কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রঙ বাহারি ফুল জবা



 ছবি ও লেখা: নূর আলম গন্ধী | ২০ অক্টোবর ২০২১, বুধবার, ১১:৩৯ | রকমারি 



জবা বাংলাদেশের সকল মানুষের কাছে অতি পরিচিত ও জনপ্রিয় ফুল। হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জের জাতীয় ফুল জবা। আদিনিবাস চীন। এর পরিবার Malvaceae, উদ্ভিদতাত্ত্বিক নাম Hibiscus rosa-sinensis। গুল্মজাতীয় বহু বর্ষজীবি ফুল গাছ এটি।

গাছ উচ্চতায় গড়ে ৬ থেকে ১০ ফুট হয়ে থাকে। এছাড়া উচ্চতা নির্ভর করে ছাঁটাই প্রক্রিয়ার উপর। প্রয়োজনে ছাঁটাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গাছের আকার-আকৃতি ছোট বড় করে রাখা যায়।

গাছ ঝোপালো আকৃতির। শাখা-প্রশাখা ও কা- মাঝারি শক্ত মানের হয়ে থাকে। পাতা গাঢ় সবুজ রঙের, কিনারা করাতের মতো খাঁজ কাটা থাকে, শিরা-উপশিরা স্পষ্ট।

ডাল কাটিং পদ্ধতির মাধ্যমে জবার বংশ বিস্তার করা হয়। নমনীয় কোমল পাঁচটি পাপড়ির সমন্বয়ে সৃষ্ট জবা ফুল। মাঝে লম্বা পরাগ অবস্থিত।

ফুল গন্ধহীন। সারা বছরব্যাপী জবার ফুল ফোটে। তবে গ্রীস্ম ও বর্ষা ঋতুতে গাছে অধিক পরিমাণে ফুল ফোটতে দেখা যায়।

জবা ফুলের আদি বা মৌলিক রঙ লাল। তবে পুষ্পবিজ্ঞানীগণ গবেষণার মাধ্যমে জবার একাধিক রঙের ফুল উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছেন। এর ফলে বর্তমান সময়ে জবা ফুলের সাদা, লাল, গোলাপি, বেগুনী, হলুদ, কমলা, মিশ্রলাল ও খয়েরী রঙের ফুল চোখে পড়ে।

জবা হিন্দু ধর্মাবলম্বী মানুষ জনের কাছে অত্যন্ত পবিত্র এক ফুল। তাই তো বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠান ও পূজা-পার্বনে তারা জবা ফুল ব্যবহার করে থাকেন। তাছাড়া কালীপূজাতে রক্তজবা ফুল অত্যাবশ্যকীয়।

উঁচু ভূমি, শুকনো মাটি ও রৌদ্রউজ্জ্বল আবহাওয়া জবা ফুল গাছ উৎপাদনে সহায়ক। সরাসরি মাটি ও টবে রোপণ উপযোগী ফুল গাছ। আমাদের দেশের বাসা-বাড়ি বাগান, ছাদ বাগান, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বাগান, পার্ক ও উদ্যানে জবা ফুল গাছ চোখে পড়ে।

জবা ফুলের রয়েছে ভেষজ গুণাগুণ। জবার ফুল, পাপড়ি ও গাছের ছাল বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় ব্যবহার হয়ে থাকে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর