কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সেবা প্রদানের অনলাইন রিপোর্টিংয়ে নভেম্বর মাসে দেশসেরা কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৪:৪৪ | স্বাস্থ্য 


সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মাসিক এসেসমেন্টে অনলাইন রিপোর্টিংয়ে নভেম্বর মাসে সারা বাংলাদেশে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল প্রথম হয়েছে। অথচ চিকিৎসকের ৬৩টি পদের বিপরীতে দায়িত্ব পালন করছেন মাত্র ২৭ জন। ২৫০ শয্যার হাসপাতাল হলেও রেকর্ড সর্বোচ্চ ৬৫৪ জন রোগী ভর্তি থেকেছেন। বাস্তবতা হচ্ছে, বর্তমান সময়ে ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তারের সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে, বিপরীতে প্রত্যাশা দিন দিন বাড়ছে।

বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় বক্তাদের আলোচনায় এমন চিত্র ওঠে আসে।

দুপুরে হাসপাতাল সম্মেলন কক্ষে কিশোরগঞ্জ সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করে।

সনাক সভাপতি সাইফুল হক মোল্লা দুলুর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক (উপপরিচালক) ডা. সুলতানা রাজিয়া।

সভায় সিনিয়র কনসালট্যান্ট (সার্জারী) ডা. মাহবুবুর রহমান, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মাহবুবুল আলম, গাইনী কনসালট্যান্ট ডা. তাসলীম আরা নীলা, মেডিকেল অফিসার ডা. মুক্তা সুলতানা, সেবা তত্ত্বাবধায়ক মোছা. নাজবীনা খাতুন ছাড়াও সনাক সদস্য অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দীন ফারুকী, অ্যাডভোকেট মায়া ভৌমিক, মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর আব্দুল গণি, অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংকার ফিরোজ উদ্দিন ভূঞাঁ, শিক্ষক স্বপন কুমার বর্মন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সভার প্রধান অতিথি কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক (উপপরিচালক) ডা. সুলতানা রাজিয়া বলেন, বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও সকলের সহযোগিতায় হাসপাতালের সেবার মান বৃদ্ধির জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তবে শয্যা ও যোগানের তুলনায় রোগীর সংখ্যা এত বেশি যে মানসম্মত সেবা দেয়ার ইচ্ছা থাকলেও অনেক ক্ষেত্রে দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

সনাক সদস্য নাসির উদ্দিন ফারুকী স্বাগত বক্তব্যে সনাকের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পর্যবেক্ষণ ও সনাকের সুপারিশের আলোকে অগ্রগতিসমূহ এবং সেবার মান বৃদ্ধিতে আরো কিছু সুপারিশ উপস্থাপন করেন।

মতবিনিময়ের মাধ্যমে যে বিষয়গুলো উঠে আসে, হাসপাতালে প্রতিদিন একজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার বসা নিশ্চিত করা হয়েছে, ২৪ ঘন্টা মহিলা ডাক্তারের মাধ্যমে নারী রোগীর ইসিজি করার ব্যবস্থা, ডায়ালাইসিস ও কিডনী বিভাগ চালু করা হয়েছে। হাসপাতালে এখন প্রায় সব ধরণের টেস্ট সম্পন্ন হয়, প্রচুর ঔষধ বরাদ্দ রয়েছে। সুতরাং দালালের প্রলোভনে পা না দেয়ার প্রতি সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।

সভায় হাসপাতালের সকল বিভাগের কনসালট্যান্ট, নার্স প্রতিনিধি, ওয়ার্ড ব্যবস্থাপনা প্রতিনিধি, টিআইবি কর্মকর্তা, সনাক সদস্য, ইয়েস গ্রুপের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর