কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


গুরুদয়াল কলেজ ও ছাত্র রাজনীতি


 মু আ লতিফ | ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:৫৫ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


গুরুদয়াল কলেজে যখন পড়ি তখন থেকেই ছাত্র রাজনীতি ও সৃজনশীল কাজের সঙ্গে জড়িয়ে যাই।  শুধুই পড়ার জন্য  পড়া নয়, জ্ঞান অর্জন ও মানুষ হওয়ার  জন্য পড়া এবং সবার জন্য পড়ার সমান সুযোগ সৃষ্টির বিষয়টি তখন থেকেই  মাথায়  ঘুরপাক খেতে শুরু করে।

সাধারণ শিক্ষার্থীদের শত সমস্যা, কারো বইয়ের অভাব, কারো ভর্তির টাকা নেই, কারো হয়তো হোস্টেল সমস্যা এসব সমস্যা  তো আছেই। তাছাড়া পর্যাপ্ত ক্লাসরুম নেই, সাইকেল স্ট্যান্ডের দুর্দশা, কমনরুমের বরাদ্দ, ক্রীড়া সামগ্রীর অভাব, কেন্টিনসহ বিনোদনের অপর্যাপ্ততা ইত্যাদি বিষয়গুলো মন-মস্তিষ্কে ভিড় জমাতে থাকে।

এসব নিয়ে সহপাঠিদের সঙ্গে শলা-পরামর্শ, দলবাঁধা ও শিক্ষকদের সঙ্গে বৈঠক করার মধ্য দিয়েই আমার ছাত্র রাজনীতিতে প্রবেশ।

আজিমউদ্দিন হাই স্কুল থেকে ১৯৬৪ সালে এসএসসি পাশ করলেও পারিবারিক কারণে একবছর গ্যাপ দিয়ে আমি ১৯৬৫ সালে গুরুদয়াল কলেজে এইচএসসিতে ভর্তি হই। তারপর ক্লাস করা ও এর ফাঁকে কমনরুমে টেবিল টেনিস অথবা কেরম খেলাতো ছিলই।

আবার কোন কোন সময় আমাদের দল বেঁধে মালেক ভাইয়ের কেন্টিনে চা-সিঙ্গারা অথবা এর সামনের শিমুল গাছের ছায়ায় আড্ডা হতো।

আমাদের সময়ে কলেজে ছাত্র ইউনিয়ন ও ছাত্রলীগ এ দুটি প্রধান ছাত্র সংগঠন ছিল। এছাড়াও সরকারি মদদপুষ্ট এনএসএফ ও ইসলামি ছাত্র সংগঠনও ছিল। তবে তারা ছাত্রদের মধ্যে কোনো প্রভাব বিস্তার করতে পারেনি।

মূলত ছাত্রলীগ ও ছাত্র ইউনিয়ন এ দুটি সংগঠনই ছাত্রদের মধ্যে জনপ্রিয় ছিল। উভয় সংগঠনই সাধারণ ছাত্রদের কল্যাণে কাজ করতো।

ছাত্র ইউনিয়নের কর্মীরা সাধারণত একটু সহিষ্ণু ও বিনয়ী স্বভাবের ও সৃজনশীল কাজের উপর তারা বেশি গুরুত্ব দিতেন। সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ‍ভূমিকার জন্য ছাত্রলীগের সঙ্গে ছাত্র ইউনিয়নের প্রভেদ ও মতদ্বৈততা ছিল।

ছাত্র ইউনিয়ন জাতীয় রাজনীতির পাশাপাশি আন্তর্জাতিক রাজনীতিকে গুরুত্ব দিত। ইঙ্গ-মার্কিন সাম্রাজ্যবাদবিরোধী স্লোগান ও বিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের পক্ষের শক্তি সোভিয়েত ইউনিয়ন ও চীনের প্রতি ছাত্র ইউনিয়ন জোরালো সমর্থন জানাতো। তারা বক্তৃতায় মার্কস, এঙ্গেলস, লেনিন, মাওসেতুং এর উদ্বৃতি দিতেন।

৭০ এর দশকের ছাত্র রাজনীতি একটি আদর্শ ও ন্যায়-নীতি নির্ভর ছিল। ওই সময় ছাত্র সংগঠনগুলো তাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার অংশ হিসেবে শিক্ষার্থীদের সমস্যা ও দাবিসহ গণসচেতনতামূলক সাময়িকী ও প্রচারপত্র প্রকাশ করতো। কর্মীরাই নিজ হাতে সভা-সমাবেশের পোস্টার লিখে দেয়ালে সেঁটে দিত।

সরকারি এজেন্সিগুলো ও তাদের মদদপুষ্ট গুন্ডাবাহিনী এসব কাজে বাঁধা দিতে চেষ্টা করতো। প্রচারপত্র, সাময়িকী ও পোস্টার ছাপাতে প্রেসগুলোর উপর  প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করতো।

ছাত্র সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে রাজনৈতিক কর্মসুচি ছাড়াও বাংলা নববর্ষ, একুশে ফেব্রুয়ারিসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা আয়োজন করা হতো। তাছাড়া এসময় সংগঠনের পক্ষ থেকে দেয়াল পত্রিকা, সাময়িকী প্রকাশ করা হতো।

আর একটা বিষয় উল্লেখ্য যে, ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতা-কর্মীরা ওই সময় পড়া-লেখার বাইরেও বিভিন্ন একাডেমিক কারিকুলামে অংশ নিত। তারা বিতর্ক, আবৃত্তি, নাটক ও অন্যান্য সাংস্কৃতিক কার্যক্রমে সক্রিয়ভাবে অংশ গ্রহণ করতেন।

ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতির মূখ্য ছিল জাতীয়ভাবে শিক্ষার প্রসার, বৈষম্যহীন ও অসাম্প্রদায়িক শিক্ষাব্যবস্থা চালুর পক্ষে কাজ করা। ছাত্র ইউনিয়ন এও মনে করত, বৈষম্যহীন শিক্ষা প্রবর্তনের জন্য জাতীয়ভাবে রাজনীতির গুণগত পরিবর্তন প্রয়োজন। প্রয়োজন স্বচ্ছ, জবাবদিহিমূলক জনগণের সরকার কায়েম।

অন্যদিকে ছাত্র লীগের রাজনীতি মূলত আবর্তিত হতো পশ্চিম পাকিস্তানি ধনিক-বণিক শ্রেণির শোষণ-শাসনের পরিবর্তে বাঙালি উঠতি ধনিক-বণিকের ক্ষমতায়ন।

ছাত্র ইউনিয়ন বিশ্বাস করতো কেবল ক্ষমতার হাত বদলেই জনগণের মুক্তি সম্ভব নয়। কারণ শোষকের কোন জাত নেই, তাদের কোন ধর্ম নেই, দেশ বা কাল নেই। তাদের একটাই পরিচয়, তারা শোষক। তাই মুক্তির পূর্বশর্ত হচ্ছে শ্রেণিবৈষম্যের অবসান ও জনতার সরকার কায়েম, যা কোনদিন সাম্রাজ্যবাদের ছত্রছায়ায় অর্জন করা সম্ভব নয়।

তবে শিক্ষার্থীদের স্থানীয় সমস্যার উপরও জোর দেয়া হতো। কলেজে প্রতি বছর ছাত্র সংসদ নির্বাচন হতো। শিক্ষার্থীদের সরাসরি ভোটে ওই সংসদ নির্বাচিত হতো। নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা তাদের সীমিত ক্ষমতার মধ্যে শিক্ষার্থীদের কল্যাণ সাধন ও কলেজের ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রাখার চেষ্টা করতেন।

প্রতিটি  নির্বাচন শেষে নতুন সংসদের হাতে পুরাতন সংসদের দায়িত্ব অর্পণের জন্য অভিষেক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হতো। অভিষেক অনুষ্ঠানটি হতো খুবই আনন্দ-উদ্দীপনা ও জাঁকজমকের মধ্যদিয়ে। ওইসব অনুষ্ঠানে কলেজ ছাত্র-ছাত্রী ছাড়াও বহু নেতৃস্থানীয় প্রাক্তন ছাত্র ছাত্রী ও শহরের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে আমন্ত্রণ জানানো হতো। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর