।

কবি কাজী আমীর সম্পর্কের সড়কে দাঁড়িয়ে বলছেন স্যাগনাল তুলে নাও ট্রাফিক। প্রতিটি জীবন যেন জ্যামে আটকে গেছে। কবিতার হুঁইসেল বাজালেই প্রতিটি মানুষ বাড়ির দিকে যাবে। রাস্তার কোন ট্রাফিকও থাকবে না।কবিতার দাপটে মরে যাবে সব আঁধার। কবিতা এক মায়াবীজ। কবি বুনন করেছে ভালোবাসার বীজ ফসল ঘরে তুলবে যখন তখন। প্রেম লাগবে’ কবি সাইফুল বীন হানিফ প্রেম ফেরিওয়ালা আজ আশিনা পূর্ণিমারাতে চল পালিয়ে যাই। ভরা পূর্ণিমায় কবি পালিয়ে গেলেন।

কবি মাইন সরকার পড়েছেন মামলায় ‘আমার নামে মামলা করে দিও যখন তোমার ইচ্ছে হবে প্রিয়’। কোন কারফিউ জারি করে আটকাতে পারে না প্রেম। তুমি র‌্যাব হয়ে আসো হৃদয়ের ক্রসফায়ারে শেষ করে দাও ব্যথিত হৃদপিণ্ড --- আমি পৃথিবীর পথে দেদারসে বিলি করি মানবিক বোধ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর