কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


তাড়াইলে করোনাকে জয় করলেন আরএমও ডা. বদরুল হাসান


 আমিনুল ইসলাম বাবুল, তাড়াইল | ৬ মে ২০২০, বুধবার, ৮:৫৩ | তাড়াইল  


করোনামুক্ত হলেন কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. মো. বদরুল হাসান রনি। তিনি তাড়াইল হাসপাতালে স্বাস্থ্যসেবায় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে গত ১৭ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হন।

তারপর থেকে তিনি তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আইসোলেশনে ছিলেন। সোমবার (৪ মে) রাতে চূড়ান্ত রিপোর্টে জানা যায়, তিনি এখন করোনামুক্ত।

তাঁর সুস্থতার খবরে তাড়াইলবাসী ও উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগে স্বস্তি ফিরে আসে।

দেশে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে তাড়াইলকে সংক্রমণের ঝুঁকি থেকে রক্ষা করতে কঠোর পরিশ্রম করেন ডা. মো. বদরুল হাসান রনি। স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে প্রশাসনের সাথে হাসপাতাল চত্বর ও হাসপাতালের ভিতরে সামাজিক দূরত্ব কার্যকর করতে কাজ করেছেন তিনি।

প্রবাসী কিংবা ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-গাজীপুর হতে তাড়াইল উপজেলায় কেউ আসার খবর পেলে তিনি উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য বিভাগের সহায়তা নিয়ে বাড়ি-বাড়ি খোঁজ করে প্রত্যেককে হোম কোয়ারেন্টিনে নমুনা পরীক্ষায় ‘পজেটিভ’ আসলে হাসপাতালে আইসোলেশনে এনেছেন।

সরকারের স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে তিনি সকলকে সতর্ক করেছেন। তাড়াইলে স্বাস্থ্যসেবায় স্বাস্থ্যবান্ধব কাজের কারণে তিনি ইতোমধ্যেই তাড়াইলবাসীর কাছে জনপ্রিয় ডাক্তার হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন।

সরকারি নির্দেশনা পালন করতে গিয়ে তিনি গত ১৬ এপ্রিল শারীরিক অসুস্থতা অনুভব করেন। এই দিন-ই তিনি তাঁর নমুনা পরীক্ষা করান।

পরদিন (১৭ এপ্রিল) রিপোর্ট ‘পজেটিভ’ আসে। এরপর তিনি ডাক্তারের পরামর্শে হাসপাতালে আইসোলেশনে থাকেন।

পরবর্তিতে গত ২৪ এপ্রিল ও ২৯ এপ্রিল দু’বার তার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। টানা দুইবারই তার নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।

বুধবার (৪ মে) প্রকাশিত শেষ রিপোর্টে তাঁর নেগেটিভ এলে তাঁকে মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে করোনামুক্ত ছাড়পত্র দেওয়া হয়।

তিনি বর্তমানে তাড়াইল হাসপাতাল কোয়ার্টারে তাঁর সরকারি বাসভবনে হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন। ১৪ মে পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে হোম কোয়ারেন্টিনে তিনি অবস্থান করবেন।

এ বিষয়ে ডা. মো. বদরুল হাসান রনি ‘কিশোরগঞ্জ নিউজকে’ জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেও আমি আতঙ্কিত বা চিন্তিত হইনি। কারণ- আমার শরীরে করোনার তেমন কোনো লক্ষণ ছিল না।

প্রথমে করোনায় আক্রান্তের খবরে কিছুটা ভয় পেলেও মনোবল শক্ত ছিল আমার। পরে চিকিৎসকগণের পরামর্শ অনুযায়ী তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে ওষুধ সেবন করেছি এবং সব নিয়মকানুন মেনে চলেছি।

তিনি আরও বলেন, আমি একজন চিকিৎসক হয়েও ২০ দিন আইসোলেশন বন্দি হয়ে অস্বস্তিতে ছিলাম। বই আর পত্রিকা পড়ে এবং নেট দুনিয়ায় সময় নিয়ে সময়টা পার করেছি। আশা করছি আগামী ১৪ তারিখের পর ১৫ মে’র মধ্যেই আবার স্বাস্থ্যসেবায় ফিরতে পারবো ইনশাআল্লাহ।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আলমাছ হোসেন জানান, তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ৮ জন চিকিৎসক এবং ১০ জন নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীর করোনাভাইরাসে শনাক্ত হয়ে ছিল। এতে আমি ছাড়াও সিভিল সার্জন স্যার নিজেও আতঙ্কিত ছিলেন।

তাড়াইলের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ জনপদে করোনার সময়ে অনেক কাজ করতে হয়। ডা. মো. বদরুল হাসান এর করোনামুক্ত হওয়ার খবরে আমিও স্বস্তি পেলাম।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর