কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অগ্নিযুগের রাজনীতি


 মু আ লতিফ | ২৮ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ১১:৪৭ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


স্বাধীনতার স্পৃহা বাঙালির হৃদয়ে বহুকাল ধরেই বহমান ছিলো। এ কারণে বাঙালি বারবার সংগ্রাম করেছে। হাজার বছরের বাঁকে বাঁকে তাই দেখা যায় মুক্তিকামী বাঙালির সংগ্রাম, আত্মত্যাগ ও প্রত্যয়দৃপ্ত পদচারণা।

বাঙালিকে মোঘল, ব্রিটিশ ও পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেই বিজয় ছিনিয়ে আনতে হয়েছে। যার সফল পরিণতি ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ এবং ১৬ই ডিসেম্বরে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদ্বয়।

আজকের পর্বে তাই আমি ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন যাকে অগ্নিযুগ বলে আক্ষায়িত করা হয় সেই আমলের রাজনীতি সম্পর্কে কিছু বলার চেষ্টা করবো।

যতদূর জানা যায়, কিশোরগঞ্জে ব্রিটিশের বিরুদ্ধে জোরদার আন্দোলন সংঘটিত হয়েছিল। অসহযোগ আন্দোলন এবং সন্ত্রাসী তৎপরতা থেকেও কিশোরগঞ্জ বাদ ছিলো না। ১৯২১ থেকে ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত গান্ধীজির রাজনৈতিক অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

এ সময় এখানকার ছাত্ররা অসহযোগ আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে কাজ করেছেন। সারা মহকুমায় এ আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছিল। জানা যায়, উকিল চন্দ্র কুমার বিশ্বাস, যশোদানন্দন গোস্বামী প্রমুখ কংগ্রেস নেতৃবৃন্দের নেতৃত্বে এখানে প্রবল আন্দোলন গড়ে ওঠে।

অন্যদিকে পুলিশি নির্যাতনও বেড়ে গিয়েছিল। ওই সময় চান্দপুরে আসাম থেকে আগত কুলি-মজুরদের উপর পুলিশের নির্যাতনের প্রতিবাদে সারা দেশে হরতালের ডাক দেয়া হয়। এ সময় কিশোরগঞ্জেও সর্বাত্মক হরতাল পালিত হয়েছিল।

কিশোরগঞ্জ রেল স্টেশনের কর্মচারী ও কুলিরা স্টেশন ত্যাগ করে চলে যায়। তখন কলকাতা থেকে বেশ কজন রাজকর্মকর্তা এখানে এসে সমঝোতা করার চেষ্টা চালায়।

পরে তদানিন্তন বাংলার গভর্নর লর্ড রোনাল্ডসে কিশোরগঞ্জ সফর করেন এবং কিশোরগঞ্জকে জেলায় উন্নীত করার আশ্বাস দেয়ার পরও আন্দোলনে ভাটা পড়েনি। আন্দোলন কেবলই উত্তপ্ত ও জোরদার হতে শুরু করে।

কর্মীরা সুযোগ পেলেই বিলেতি কাপড় প্রকাশ্যে ভষ্মীভূত করত। তখন উকিল, মোক্তার ও ডাক্তাররাও বিদেশি পোশাক বর্জন করেন। এ সময় রথখোলা ময়দানে প্রায়ই জনসভা হতো।

তখন দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাসের Daily Forward ও  সাপ্তাহিক আত্মশক্তি কংগ্রেস সমর্থকদের ঘরে ঘরে পঠিত হতো। এ সময় ইংরেজরা কবি নজরুলের বিষের বাঁশী বাজেয়াপ্ত করে।

বয়োজ্যেষ্ঠদের কাছে এও শুনেছি, ১৯২৭ সালে কিশোরগঞ্জে এক বিরাট রাজনৈতিক কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় রথখোলা ময়দানে এক বিশাল জনসভায় বক্তৃতা করেন দৈনিক এডভান্স-এর সম্পাদক ব্যারিস্টার প্রফুল চক্রবর্তী, আচার্য প্রফুল চন্দ্র রায়, কংগ্রেস নেতা জালাল উদ্দিন হাসেমি, এডভোকেট শামসুদ্দিন আহমদ ও বিল্পবী নেতা সুভাষ বসু প্রমুখ।

সুভাষ বসুর সেই জ্বালাময়ী ও উদ্দীপক ভাষণ মানুষের মনে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল বলে শুনেছি।

১৯৩০ সালে গান্ধীর নেতৃত্বে আইন অমান্য আন্দোলন শুরু হলে কিশোরগঞ্জে বহু লোক গ্রেফতার বরণ করেন। স্থানীয় নেতা যশোদানন্দন গোস্বামীর নেতৃত্বে এখানে লবণ আইন বিরোধী ব্যাপক আন্দোলন গড়ে উঠেছিল।

ওই আন্দোলন করতে গিয়ে স্থানীয় ব্রাহ্মণকচুরি গ্রামের হেমাঙ্গিনী দাস কারাবরণ করেছিলেন। এ সময় স্থানীয় ব্যবসায়ী মাহমুদ মিয়া ও আফতাব উদ্দিন আহমদ গ্রেফতার হন।

এদিকে কিশোরগঞ্জে আন্ডারগ্রাউন্ড রাজনীতিও সক্রিয় ছিল। তাদেরকে সন্ত্রাসবাদী বলা হতো। বয়লার ওয়ালী নেওয়াজ খান, কুলিয়ারচরের ত্রৈলক্ষ্যনাথ মহারাজ, তাড়াইলের নগেন সরকারসহ অনেকেই এর সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

ওয়ালী নেওয়াজ খানের বাড়ি ছিলো সন্ত্রাসবাদীদের গোপন আস্থানা। তখন তাদের অনেকেই অনুশীলন পার্টি ও যুগান্তর দলের  সঙ্গে কাজ করতেন। বৃহৎ জমিদার ও তালুকদারদের বাড়িতে ডাকাতি করে এরা গরিব ও দুস্থদের মাঝে সম্পদ বিলিয়ে দিতেন।

তারা ব্রিটিশ সরকারের বিভিন্ন স্থাপনায় হামলা চালিয়ে সরকারকে ব্যতিব্যস্ত করে তুলতেন। পরে এরাই আবার কমিউনিস্ট পার্টি গড়ে তুলেছিলেন।

বড়ভাগ এলাকার কবি নিবারণ পণ্ডিত ছিলেন একজন বড়মাপের কমিউনিস্ট নেতা। ভৈরবের সন্তান ও কিশোরগঞ্জ আজিমউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয়ের কৃতী ছাত্র রেবতী মোহন বর্মণও কমিউনিস্ট নেতা হিসেবে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছিলেন।

এখানে আরো একজনের নাম করতে হয়। তিনি সুধাংশু কুমার অধিকারী। ১৯২৯ সালে মীরাট ষড়যন্ত্র মামলার আসামি যতীন দাস কারাবন্দি অবস্থায় ৫৬ দিন অনশন করে মৃত্যুবরণ করেন।

তাঁর মৃত্যুতে কিশোরগঞ্জে এক বিশাল প্রতিবাদ মিছিল হয়েছিল। লাল ঝান্ডা হাতে ওই মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন সুধাংশু কুমার অধিকারী।

কমিউনিস্টরা শোষণহীন সমাজ কায়েমের কথা বলতেন। তাঁরা সকল মানুষের সম অধিকারে বিশ্বাসী ছিলেন এবং তাঁরা গরিবের বন্ধু ছিলেন। কিন্তু ধর্ম সম্পর্কে তাদের ধ্যান-ধারনা নিয়ে মানুষের মধ্যে নেতিবাচক মনোভাব ছিলো।

যদিও তারা সকল মানুষের কল্যাণ কামনা করতেন। তারা সব ধরনের শোষনের বিরুদ্ধে অবিচল ছিলেন। তথাপি কমিউনিষ্ট পার্টি বেশি জনসমর্থন লাভ করতে পারেনি।

অন্যদিকে কংগ্রেস ও শেরে বাংলা একে ফজলুল হক সমর্থিত কিশোরগঞ্জের বান্দুলদিয়ার জনাব শাহ আবদুল হামিদ এমএলসির কৃষক প্রজা সমিতি এখানে বেশ শক্তিশালী ছিল। উভয় দলই তখন কমিউনিস্টদের প্রবল বিরোধী ছিলো।

পরে মুসলিম লীগও তাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয় এবং ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সৃষ্টি হলে কমিউনিস্ট পার্টিকেও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর