কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কুলিয়ারচরের এক ইউনিয়নেই নৌকা চান ১৫ নেতা



 মুহাম্মদ শাহ্ আলম, কুলিয়ারচর | ১৬ অক্টোবর ২০২১, শনিবার, ১০:৫৮ | কুলিয়ারচর 



সারা দেশের ন্যায় কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলায়ও বইছে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের হাওয়া। উপজেলার ৬ ইউনিয়নে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের অন্ততপক্ষে অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী নৌকা পেতে দৌড়ঝাঁপ করে যাচ্ছেন।

অনেকে দৌড়ঝাঁপের পাশাপাশি শোডাউন, ব্যানার ও ফেস্টুনে নিজের শক্তি ও জনমত জানান দিয়ে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ কারার জন্য প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন।

এর মধ্যে শুধুমাত্র উপজেলার ছয়সূতী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা তদবির করে যাচ্ছেন অন্ততপক্ষে ১৫ জন সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী।

ইতোমধ্যে গত ১৪ অক্টোবর তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ২৮ নভেম্বর কুলিয়ারচর উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে রামদী ইউনিয়ন ছাড়া অবশিষ্ট ৫টি ইউনিয়ন গোবরিয়া আব্দুল্লাপুর, সালুয়া, উছমানপুর, ফরিদপুর ও ছয়সূতী ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

নির্বাচনে অংশগ্রহণকারীদের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ২ নভেম্বর। মনোনয়নপত্র যাচাই- বাছাই ৪ নভেম্বর, প্রত্যাহারের শেষ দিন ১১ নভেম্বর।

এ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে অংশগ্রহণের জন্য স্থানীয় পর্যায়ে দলীয় বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময়ের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় পর্যায়ে তদবির করে ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করেছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।

পাশাপাশি রঙিন পোষ্টার ব্যানার টানিয়ে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক এর মাধ্যমে চালাচ্ছেন প্রচারণা।

প্রার্থীদের অনেকেই ইতোমধ্যে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন এর মাধ্যমে মতবিনিময় সভা, সমাবেশ ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরছেন, করছেন মোটর শোভাযাত্রাও।

আবার অনেকে নিরবে নিবৃত্তে মনোনয়নের জন্য চেষ্টা তদবির করে যাচ্ছেন।

এই বছর ছয়সূতী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের জন্য প্রতিদ্বন্ধিতা শুরু করেছেন ১৫ জন আওয়ামী লীগ নেতা। মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে থানা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতা থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাও রয়েছেন।

ছয়সূতী ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীক পাওয়ার প্রত্যাশায় কাজ করে যাচ্ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বর্তমান চেয়ারম্যান মীর মিছবাহুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাবেক চেয়ারম্যান মো. আনিসুজ্জামান জসীম, প্রশিকা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্রের অবসরপ্রাপ্ত সহকারী পরিচালক মামুনূর রশিদ, সাবেক টি এন টি শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট, ছয়সূতী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক চারবারের সভাপতি ও বিটিসিএল এর অবসরপ্রাপ্ত সহকারী প্রকৌশলী এ এইচ এম নজরুল ইসলাম আলম, কুলিয়ারচর ডিগ্রি কলেজের ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন, নরসিংদী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি- ২ এর পরিচালক ছয়সূতী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. শফিকুল ইসলাম খাঁন, কুলিয়ারচর উপজেলা বিআরডিবি এর চেয়ারম্যান ছয়সূতী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মাহবুবুর রহমান ছোটন, সিয়াম এ্যালুমেনিয়াম ইন্ডাষ্ট্রিজ ও টিকাদারি প্রতিষ্ঠান বিথি এন্টারপ্রাইজ এর মালিক দাঁড়িয়াকান্দি- কান্দিগ্রাম ফুরকানিয়া মাদ্রাসার সভাপতি স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা মো. বদিউল আলম নাঈম, ২০০১-০২ সালের ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক ও ছয়সূতী সমাজ উন্নয়ন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. আরফানুর রহমান, ২০০৪ সালের থানা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ও আমদানি-রফতানি কারক প্রতিষ্ঠান  কিশোরগঞ্জ ইন্টারনেশনাল লিঃ ও ভিটেস প্লাস প্রাঃ লিঃ এর পরিচালক মো. উজ্জল ভূইয়া, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও ব্যবসায়ী মো. আমরুল হাসান, ঢাকা জজকোর্টের এ পি পি বিশিষ্ট হোমিও চিকিৎসক এডভোকেট মো. মুর্শিদ উদ্দিন খাঁন, তরুণ আওয়ামী লীগ নেতা বিজয় কুমার গুহ এবং আওয়ামী লীগ নেতা মুহাম্মদ শহিদুল ইসলাম হোকন।

এছাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ছয়সূতী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন লিটন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইতে পারেন, এলাকায় এমন জনশ্রুতি রয়েছে।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সবার লক্ষ্য একটাই, যেকোন ভাবে নৌকা পেতে হবে। নৌকা না পেলে নির্বাচনে আগ্রহ থাকবে না অনেক প্রার্থীরই। কোন একক দল থেকে এত বেশি আগ্রহী প্রার্থী এর আগে কখনো দেখা যায়নি বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর