কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


'প্রিয় বাংলা পাণ্ডুলিপি পুরস্কার' পেলেন কিশোরগঞ্জের তন্ময় আলমগীর


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১:০৯ | সাহিত্য 


শত শত পাণ্ডুলিপি থেকে বাছাই করে গত ২৩ সেপ্টেম্বর প্রিয় বাংলা পাণ্ডুলিপি পুরস্কার ’২০ এর বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেছে প্রিয় বাংলা প্রকাশন। এ বছর মোট চারজন লেখককে পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়েছে। তারা হলেন- প্রিন্স আশরাফ, জনি হোসেন কাব্য, তন্ময় আলমগীর এবং মাহমুদ হায়াত।

এর মধ্যে প্রিন্স আশরাফ পুরস্কার পাচ্ছেন তার রচিত ‘মাটি’ উপন্যাসের জন্য, জনি হোসেন কাব্য পুরস্কার পাচ্ছেন ‘বর পালালো’ শিরোনামের ছড়ার পাণ্ডুলিপি জন্য, তন্ময় আলমগীর মনোনীত হয়েছেন গল্পের পাণ্ডুলিপি ‘শেষ বিকেলের গল্প’ এবং মাহমুদ হায়াত মনোনীত হয়েছেন ‘উদ্বাস্তু মেঘের মিছিল’ শিরোনামের কাব্যগ্রন্থের জন্য।

বিজয়ী পাণ্ডুলিপিগুলো বই আকারে প্রকাশ করবে প্রিয় বাংলা প্রকাশন, সেই সাথে বিজয়ী প্রত্যেক লেখককে দেয়া হবে পাঁচ হাজার টাকা করে লেখক সম্মানী, সম্মাননা ক্রেস্ট এবং সনদ। অক্টোবরের শেষের দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ীদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট ও সনদ তুলে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রিয় বাংলা’র প্রকাশক এস এম জসিম ভূঁইয়া। এছাড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ী পাণ্ডুলিপিগুলো বই আকারে পাওয়া যাবে অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রিয় বাংলা’র স্টলে।

প্রিয় বাংলা প্রকাশন প্রতি বছর পাণ্ডুলিপি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকে। এ প্রতিযোগিতায় তুলনামূলকভাবে নবীন লেখকদেরকে প্রাধান্য দেয়া হয়।

নবীন লেখকদেরকে প্রাধান্য দেয়ার কারণ হিসেবে প্রতিষ্ঠানটির প্রকাশক এস এম জসিম ভূঁইয়া বলেন, “প্রতিষ্ঠিত লেখকদের পাণ্ডুলিপি নিয়ে অনেক প্রকাশকই কাজ করেন। নবীন লেখকরা বরাবরই অবহেলিত থাকে। নবীনদেরকে সুযোগ না দিলে ভবিষ্যতের প্রতিষ্ঠিত লেখক তৈরি হবে কোথা থেকে?

তিনি আরো জানান, এ বছর প্রতিযোগিতায় সর্বমোট ৪২৭টি পাণ্ডুলিপি জমা পড়েছিল। তার মধ্যে থেকে উল্লেখিত চারজনকে বিজয়ী হিসেবে মনোনীত করা হয়েছে। এর বাইরে সুপার লিস্টে থাকা বিশ জন লেখক প্রিয় বাংলা থেকে বই প্রকাশে পাবেন বিশেষ সুবিধা।

প্রিয় বাংলা গত তিন বছর ধরে এ পাণ্ডুলিপি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আসছে। এর আগে প্রিয় বাংলা পাণ্ডুলিপি পুরস্কার ’১৯ এ চারজন এবং প্রিয় বাংলা পাণ্ডুলিপি পুরস্কার ’১৮ এ সাতজন নবীন লেখকের পাণ্ডুলিপি বিজয়ী হয়েছিল।নবীনদের কেন্দ্র করে এ আয়োজন প্রতি বছর অব্যাহত থাকবে বলেও জানান প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার এস এম জসিম ভূঁইয়া।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর