কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আগুন নেভাতে গিয়ে যেভাবে মারা যান স্কুল শিক্ষক আলম


 স্টাফ রিপোর্টার | ২০ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ৭:২৮ | করিমগঞ্জ  


করিমগঞ্জে চাচার বাড়িতে লাগা আগুন নেভাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পাঠানপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নূর আলম (৪০) মারা যান। শুক্রবার (১৯ জুলাই) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে চাচা লাল মিয়ার বসতঘরে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লাগার পর পরই ছুটে যান নূর আলম।

এ সময় চাচার ঘরের বিদ্যুতের মেইন সুইচ নূর আলম বন্ধ করতে গেলে আগুনে বিদ্যুতের গলে যাওয়া তারে তিনি দগ্ধ হন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

করিমগঞ্জ উপজেলার কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নের গাঙ্গাইল গ্রামে ভয়াবহ এই অগ্নিকাণ্ডের সময় নিহত নূর আলম গাঙ্গাইল গ্রামের সেকান্দর আলীর ছেলে এবং স্থানীয় পাঠানপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। তাঁর মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

এদিন আগুন নেভাতে গিয়ে নারী ও শিশুসহ আরো অন্তত ৭জন আহত হয়। তারা প্রাথমিক চিকিৎসা নেয়। কিশোরগঞ্জ থেকে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনলেও চারটি ঘর এর আগেই পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, শুক্রবার (১৯ জুলাই) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে স্কুল শিক্ষক নূর আলমের চাচা লাল মিয়ার বসতঘরে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লেগে মুহুর্তেই লেলিহান শিখা হয়ে চারপাশে ছড়িয়ে পড়ে। লাল মিয়ার বসতঘরে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার থাকায় তা বিস্ফোরিত হয়ে আগুন ভয়াবহ আকার ধারণ করে।

আগুন নেভাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে স্কুল শিক্ষক নূর আলমের মৃত্যুর সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে শোকাহত মানুষ বাড়িতে ভীড় জমায়। শোকে মুহ্যমান হয়ে পড়েন পরিবারের সদস্যরা।

শনিবার (২০ জুলাই) বেলা ১১টায় গাঙ্গাইল গ্রামের বাড়ির সামনে নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

নিহত স্কুল শিক্ষক নূর আলম এর ১২ বছর এবং ৬ বছর বয়সী দুটি কন্যাসন্তান রয়েছে বলে জানা গেছে। হঠাৎ এক অজানা ঝড়ে তারা হারিয়ে ফেলেছে মাথার ওপরে থাকা পরম নির্ভরতার ছাতাটুকু।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর