কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বড়বাজার পাইকারি ব্যবসার জন্য প্রসিদ্ধ


 মু আ লতিফ | ১ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১২:১২ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


বড়বাজারে পান মহালে ঢুকবার পথে ডান পাশেই ছিল অনন্ত লাল সাহাদের মনোহারি দোকান। সেই অনন্ত দাদা একজন নাট্য শিল্পী ছিলেন। এটি তাঁর শখ। ব্যবসার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অঙ্গনে পদচারণা সবাই করতে পারে না। এর জন্য রসবোধ ও সুন্দর মন লাগে।

আর একজন নাট্য শিল্পীর কথা আমি জানি তিনি একজন দলিল লেখক ছিলেন। তিনি নগুয়ার বাসিন্দা জনাব আবদুল খালেক। কলেজ জীবনে শিল্পকলায় তাঁদের অভিনয় আমার দেখার সুযোগ হয়েছিল।

শহরের বড়বাজারের কিছুটা বিবরণ দেয়া দরকার। কারণ কিশোরগঞ্জ শহরের বড়বাজারকে এখানকার ব্যবসার প্রাণ কেন্দ্র হিসেবেই গণ্য করা হয়।

ইংরেজ আমলে এখানকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর অধিকাংশের মালিক ছিলেন হিন্দু সম্প্রদায়। তারা লেখাপড়ায় ও চাকরিতেও এগিয়ে ছিলেন। ওইসময়ের ব্যবসায়ীদের মধ্যে যাদের নাম করা যায় তাঁরা হলেন নবদ্বীপ চন্দ্র সাহা, রাম দয়াল সাহা, উমেষ চন্দ্র সাহা,পরশু রাম সাহা, রাজ চন্দ্র সাহা, সুরেন্দ্র চন্দ্র সাহা ও নারায়ণ চন্দ্র সাহা অন্যতম।

বর্তমান অলকালয়ের মালিক বিষ্ণুপদ সাহার বাবা হলেন নারায়ণ চন্দ্র সাহা, তার বাবা হলেন সুরেন্দ্র চন্দ্র সাহা ও তার বাবার নাম হচ্ছে রাজ চন্দ্র সাহা। যতদূর জানাগেছে এঁরা সদর উপজেলার বড়বাগ এলাকা থেকে এসে এখানে ব্যবসা শুরু করেছিলেন। পুরুষানুক্রমে তাদের ব্যবসা এখনো অব্যাহত রয়েছে।

পরবর্তীতে ও পাকিস্তান আমল থেকে বড় বাজারে হিন্দুদের সঙ্গে মুসলিম সম্প্রদায়ও ব্যবসায় জায়গা করে নেন। এসময় মুসলিম ও হিন্দু সম্প্রদায়ের অনেকেই বড়বাজারে ব্যবসায় প্রসার লাভ করেন। তাঁদের মধ্যে সতালের রুস্তম বেপারী, আবদুর রহমান বেপারী, বয়লার ওয়ালী নেওয়াজ খান ও নবী নেওয়াজ খান।

এছাড়া হাজী শামসুদ্দিন ভুইয়া,বলরামসাহা, মনোরঞ্জন রায়, অবিনাস সাহা, হাজী আক্কাস বেপারী, হাজী আবু তাহের, হাজী ছফির উদ্দিন,বিরেশ্বর চন্দ্র ঘোষ,ননী গোপাল চন্দ্র ঘোষ, মানিকলাল চৌধুরী প্রমুখ।

বড়বাজার মুলত আরতদার ও পাইকারি ব্যবসার জন্য প্রসিদ্ধ। জেলার বিভিন্ন অঞ্চলের সাধারণ  ব্যবসায়ীরা এখান থেকে মালামাল ক্রয় করে নিজ নিজ মোকামে নিয়ে এসব পন্য খুচরায় বিক্রি করেন।

বিভিন্ন অঞ্চলে  উৎপাদিত পন্যসমাগ্রীও এখানে এনে পাইকাদের নিকট চাষিরা বিক্রি করে থাকেন। জেলার বাইরে থেকেও এখানকার বড় বড় ব্যবসায়ীরা পন্য সামগ্রী আনা নেওয়া করেন। কিশোরগঞ্জের বড়বাজার বহুকাল ধরেই এখানকার প্রধান বাণিজ্যকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত।

আগেই বলেছি একসময় এ বাজার হিন্দু ব্যবসায়ীদের প্রধান্য ছিল। পরে ধিরে ধিরে হিন্দুদের সঙ্গে মুসলমানরাও ব্যবসায় জায়গা করে নেয়। বড়বাজারে এখনো যারা ব্যবসা করছেন তাদের অনেকেরই এটা ছিল পৈত্রিক ব্যবসা। বাপ-দাদাদের ব্যবসা কেউ কেউ আজো ধরে রেখেছেন। আবার অনেকেই এখানে নিজ উদ্যোগেই ব্যবসায় নেমেছেন।

বড়বাজারের সুপ্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হাজী শামসুদ্দিন ভুইয়ার পুত্র মাযহারুল ইসলাম ভুইয়া কাঞ্চন বাবার ব্যবসাকেই পেশা হিসেবে নিয়েছিলেন। পরে তিনি অবশ্য পৈত্রিক ভিটাগুলোতে বহুতল ভবন তৈরি করে মার্কেট ও ব্যাংক এর কাছে ভাড়া দিয়েছেন। তিনি পৌরসভার নির্বাচিত মেয়র হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

এদিকে বয়লা এলাকার আক্কাস বেপারীর ভাই হাজী আবু তাহের পৈত্রিক ব্যবসায় জড়িত রয়েছেন বহুদিন যাবত। তিনিও পৌর সভার নির্বাচিত মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছেন।

মরহুম আক্কাস বেপারীর পুত্র মো. কামরুল ইসলাম তাঁর বাবার ব্যবসার উত্তরাধীকারি। তিনি বড়বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন।

এদিকে হাজী ছফির উদ্দিন বেপারীর পুত্র মো. ওসমান গণি তাঁর বাবার ব্যবসার সঙ্গে আরো যুক্ত করেছেন ‘নেহাল পার্ক’ এর মত একটি দৃষ্টিনন্দন পার্ক ও বিনোদন কেন্দ্র। তিনি শুধু ব্যবসায়ী নন। একজন সৃজনশীল ও সংস্কৃতিকর্মী হিসেবেও সকলের নিকট পরিচিত। তারাও বড়ভাগ এলাকা থেকে এখানে এসে থিতু হন।

একসময় কিশোরগঞ্জ পাটের জমজমাট ব্যবসা ছিলো। তখন এ ব্যবসায় জড়িত ছিলেন ওয়ালী নেওয়াজ খান, নবী নেওয়াজ খান, উমেষ চন্দ্র সাহা, বিরেশ্বর চন্দ্র ঘোষ, ননী গোপাল চন্দ্র ঘোষ, মানিকলাল চৌধুরী।

মনোরঞ্জন রায়, নবদ্বীপ চন্দ্র সাহার ছিলো মনোহারি ব্যবসা। তৎকালে ব্যবসায়ীদের বেশিরভাগ মালামাল পরিবহণ করা হতো নদীপথে। চট্টগ্রাম,বরিশাল, ইশ্বরদী,পাবনা, সিলেট, আজমীরিগঞ্জ ও ভৈরব থেকে মাল আনা নেওয়া করা হতো নদীপথে।

এছাড়াও হাওরের ধানসহ প্রায় সব ধরণের ব্যবসা পরিচালিত হতো এই নদীপথে। আমিও ছোটবেলায় দেখেছি পুরানথানা, মণিপুরিঘাট ও বড়বাজার ঘাটে নৌকা নোঙর করা থাকতো।

নরসুন্দা ছিলো নাব্য ও খরস্রোতা। নরসুন্দা নদীকে কেন্দ্র করেই বড়বাজারের ব্যবসা জমজমাট হয়ে উঠেছিল। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর