কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ইটনায় চুরির কথিত অভিযোগে ৭ম শ্রেণির ছাত্রকে নির্যাতন, নির্যাতনকারী গ্রেপ্তার


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৯ মার্চ ২০২০, রবিবার, ৩:১৮ | ইটনা  


কিশোরগঞ্জের ইটনায় চুরির কথিত অভিযোগে আনছির নূর আলম (১৪) নামে ৭ম শ্রেণির এক ছাত্রকে বেঁধে মধ্যযুগীয় নির্যাতনের ঘটনায় নির্যাতনকারী তফসির মিয়া (৪০) কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার (২৯ মার্চ) দুপুরে উপজেলার এলংজুড়ি বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

নির্যাতনকারী তফসির মিয়া উপজেলার এলংজুড়ি ইউনিয়নের ছিলনী পাথারহাটি গ্রামের হাজী লোকমান মিয়া ওরফে লেচু মিয়ার ছেলে।

অন্যদিকে নির্যাতনের শিকার আনছির নূর আলম পার্শ্ববর্তী ছিলনী বড়হাটি গ্রামের মো. মজিবুর রহমানের ছেলে এবং ইটনা সদরের মহেশ চন্দ্র সরকারি মডেল শিক্ষা নিকেতনের ৭ম শ্রেণির ‘খ’ শাখার ছাত্র।

নির্যাতিত শিশুটির পিতা মো. মজিবুর রহমান জানান, গত বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে তার ছেলে আনছির নূর আলম বাড়ির পাশে তফসির মিয়ার ফার্মেসী দোকানের সামনে খেলা করছিল। এক পর্যায়ে তার হাত থেকে দুই টাকার একটি কয়েন দোকানের ভেতরে পড়ে যায়। আনছির নূর আলম ফার্মেসী দোকানের ভেতরে ঢুকে কয়েনটি খুঁজে বের করার চেষ্টা করছিল।

মো. মজিবুর রহমান অভিযোগ করেন, তার ছেলে দোকানে কয়েন খুঁজতে গেলে তফসির মিয়া তাকে আটক করে। দোকান থেকে টাকা চুরি করেছে এমন অভিযোগ করে তফসির মিয়া তার ছেলের হাত-পাঁ বেঁধে বেধড়ক মারপিট শুরু করে।

এ সময় আনছির নূর আলম বার বার আকুতি জানিয়েও নির্যাতন থেকে রেহাই পায়নি। বেধড়ক মারপিটে শিশুটির শরীরের বিভিন্ন অংশ ক্ষতবিক্ষত হয়।

খবর পেয়ে শিশুটির পিতা মো. মজিবুর রহমান ঘটনাস্থলে গেলে তাকেও গালিগালাজ ও হুমকি দেয় তফসির মিয়া। পরে মজিবুর রহমান কাকুতি-মিনতি করে ছেলেকে ছাড়িয়ে বাড়ি নিয়ে যান।

পরদিন শুক্রবার (২৭ মার্চ) শিশুটিকে আহত অবস্থায় ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

রোববার (২৯ মার্চ) সকালে এ ব্যাপারে নির্যাতিত শিশুটির পিতা মো. মজিবুর রহমান বাদী হয়ে নির্যাতনকারী তফসির মিয়াকে আসামি করে ইটনা থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর পরই নির্যাতনকারী তফসির মিয়াকে ধরতে অভিযানে নামে পুলিশ। অভিযানে দুপুর দেড়টার দিকে এলংজুড়ি বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ইটনা থানার ওসি মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান বিপিএম বলেন, শিশু নির্যাতনের বিষয়ে অভিযোগ পাওয়া মাত্রই আমরা বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে অভিযুক্তকে ধরতে অভিযান পরিচালনা করি এবং অভিযুক্ত তফসির মিয়াকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হই। এ ব্যাপারে পরবর্তি আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর