কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ বাংলা সাহিত্যের আলোকবর্তিকা’


 স্টাফ রিপোর্টার | ২০ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ৭:৩৭ | সাহিত্য 


কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ বাংলা সাহিত্যের এক অনিবার্য নাম। দীর্ঘ ১৭ বছরের নিরলস শ্রমে পারস্যের অমর কাব্য ‘শাহনামা’র অনুবাদ করে তিনি স্পর্শ করেছেন খ্যাতির চূড়ো। লাভ করেছেন বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদক।

বরেণ্য এই কবির জন্মস্থান কিশোরগঞ্জে শনিবার (২০ জুলাই) আলোচনা, স্মরণসভা, কবিতা পাঠ ও স্মৃতিচারণের মাধ্যমে উদযাপন করা হয়েছে তাঁর জন্ম শতবার্ষিকী। জেলা পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে সকাল ১০টা থেকে শুরু হওয়া এ অনুষ্ঠান চলে দুপুর পর্যন্ত।

‘কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ স্মৃতি ও গবেষণা পরিষদ, কিশোরগঞ্জ’ এর উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির সভাপতি জেলার প্রবীণ সাংবাদিক মু আ লতিফ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্দু বিভাগের অধ্যাপক, মনিরউদ্দীন ইউসুফ গবেষক ড. মুহাম্মদ গোলাম রব্বানী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন লেখক গবেষক, শান্ত মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. ইয়াসমিন আহমেদ।

সংস্কৃতিকর্মি স্বপন কুমার বর্মণ এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আলোচনায় অংশ নেন দৃশ্যপট ’৭১ কিশোরগঞ্জ-এর সভাপতি অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দীন ফারুকী, জেলা পাবলিক লাইব্রেরির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক খান রতন, মুক্তিযোদ্ধা ও লেখক রওশন আলী রুশো, ছড়াকার জাহাঙ্গীর আলম জাহান, কবিপুত্র সাঈদ আহমদ আনীস, লেখক প্রাবন্ধিক ড. হালিম দাদ খান, কিশোরগঞ্জ পৌর মহিলা কলেজের সহযোগি অধ্যাপক রওশন আরা লুৎফুন্নাহার, বিজ্ঞানকল্প লেখক ও কলামিস্ট আহমাদ ফরিদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, মনিরউদ্দীন ইউসুফ বাংলা সাহিত্যের আলোকবর্তিকা। সাহিত্যের সব শাখায় তাঁর বিচরণ ছিল। তাঁর লেখা বাংলা সাহিত্যের সম্পদ। তিনি কিশোরগঞ্জের গৌরব।

অনুষ্ঠানে সিদ্ধান্ত হয় ‘কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ স্মৃতি ও গবেষণা পরিষদ’ এর উদ্যোগে অচিরেই কবির নামে কিশোরগঞ্জে একটি ফাউন্ডেশন গড়ে তোলা হবে। কবির পরিবারের লোকজন এ ব্যাপারে সহযোগিতারও আশ্বাস দেন।

কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ ১৯১৯ সালের ১৩ই ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার জাওয়ার গ্রামের নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈত্রিক বাড়ি কিশোরগঞ্জ সদরের বৌলাই গ্রামে।

কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ একাধারে ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, সম্পাদক ও অনুবাদক। তিনি ৩৭টি গ্রন্থ রচনা/অনুবাদ করেন। পারস্যের মহাকবি ফেরদৌসীর শাহনামা বাংলায় অনুবাদ করার জন্য তাকে ‘বাংলার ফেরদৌসী’ নামে অভিহিত করা হয়।

বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য ১৯৭৮ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার এবং ১৯৯৩ সালে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রদত্ত সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদক-এ (মরণোত্তর) ভূষিত হন তিনি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর