কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


তাড়াইলে করোনা জয় করে বাড়ি ফিরলেন ৯ জন, ফুলেল শুভেচ্ছা


 আমিনুল ইসলাম বাবুল, তাড়াইল | ৫ মে ২০২০, মঙ্গলবার, ৯:০১ | তাড়াইল  


কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার করোনায় আক্রান্ত নয়জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। ১৪ দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন থাকার পর মঙ্গলবার (৫ মে) দুপুরে তাঁদেরকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়।

করোনার সাথে যুদ্ধ করে জয়ীরা হলেন, তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. বদরুল হাসান রনি, সহকারী সার্জন ডা. জাহাঙ্গীর আলম, সিনিয়র স্টাফ নার্স রায়হানা ইয়াসমিন, সিনিয়র স্টাফ নার্স আফরিনা বেগম, প্রধান সহকারী কাম হিসাব রক্ষক আদিলুজ্জামান, সিনিয়র স্টাফ নার্স শামীমা নাসরিন, স্যাকমো নাহিদা জাফরিন, ল্যাব এ্যাটেনডেন্ট দিলীপ কুমার এবং হাসপাতাল কোয়ার্টারের সাবু নিয়োগীর স্ত্রী হোসনা।

ছাড়পত্র দেওয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন, তাড়াইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. তারেক মাহমুদ, ঘাটাইল সেনানিবাসের মেজর ইমরান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আলমাছ হোসেন, তাড়াইল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মুজিবুর রহমান, সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম বাবুল, উপজেলা নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক মো. আবদুর রউফ তালুকদার প্রমুখ।

স্থানীয় সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মো. মুজিবুল হক চুন্নু এর পক্ষ থেকে ২ জন ডাক্তারসহ অন্যান্যদের সবাইকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়।

ঘাটাইল সেনানিবাসের এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল মিজানুর রহমান শামীম এর পক্ষে মেজর ইমরান উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. তারেক মাহমুদ ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আলমাছ হোসেনের নিকট উপহার তুলে দেন।

এ সময় উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আলমাছ হোসেন ‘কিশোরগঞ্জ নিউজ’ কে বলেন, যাঁদেরকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে তাঁরা এখন সবাই সুস্থ। হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়ার পর তাদের নিজ-নিজ বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, গত ১৫ এপ্রিল উপজেলায় প্রথম করোনা শনাক্ত ধরা পড়ে। ৪ মে পর্যন্ত জেলায় মোট ২৮ জন করোনা ভাইরাস আক্রান্তের মধ্যে এ পর্যন্ত ১৫ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

দু’একদিনের মধ্যে আরো কয়েকজন ছাড়পত্র পাওয়ার অপেক্ষায় আছেন বলে জানিয়েছেন তাড়াইল উপজেলার স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আলমাছ হোসেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর