কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মানবিক কবি আরিফ মঈনুদ্দীনের 'জনকের জন্য কবিতা'


 মাইন সরকার | ১৩ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার, ১:৩০ | সাহিত্য 


কবি আরিফ মঈনুদ্দীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮২ সালে বাণিজ্যে মার্কেটিং বিষয়ে সম্মানসহ স্নাতক এবং ১৯৮৩ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। 'জনকের জন্য কবিতা' সহ কবির মোট ২০টি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। এর মধ্যে ৭টি কাব্যগ্রন্থ, ৫টি গল্পগ্রন্থ  এবং ৮টি উপন্যাস।

লেখালেখিতে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ইতোমধ্যে তিনি রোটারীক্লাব ইন্টারন্যাশনাল-এর সম্মাননা, কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ স্মৃতি পুরস্কার, কবি জসীম উদ্দীন সাহিত্য পুরস্কার এবং বাংলাদেশ রাইটার্স ফাউন্ডেশন বেস্টবুক অ্যাওয়ার্ডস ছাড়াও বেশ কয়েকটি পুরস্কার লাভ করেন।

ওয়ার্ল্ড এক্সপোজিশন ২০১৫ উপলক্ষে জাপান সরকারের আমন্ত্রণে ১০ সদস্যের এক সাংস্কৃতিক প্রতিনিধি দলের সদস্য কবি হিসেবে সে বছর জুন মাসে জাপান সফর করেন।

'জনকের জন্য কবিতা' মানবিক কবি আরিফ মঈনুদ্দীনের কবিতার বই। বইটি প্রকাশ করেছে বিশ্বসাহিত্য ভবন। বইটি কবি উৎসর্গ করেছেন বাংলার সূর্যসন্তান মুক্তিযোদ্ধাদেরকে। যাদের হাত ধরে আমরা স্বাধীন হয়েছি।

বইটির সূচিপত্রে রয়েছে স্বপ্ন দেখার পর, জনকের রক্তের ধারা, তোমার কোনো প্রস্থান নেই, অমরাত্মার পদাবলি, আমাদের প্রিয় স্বাধীনতা, দেখো কেমন শুয়ে আছি, রাজনীতির কবি, আকাশে বিশ্বাস ভঙ্গের আর্তনাদ, লক্ষ মুজিব ঘরে ঘরে, সূর্যের সমান উচ্চতায়, সময়ের চোখে এত অভিমান।

বইটি পাঠে স্বয়ং বঙ্গবন্ধু আমার চোখের সামনে নেমে এসেছেন। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে পৃথিবীর অনেক কবিরাই লিখেছেন তবে প্রত্যেক কবির কবিতাই ভিন্ন। এখানে বইটি থেকে ভিন্ন ভিন্ন কবিতার কয়েকটি লাইন তুলে ধরলাম- ১. আকাশ কাঁপিয়ে বৃষ্টি নেমেছে, এ তো আগস্টের শুরু/ কে বলেছে এ বৃষ্টির জল- এ তো শোকের অশ্রুধারা ক্লান্তিহীন শোকগ্রস্ত মেঘের ক্রন্দন।

আগস্ট মাসে বঙ্গবন্ধুকে পূর্বপরিকল্পিতভাবে হত্যাযজ্ঞে মেতে উঠেছিলো এদেশেরই চিরকুলাঙ্গার সন্তানেরা। শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করে থামেনি তারা, বঙ্গবন্ধুর পুরো পরিবারের ১৪ জনকে হত্যা করেছিলো তারা। এ যেনো শুধু হত্যা নয় বাংলাদেশকে হত্যা করা। বঙ্গবন্ধুর আর্তনাদে প্রকৃতিও কেঁদে কেটে ভাসিয়ে ছিলো তাঁর বুক।

আমার মনে বঙ্গবন্ধুর অশ্রুরেখায়ই সে দিন বাংলাদেশের মানচিত্রে তুমুল বৃষ্টি হয়েছিলো। তাই হয়তো কবি এখানে মেঘের ক্রন্দনের কথা লিখেছেন তাঁর কবিতায়। ২. অমরত্ব পেয়ে নেতা এক হাসে/ সে হাসি তারাই টের পায় যারা ভালোবাসে।

পৃথিবীতে অমরাত্মার মানুষ খুব বেশি নেই। আর থাকলেও তাদের মধ্যে অন্যতম প্রধান বঙ্গবন্ধু যার হাসিতে যার গর্জনে এদেশের মানচিত্র তৈরি হয়েছে, কৃষ্ণচূড়া ফোটেছে এই মাটিতে। পাকিস্তানি অনুচরেরা কখনই বঙ্গবন্ধুর হাসি টের পাবে না। যে হাসিতে ফোটে ওঠে অমরাত্মার পদাবলি। ৩. এসো আমার শয্যাপাশে- দেখো কেমন শুয়ে আছি/ কতদিন শুয়ে আছি...!

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু চির নিদ্রায় শুয়ে আছেন এ যেনো জাগ্রত, এ যেনো ঘুমের ভেতর থেকেও জেগে উঠে, কথা কয় আর সেই কথা কেবল তারাই শুনতে পান যারা বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসে, বঙ্গবন্ধুকে ধারণ করে। ৪. অনুশোচনার দেয়াল বেয়ে টপটপ ঝরে পড়লো/ ত্রিশ লক্ষ শহীদের তাজা রক্ত,/ দু লক্ষ মা-বোনের ইজ্জত বিনয়ে সেঁটে বসলো লাল সবুজের পতাকায়।

আমরা বাঙালিরা স্বাধীনতা পেয়েছি, মুক্ত হয়েছি, স্বদেশের নিশান উড়াচ্ছি মুক্ত হাওয়ায়। কিন্ত এই স্বাধীনতা একদিনে আসেনি, শহীদের রক্তে রঞ্জিত হয়েছিলো আমাদের পথ ঘাট, অসংখ্য মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আজ স্বদেশের পতাকা উত্তোলিত হয়, মানচিত্র ভরে কৃষ্ণচূড়া ফোটে। ৫. পৃথিবীর পথে হেঁটে যেতে যেতে/ তাবৎ কবিরা আঙুল তুলে সগৌরবে বলে যেত -/ রাজনীতির কবি এক এসেছিলেন ধরায়...।

বঙ্গবন্ধু পৃথিবীতে এসেছিলেন, বাংলার মুক্তির কাণ্ডারি হয়ে। তাইতো আজ পৃথিবীর কবিরা বঙ্গবন্ধুকে সগৌরবে রাজনীতির কবি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আজও লেখা হচ্ছে অজস্র গান কবিতা। 'জনকের জন্য কবিতা' বইটিতে ফোটে উঠে মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিমূর্তি, যেখানে বিদ্যমান বঙ্গবন্ধুর জীবন অধ্যায়। বইটি পাওয়া যাবে বিশ্বসাহিত্য ভবনের বিক্রয় কেন্দ্রে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর