কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নাটক মঞ্চায়নে অনন্য সাফল্য


 মু আ লতিফ | ১০ আগস্ট ২০১৯, শনিবার, ১২:১৯ | সংস্কৃতি 


কিশোরগঞ্জ নাট্য পরিষদ, কিশোরগঞ্জ শিল্পী সমিতি, কমিউনিটি থিয়েটার ও টিএন্ডটি নাট্য পরিষদ নামে বেশ ক’টি সংগঠন একসময় কিশোরগঞ্জের নাট্যাঙ্গকে জমজমাট করে রাখতো। এ সংগঠনগুলোর মাধ্যমে বেশ কিছু প্রতিভাবান শিল্পীরও আবির্ভাব ঘটেছিল।

টিএন্ডটি নাট্য পরিষদের মো. মোমতাজ উদ্দিন নিজে নাটক রচনা করে তা সংগঠনের মাধ্যমে মঞ্চস্থ করা হতো। একই সংগঠনের মো. রফিকুল ইসলাম একজন কুশলী অভিনেতা ছিলেন।

এসময় কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন নাটকে কল্লোল ও হিল্লোল নামে দুই বোন শৌখিন নাট্য শিল্পী হিসেবে বেশ নাম করেছিলেন। এসময় ফাতেমা আক্তার রত্নার নেতৃত্বে ‘পিয়াস যাত্রা ইউনিট’ প্রশাসনের অনুমোদন নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় যাত্রাপালার আয়োজন করে।

এ যাত্রাদলে আরো যারা কাজ করতেন তারা হলেন এমএ কদ্দুস, মোনায়েম হোসেন রতন, বাবুল চৌধুরী,  চম্পা হাসান, এমএ ফরহাদ, হাবিবুর রহমান, ছেনু মিয়া, মহিউদ্দিন, সাধনা, হেলালউদ্দিন প্রমুখ।

নাটকের পাশাপাশি এখানে সঙ্গীতাঙ্গনও জমজমাট ছিল। উস্তাদ শিল্পী বিজন দাশ তখন তৈরি করেন ‘কিশোরগঞ্জ সাংস্কৃতিক পরিষদ’। তারা ‘চন্দ্রাবতী’ গীতিনাট্য পরিবেশনার মাধ্যমে যথেষ্ঠ সুনাম অর্জন করেন।

১৯৯৯ সালে নির্মল চক্রবর্তী ও আরমান চৌধুরীর নেতৃত্বে গড়ে উঠে ‘লোকসঙ্গীত কেন্দ্র’। সুমন আহমেদ রঞ্জন তৈরি করেন ‘লৈাকজ শিল্পী সংস্থা’। কৃষি উন্নয়নে উদ্বুদ্ধকরণ সঙ্গীত রচনা ও গান পরিবেশনায় অবদান রাখায় রাষ্ট্রপতি পুরস্কারপ্রাপ্ত সৈয়দ নুরুল আউয়াল তারা মিঞা গঠন করেন ‘উজিয়াল শিল্পী গোষ্ঠী’।

২০০২ সালে জেলা প্রশাসন ও শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে কিশোরগঞ্জ স্টেডিয়ামে তিন দিনব্যাপী  লোকজ সাংস্কৃতিক জলসার আয়োজন করা হয়।

সেপ্টেম্বর মাসের ২২-২৪ পর্যন্ত অনুষ্ঠানমালায় কিশোরগঞ্জের হারিয়ে যাওয়া বিভিন্ন লোকজ উপাদান ও অবহেলিত গ্রামীণ সংস্কৃতি পরিবেশনা ও শিল্পীদের জনসমক্ষে তুলে আনা হয়।

অনুষ্ঠানমালায় বিশিষ্ট পালাকার ইসলাম উদ্দিন ও তার দলের পালাগান, চারণ লোকশিল্পী আবদুর রহিম (খেলু পাগল), অন্ধ শিল্পী স্বপন মিয়া ও প্রতিবন্ধী শিল্পী মো. জসিম উদ্দিনের সঙ্গীত দর্শকদের বিমোহিত করে।

তবলে প্রসিদ্ধ ভবেশ ভট্টাচার্য, তপন বসাক, প্রমোদ চক্রবর্তী নলু, বাপ্পি ভট্টাচার্য, কুশল কিশোর বিশ্বাস, শংকর সরকার, দিলীপ কুমার দাস প্রমুখ।

অতীত ঐতিহ্যকে ধারণ করে ইতোমধ্যে আরো বেশ কিছু সংগঠন গড়ে উঠেছে এবং সংগঠনগুলো এখনো সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

কিশোরগঞ্জ সাংস্কৃতিক সংস্থা (কিসাস-১৯৯৪) গঠিত হয়েছে সাংস্কৃতিক সংগঠক এটিএম মোস্তফার নেতৃত্বে। এ সংগঠনটি ইতোমধ্যে তাদের কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে স্থানীয়ভাবে এবং জাতীয় পর্যায়ে যথেষ্ঠ সুনাম অর্জনে সক্ষম হয়েছে।

তাদের মঞ্চায়িত মহুয়া, মলুয়া, চন্দ্রাবতী, বীরাঙ্গনা সখিনা, বীর ঈসা খাঁ ইত্যাদি গীতি নৃত্যনাট্য সকলের দৃষ্টি কেড়েছে। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর