কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


লাল সালুর হালখাতা


 মু আ লতিফ | ২ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, ১২:০৮ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


ব্যবসায়ীদের সম্পর্কে যখন বললাম, তখন তাদের হালখাতা উৎসবটি সম্পর্কেও আমার কিছু বলা উচিত হবে। বৈশাখের হালখাতা উৎসব আমি নিজের চোখেই দেখেছি।

বাংলা নববর্ষের অন্যতম উৎসব হালখাতা। ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে বিশ্বাস, আস্থা ও সম্পর্কের প্রকাশই এই হালখাতা উৎসব।

যদিও সময়ের বিবর্তণে এখন আর তেমনটা হয় না। এতে এখন অনেকটাই ভাটা পড়েছে। প্রযুক্তির কারণে খাতার পরিবর্তে এখন কম্পিউটার সেই স্থান দখল করে নিয়েছে।

আগেকার দিনে প্রায় প্রতিটি ব্যবসায়ী হালখাতার উৎসব উদযাপন করতেন। সারা বছরের লেনদেনের পর পয়লা বৈশাখে হিসাবের খাতাটি তারা হালনাগাদ করতেন।

হালখাতা হচ্ছে লালসালু কাপড়ের মলাটে মোড়ানো লালরঙের খাতা। কয়েক প্রকারের খাতা ছিল। যেমন জাবেদা খাতা, খতিয়ান খাতা ও টালি খাতা। ব্যবসায়ীদের প্রকার ভেদে তারা সেইসব খাতা ব্যবহার করতেন।

বড় ব্যবসায়ীদের জন্য উল্লেখিত সবগুলো খাতারই প্রয়াজন পড়তো। ছোটদের বেলা শুধু টালি খাতাতেই চলে যেত। সেইসব খাতায় পুরনো দিনের হিসাব চুকিয়ে নতুন হিসাব খোলেন ব্যবসায়ীরা।

সারা বছর যারা বাকীতে পণ্য নিতেন, তারা বছরের প্রথম দিন এসে তা পরিশোধ করেন। কেউ কেউ অগ্রিম অর্থও দিয়ে যান। তখন দোকানে আসা ক্রেতাদের মিষ্টি দিয়ে আপ্যায়ণ করা হতো।

ছোটবেলায় দেখেছি, ব্যবসায়ীদের আনেকেই হালখাতা অনুষ্ঠানকে ঝাঁকজমক করে উৎযাপন করতেন। অনেকেই মাইক টানিয়ে কলেরগান বাজাতেন।

বড়বাজারের নবদ্বীপ সাহা, নারায়ণ চন্দ্র সাহা, রায় মহাশয়, অবিনাশ সাহাসহ এঁদেরকেও হালখাতার সময় মিষ্টি খাওয়াতে দেখেছি।

গৌরাঙ্গবাজারের মদন গোপালের মালিক ছিলেন ধীরেন বসাক ও বঙ্কিম বসাক। তারা দুই ভাই। তৎকালে মদন গোপালেও হালখাতা করা হতো বেশ ঘটা করে। হালখাতা উৎসবে অংশগ্রহনের জন্য ব্যবসায়ীরা গণ্যমান্য ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানিয়ে পত্র দিতেন। এছাড়াও নিয়মিত ক্রেতাদেরকেও চিঠি দেওয়া হতো।

বাংলা নববর্ষের হালখাতা উৎসব আজ প্রায় অতীত স্মৃতি। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর