কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে শোক-শ্রদ্ধায় শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলায় নিহতদের স্মরণ


 মাজহার মান্না | ৭ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার, ৩:৪৯ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানের চেকপোস্টে ২০১৬ সালের ৭ জুলাই ঈদুল ফিতরের দিনে জঙ্গি হামলায় নিহত দুই পুলিশ সদস্য জহিরুল ইসলাম ও আনসারুল হক এবং স্থানীয় গৃহবধূ ঝর্ণা রানী ভৌমিকের স্মৃৃতির প্রতি জেলা পুলিশ ও নিহতের স্বজনেরা গভীর শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

ঘটনাস্থল চরশোলাকিয়া সবুজবাগ মোড়ে নির্মিত অস্থায়ী বেদীতে মঙ্গলবার (৭ জুলাই) সকালে পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) জেলা পুলিশের কর্মকর্তাদের নিয়ে ফুল দিয়ে শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

পরে পুলিশ সুপার জঙ্গি হামলায় নিহত গৃহবধূ ঝর্ণা রাণী ভৌমিকের বাসায় গিয়ে পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলে তাদের খোঁজ খবর নেয়াসহ সহমর্মিতা প্রকাশ করেন।

এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আনোয়ার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) অনির্বাণ চৌধুরী, কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক পিপিএমসহ জেলা পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ও নিহতের স্বজনেরা উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) সাংবাদিকদের বলেন, গুলশান এবং শোলাকিয়া হামলা একই সূত্রে গাঁথা। শোলাকিয়ায় লাখো মুসুল্লিদের সমাবেশস্থলে হামলা চালানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। পুলিশ জীবন দিয়ে সে হামলা রুখে দিয়েছে।

পুলিশ সুপার আরও বলেন, এ হামলায় আহত পুলিশ সদস্যদের পরিবারের প্রতি সরকারের পক্ষ থেকে সার্বিকভাবে সহায়তা করা হচ্ছে।

এছাড়া পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) জঙ্গি হামলায় নিহত দুই পুলিশ সদস্য জহিরুল ইসলাম ও আনসারুল হক এবং স্থানীয় গৃহবধূ ঝর্ণা রানী ভৌমিকের পরিবারের সদস্যদের শুভেচ্ছা উপহার সামগ্রী প্রদান করেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৭ জুলাই শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে ঈদুল ফিতরের জামাত ও জামাতের ইমাম মুফতি ফরিদ উদ্দিন মাসউদের ওপর হামলার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে জঙ্গিরা চাপাতি, বোমা এবং পিস্তল নিয়ে হামলা চালিয়েছিল। জঙ্গিরা চাপাতি দিয়ে আনসারুল হক ও জহিরুল ইসলাম নামে দু’জন কনস্টেবলকে কুপিয়ে হত্যা করে।

খবর পেয়ে অন্য পুলিশ সদস্যরা এগিয়ে গিয়ে তাদের প্রতিরোধ করলে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র কুমিল্লার সন্তান জঙ্গি আবির রহমান (২৩) গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। এছাড়া নিজ বাসায় মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে ঝর্ণা রাণী ভৌমিক (৪০) নামে এক গৃহবধূ নিহত হয়। এ সময় আহত হন আরও ১২ পুলিশ সদস্য।

বন্দুকযুদ্ধের একপর্যায়ে র‌্যাবের হাতে বুকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় অপর জঙ্গি দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট এলাকার শফিউল ইসলাম (২২) ধরা পড়ে। শফিউল পরবর্তী সময়ে এনকাউন্টারে মারা যায়। কিশোরগঞ্জ শহরের পশ্চিম তারাপাশা এলাকার জাহিদুল হক তানিম (২৬) নামে এক যুবকও ঘটনাস্থল থেকে আটক হয়।

পুলিশ চাঞ্চল্যকর এ মামলাটির অভিযোগপত্র ২০১৮ সালের ১২ সেপ্টেম্বর আদালতে দাখিল করে। অভিযোগপত্রে মোট ২৪ জন আসামির নামাল্লেখ করা হলেও ১৯ জন আসামি দেশের বিভিন্ন স্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। ২০১৮ সালের ২৮ নভেম্বর পাঁচ আসামি জঙ্গি নেতা বড় মিজান, রাজিব গান্ধী, সোহেল মাহফুজ, আনোয়ার হোসেন ও জাহিদুল হক তানিমের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

এদিকে জঙ্গি হামলায় নিহত ঝরণা রানীর পরিবারের বিপর্যস্তভাব এখনও কাটেনি। ঝর্ণা রাণীর ছোট ছেলেটি এখনও মায়ের আদর স্নেহ খুঁজে ফেরে। নিহতের পরিবার ও স্বজনদের জোর দাবি দ্রুত বিচারের মাধ্যমে এ হামলায় জড়িতদেরকে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করার।

নিহত ঝর্ণা রানীর স্বামী গৌরাঙ্গ নাথ ভৌমিক জানান, তিনি এখনো স্ত্রী হারানোর কষ্ট নিয়ে বেঁচে আছেন। এমন যেনো আর কোনো স্বামীর ভাগ্যে না ঘটে।

নিহত ঝর্ণা রানীর ছেলে দশম শ্রেণির ছাত্র শুভ নাথ ভৌমিক জানায়, মায়ের কষ্ট তাকে তাড়িয়ে বেড়ায়। প্রায় রাতেই মাকে সে স্বপ্নে দেখে।

কিশোরগঞ্জ জজকোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক বলেন, করোনার কারণে মামলাটির কার্যক্রম আপাতত স্থগিত রয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে চাঞ্চল্যকর এ মামলাটির সাক্ষী-প্রমাণ হাজির করা হবে। সরকারের পক্ষ থেকে এ মামলার আসামিদের মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করতে চেষ্টা করা হবে বলে তিনি জানান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর