কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পথ নাটক ক্ষ্যাপা পাগলার প্যাচাল ও স্বরবর্ণ নাট্য মঞ্চ


 মু আ লতিফ | ৯ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, ১২:২৭ | সংস্কৃতি 


১৯৮১ সালে কিশোরগঞ্জে নাটকের ইতিহাসে যুক্ত হয় একটি নতুন মাত্রা পথ নাটক ‘ক্ষ্যাপা পাাগলার প্যাচাল’। এ নাটকে মোহাম্মদ আলজুস ভূঞা, রুহুল আমিন মনু ও শেখ ফরিদ আহমেদের সফল অভিনয় প্রশংসিত হয়েছিল।

নাটকটি পরিচালনা করেন মোহাম্মদ আলজুস ভূঞা। সজল দেবের সঙ্গীত পরিচালনায় ১৯৮১ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি রঙমহল চত্তরে প্রথম, রেলস্টেশনে দ্বিতীয় ও একই দিন আখড়াবাজার মোড়ে ‘ক্ষ্যাপা পাগলার প্যাচাল’ মঞ্চস্থ করা হয়।

১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে হাজার হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে এটি আবার মঞ্চায়ন করা হয়। নাটকটি লিখেছিলেন এসএম সুলায়মান। তিনি ছিলেন পদাতিক নাট্য গোষ্ঠীর সভাপতি।

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি একশ্রেণির সুবিধাভোগীদের অবেহেলা ও কটাক্ষের প্রতিবাদই এ নাটকের উপজিব্য বিষয় ছিল। এ পথনাটকে মোহাম্মদ আলজুস ভূঞার অসাধারণ অভিনয় সকলের প্রশংসা কুড়িয়েছিল ও একজন শক্তিমান অভিনয় শিল্পী হিসেবে তার উত্থান ঘটে। এ পথ নাটকটি  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একাধিকবার প্রদর্শিত হয়েছিল বলে জানা যায়।

এর আগেও আলজুস ভূঞা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ডাকসু) প্রথমবারের মত গীতিকাব্য নাটক ‘ফণী মনসা’ মঞ্চস্থ করে ইতিহাস গড়েন। ১৯৭৯ সালে হলগুলোর মধ্যে অনুষ্ঠিত নাট্য প্রতিযোগিতায় সূর্য সেন হলের পক্ষে এ নাটকটি মঞ্চস্থ করা হয় । এ প্রতিযোগিতায় এটি শ্রেষ্ঠ নাটক হিসেবে এবং পরিচালক হিসেবে তিনি শ্রেষ্ঠ পরিচালকের পদক লাভ করেছিলেন।

এদিকে ডা. সাহেব আলী পাঠান ও ছড়াকার নবী হোসেনের নেতৃত্বে কিশোরগঞ্জে লোকজ সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘আউল বাউল শিল্পী গোষ্ঠী ‘গঠন করা হয়। তারা ১৯৮১ সালে পুরাতন স্টেডিয়ামে বাউল মেলার আয়োজন করেন। এতে সারাদেশ থেকে শতাধিক বাউল শিল্পী অংশ গ্রহণ করেন।

মেলার আয়োজকরা সেরা চার বাউলকে সম্মাননা প্রদান করেন। এরা হলেন, মো. আলাউদ্দিন (করিমগঞ্জ), সুধীর দাস (পূর্বধলা), মো. ইদ্রিস মিয়া (পূর্বধলা) ও কিশোরগঞ্জের বাউল শিল্পী শাহ গিয়াস উদ্দিন ফকির।

উদয় শংকর বসাক ও লৎফুর রহমান গড়ে তুলেন ‘হাক্কানী শিল্পী গোষ্ঠী’। এসময় বহু পেশাদার নারী নাট্যকর্মী সক্রিয়ভাবে কাজ করেন। এদের মধ্যে সবিতা, স্বপ্না, দীপালী, নুরজাহান, শুকা, রতœা, গীতা, মমতা, হেনা, চম্পা, সুরভী অন্যতম।

এদিকে মঞ্চাভিনয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন সাইদুর রহমান মানিক, আলজুস ভূঞা, সফিউদ্দিন ভূঞা, উপল হাসান, মুক্তি চৌধুরীসহ অনেকে।

১৯৯৩ সালে গঠিত হয় ‘স্বরবর্ণ নাট্য মঞ্চ’। মৃণাল কান্তি দত্তের নেতৃত্বে এ সংগঠনটি নাটক মঞ্চায়নে উল্লেখযোগ্য কৃতিত্ব দেখায়। এরা আবদুল্লাহ আল মামুন রচিত ‘শাহজাদীর কালো নেকাব’, ‘তোমরাই’,‘এখনো ক্রীতদাস’, ‘এখন দুঃসময়’; শৈলেশ গুহ নিয়োগীর ‘ফাঁস,’ কল্যাণ মিত্রের ‘সাগর সেচা মানিক’, মীর মশাররফ হোসেনের ‘জমিদার দর্পণ’সহ অনেকগুলো নাটকের সফল মঞ্চায়ন করেন।

এ সংগঠনটির অভিনেতারা হলেন মৃণাল দত্ত, গিয়াস উদ্দিন খান, মোজাম্মেল হক খান রতন, দেবাশীষ ভৌমিক, জাহাঙ্গীর আলম জাহান, নিখিল রঞ্জন নাথ টুক্কু, হারুন আল রশিদ, মোজম্মেল হক মাখন, দিলীপ ধর, সেলিনা ইয়াসমিন কাকলি, ইয়াসমিন সুলতানা মিঠু, পুরবী দাস, আফরোজা সুলতানা সোমা, খুজিস্থা বেগম জোনাকী প্রমুখ।

এ সংগঠনটি এককভাবে পাঁচ দিনব্যাপী নাট্যোৎসব করে তাদের শক্তির পরিচয় দিয়েছিল।

কিশোরগঞ্জ সাংস্কৃতিক মঞ্চ ২০০২ সালে প্রায় একুশটি সাংস্কৃতিক সংগঠনের সমন্নয়ে পাঁচদিনব্যাপী এক সাংস্কৃতিক উৎসবের আয়োজন করে। স্থানীয় টেনিস গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত উক্ত উৎসবের উদ্বোধন করেছিলেন তৎকালীন গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী মির্জা আব্বাস।

এতে আরো উপস্থিত হয়েছিলেন ঢাকা বিভাগের কমিশনার আবু সোলায়মান চৌধুরী, বিশিষ্ট শিাবিদ ও গবেষক ড. আশরাফ সিদ্দিকী।

উদ্যোক্তাদের মধ্যে মূল দায়িত্বে ছিলেন সাংস্কৃতিক সংগঠক অসীম সরকার বাধন, মোজাম্মেল হক খান রতন, সন্দীপ রায় ও শেখ ফরিদ আহমেদ।

এটি একটি সফল আয়োজন ছিল। তাছাড়াও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে নানা বিভাজনের মধ্যে এটি ছিল সম্মিলিত প্রয়াসের একটি প্রকৃষ্ট উদাহরণ। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর