কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মিল্লাত রেস্টুরেন্ট ও কলেজ হোস্টেলের আড্ডা


 মু আ লতিফ | ২২ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ১২:০৮ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


কালীবাড়ী মোড়ে ছিলো মিল্লাত রেস্টুরেন্ট। এখন সেখানে স্টেশনারি দোকান হয়েছে। ওই মিল্লাত রেস্টুরেন্টে ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দের আড্ডা হতো। পুরানথানা এলাকার ইসলামিয়া বোর্ডিংয়ে থাকতো ছাত্রলীগ নেতা নান্দাইলের কবিরউদ্দিন ভুইয়া। সেখানেও ছাত্রলীগের আড্ডা জমতো।

আরো একটি জায়গা ছিল সেটি গুরুদয়াল কলেজের হোস্টেল। এখানে থাকতেন মো. আবদুল হামিদ (বর্তমান রাষ্ট্রপতি)। হাওরের অধিকাংশ ছাত্রই এ হোস্টেলের বোর্ডার ছিলেন। ফলে এ হোস্টেলটি ছিলো ছাত্রলীগের ঘাঁটি।

স্বৈরাচার আইয়ুব খান বিরোধী যে কোনো আন্দোলনে তৎকালে ছাত্রলীগ উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছিলো। ওই সময় ছাত্রলীগ শক্তিশালী ছাত্র সংগঠন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত ছিলো। কলেজ সংসদ নির্বাচনে এরাই বেশি আসন লাভ করতো। স্বল্প সময়ের নোটিশে তারা দলে দলে আন্দোলন-সংগ্রামে মিছিল নিয়ে রাজপথে নেমে আসতে পারতো।

আবার আড্ডার কথায় ফিরে আসি। এসব আড্ডায় কবির, মো. ফজলুল হক (নরসিংদী), শওকত আল ফারুক ছানা, ফজলুর রহমান (বর্তমান বিএনপি নেতা), হেলাল উদ্দিন মানিক, নাসিরউদ্দিন ফারুকী, শেখ কবির আহমেদ, নিকলীর মো. ইদ্রিস আলী, শাহদাৎ হোসেন, নুরুল ইসলাম নুরু, আনোয়ার কামাল, সাব্বির আহমেদ মানিক, কামরুজ্জামান কমরু, গৌরাঙ্গ সরকারসহ আরো অনেকে।

এসব আড্ডা নিছক আড্ডা ছিল না। সেখানে বসে তারা চলমান রাজনীতির পর্যালোচনা  ও পরবর্তী পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করতেন। সেইসব আড্ডায় ছাত্রনেতারা সেদিন হয়তো স্বাধীন বাংলার স্বপ্নও দেখতেন। হতেও পারে।

তবে এটা সত্য তারা সেদিন সুখি সমৃদ্ধ, বৈষম্যহীন, অসম্প্রদায়িক একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের স্বপ্ন দেখতেন এবং তারা মনেপ্রাণে এ জন্যে সংগ্রামে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। সেদিন ছাত্র জীবনের সেইসব আড্ডার কথা আজো ভুলিনি।

এতগুলো বছর অতিক্রান্ত হয়েছে তবু স্মৃতির আয়নায় আজো ভেসে ওঠে ওইসব দিনের কথা। একদিকে ছাত্রলীগ অন্যদিকে ছাত্র ইউনিয়ন উভয় সংগঠনই গণতান্ত্রিক আন্দোলনগুলোতে সক্রিয় ছিলো।

সেই সময়কার সহযোদ্ধাদের কথাও ভুলতে পারিনি। এদের মধ্যে ইদ্রিস আলী, শাহাদৎ হোসেনসহ আরো অনেকেই মারা গেছেন।। অন্যদিকে ছাত্র ইউনিয়নের বিমলাংশু রায় বাবলু, নির্মল চত্রবর্তীসহ অনেকেই চির বিদায় নিয়েছে বহুদিন আগেই।

বাবলু ছিল ছাত্র ইউনিয়নের একজন সক্রিয় কর্মী ও নেতা। যে কোন আন্দোলনে পোস্টার লেখা এবং দেয়ালে চিকা মারায় সে ছিল সিদ্ধহস্ত। সে সময় আমরা নিজেরাই পোস্টার লিখতাম এবং নিজেরাই তা দেয়ালে সেঁটে দিতাম। রাত হলেই আমরা বেড়িয়ে পড়তাম পোস্টার সাঁটা ও দেয়ালে দেয়ালে আলকাতরা দিয়ে চিকা মারার জন্য।

আর এক সহকর্মীর কথা মনে পড়ে।  তার নাম ইফতেখার আহমদ খসরু। বৌলাই সাহেব বাড়ির সন্তান। বন্ধুটি ওই সময় ছাত্র রাজনীতিতে সক্রিয় ভুমিকা পালন করেছিল। আজ সেও নেই।

এ সময় ছাত্র ইউনিয়নের আরো যারা সক্রিয় ছিল তাদের মধ্যে মোজাম্মেল হক খান রতন, বিকাশ মজুমদার, হাফিজউদ্দিন, দিলিপ ধর, মশিহুর রহমান, দীপক চক্রবর্তী, আনম তওফিক পানু, আলমগীর শাহজাহান রেজা, হাবিবুর রহমান মুক্তু, আবদুস শাকুর বুলবুল, বাসিরুল আলম, মাহবুব, জাহাঙ্গীর হোসেন, গোলাম রব্বানী মাহবুব, বদরুদ্দোজা বদর, আলমগীর হোসেন, ভুপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, অশোক সরকার, গোলাম হায়দার, আকবর খান, হারুনসহ আরো অনেকে।

ছাত্র বিক্ষোভ মিছিলে দিলিপ ধরের স্লোগান ছিল সেরা। কখন কি স্লোগান দিতে হবে দিলিপ তা গবেষণা করে উদ্ভাবন করত। তার স্লোগান ছাড়া মিছিল জমতো না।

এক সময় ছাত্র ইউনিয়নের রাজনৈতিক নেতা ছিলেন মিজান ভাই। তিনি এখন হাইকোর্টের উকিল। ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতি আবর্তিত হতো মিজান ভাইকে ঘিরেই।

এসময় আরো একজনের কথা মনে পড়ে। তিনি আইয়ুব রেজা চৌধুরী। একজন সমাজতন্ত্রী ও দেশপ্রেমিক নেতা হিসেবে তাঁর ভূমিকা স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনিও গত হয়েছেন। সবই এখন অতীত।

তবে এও সত্য কিশোরগঞ্জের রাজনীতির ইতিহাসে এসব নাম চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

আমাদের বন্ধুদের মধ্যে আরো একজনের কথা না বললেই নয়। তার নাম সাইফূল আলম চৌধুরী কাইসার। তার বাবা ছিলেন চক্ষু চিকিৎসক মতিউর রহমান চৌধুরী। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি মুক্তিবাহিনীর সদস্যদের চিকিৎসা সেবাসহ নানাভাবে সহায়তা করেছিলেন।

মুক্তিযুদ্ধকালীন তাঁদের তাড়াইলের গ্রামের বাড়িটি পাকিস্তান আর্মী জ্বালিয়ে দেয়। তাঁর সুযোগ্য সন্তান কায়সার। ভালো রসবোধসম্পন্ন ব্যক্তি, আমার বন্ধু। ছাত্র জীবনে বন্ধুদের নিয়ে জমিয়ে আড্ডা দিতে পছন্দ করতো। লেখালেখির সঙ্গেও জড়িত ছিল।

সে ম্যাগাজিন, সাময়িকীতে গল্প, কবিতা লিখতো। ইতোমধ্যে তার বইও প্রকাশিত হয়েছে। এখন সে পরিবার নিয়ে ঢাকায় থাকে। এখনো লেখালেখি করে এবং অতীতের স্মৃতি রোমন্থন করে আনন্দ পায়। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর