কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে দৈনিক চাহিদা ৩ সহস্রাধিক, আসন মাত্র ৪শ’, অর্ধেক অনলাইনে, ট্রেনযাত্রায় দুর্ভোগ


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৬ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার, ১:০১ | ভৈরব 


সকাল সাড়ে আটটায় কিশোরগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী এগারোসিন্দুর প্রভাতির যাত্রী ৪ শতাধিক। অথচ ভৈরবে আসন বরাদ্ধ মাত্র ৪৩টি। কিন্তু বরাদ্ধের অর্ধেক চলে যায় আবার অনলাইনে। ফলে স্টেশনে রেলের টিকিট যেন ‘সোনার হরিণ’।

শুধু তাই নয়, এসব টিকিট আবার ভৈরবের বাইরে অন্য কোনো রেলওয়ে স্টেশনে কেটে নেয় কেউ না কেউ। ফলে দশ দিন আগে স্টেশনে এসে লাইনে দাঁড়িয়েও মিলে না কাঙ্ক্ষিত টিকিট। তাই বাধ্য হয়ে স্ট্যান্ডিং টিকিট কেটে সীমাহীন দুর্ভোগ মাথায় নিয়ে গন্তব্যে যান হাজার হাজার যাত্রী। একই চিত্র একাধিক আন্তঃনগর ট্রেন যাত্রীদের।

রেলওয়ে স্টেশন সূত্র মতে, ভৈরব রেলওয়ে জংশন দিয়ে প্রতিদিন ২৪টি ট্রেন দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে যাতায়াত করে। নৌ এবং সড়ক পথের অবাদ যোগাযোগের কারণে ভৈরবের পাশের জেলা ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও নরসিংদীর বেশ কয়েকটি উপজেলাসহ হাওরাঞ্চলের ৩ হাজারেরও অধিক যাত্রীরা এই ভৈরব রেলওয়ে স্টেশন দিয়ে যাতায়াত করে থাকেন।

ফলে প্রতিদিন প্রায় সাড়ে ৩ থেকে ৪ লাখ টাকার টিকিট বিক্রির মাধ্যমে সরকারের বিপুল পরিমাণে রাজস্ব আদায় হয়। আর মাসে এক কোটি টাকার উপরে।

ফলে ট্রেনের রাজধানী কমলাপুর ও বিমানবন্দর স্টেশনের পরেই ভৈরব রেলওয়ে স্টেশন থেকে সর্বোচ্চ রাজস্ব আদায় হয়। আর ঢাকা বিভাগে ৩য় এবং সারা দেশে ৪র্থ অবস্থানে রয়েছে স্টেশনটি।

এরপরও স্টেশনটি আধুনিকায়ন বা সংস্কারের অভাবে যাত্রী সেবার মান নেমেছে তলানীতে। তাই এই পথের হাজার হাজার ট্রেন যাত্রীদের দাবী দ্রুত ট্রেনের আসন বৃদ্ধি, সকল ট্রেনের যাত্রা বিরতি এবং স্টেশনটি আধুনিকায়ন বা সংস্কারের উদ্যোগ নেবে সরকারের রেলওয়ে বিভাগ। তা-না হলে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে ডাবল লাইনের সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন যাত্রীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিদিন চট্টগ্রাম-ঢাকা, ঢাকা-সিলেট, কিশোরগঞ্জ-ঢাকা ও চট্টগ্রাম-ময়মনসিংহ এই পথে ২৪টি ট্রেন দিনে-রাতে ৪৮ বার যাতায়াত করে থাকে। এরমধ্যে ১১টি আন্তঃনগর ও ১৩টি মেইল এবং লোকাল ট্রেন রয়েছে। এছাড়া আন্তঃনগর সোনার বাংলা, সুর্বণা, জয়ন্তিকা, উপকূল ও সিলেটগামী কালনী ট্রেনের যাত্রা বিরতি নেই।

এছাড়া ঢাকাগামী কালনী ট্রেনের যাত্রা বিরতি থাকলেও মাত্র ৫টি আসন বরাদ্ধ রয়েছে। ফলে ৫টি আসনের বিপরীতে যাত্রীর সংখ্যা প্রায় ৫শ’। ঢাকাগামী চট্টলা ট্রেনের ৮০টি আসনের বিপরীতে যাত্রীর সংখ্যা ২ শতাধিক, এগারোসিন্ধুর গোধুলী ট্রেনের ৪৩টি আসনের বিপরীতে যাত্রীর সংখ্যা ৩ শতাধিক।

কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনের ৪০টি আসনের বিপরীতে যাত্রীর সংখ্যা রয়েছে ২ শতাধিক এবং মহানগর এক্সপ্রেস ট্রেনের ৫০টি আসনের বিপরীতে যাত্রীর সংখ্যা ২ শতাধিক।

মহানগর গোধুলী ট্রেনের ৫০টি আসনের বিপরীতে যাত্রী রয়েছে ৩ শতাধিক। উপবন ট্রেনের ২০টি আসন ও নিশিতা ট্রেনের ২০টি আসনের বিপরীতে যাত্রীর সংখ্যা রয়েছে শতাধিক। অর্থাৎ আসন বরাদ্ধে তুলনায় যাত্রীর চাহিদা সাড়ে সাতগুণ।

সরেজমিনে স্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, ঢাকাগামী ট্রেনের টিকিটের জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে রয়েছেন অর্ধশতাধিক যাত্রী। দীর্ঘ লাইন শেষে কাউন্টারে যাবার পর জানানো হয় ট্রেনের আসন নেই। চাইলে স্ট্যান্ডিং টিকিট নিতে পারেন।

তাই হতাশ হয়ে মিজান নামে এক ট্রেন যাত্রী আক্ষেপ করে বলেন, সরকার কম সময়ে নির্দিষ্ট গন্তব্যে যাতায়াত করতে এবং নিরাপদ রেল ভ্রমণের জন্য কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে ডাবল লাইন বাস্তবায়ন করেছেন ঠিকই। কিন্তু ট্রেনে আসন না পেলে সেবার বদলে যাত্রীদের ভোগান্তির যেন শেষ নেই।

মিজানসহ কয়েকজন যাত্রীর মতে, শুধু রেল লাইন কিংবা স্টেশন উন্নয়ন করলেই হবে না, সেই সঙ্গে যাত্রী সেবার মান বাড়াতে হলে ট্রেনের বগি ও আসন বৃদ্ধি করতে হবে।

এসময় অপেক্ষমান ভৈরব চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী মো. মোশাররফ হোসেন চাপা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গেল কয়েক বছর ধরে দশ দিন আগে এসেও প্রথম শ্রেণির একটি টিকিটও কাটতে পারেনি। আর জরুরী প্রয়োজনে আগের দিন ঢাকা কিংবা চট্টগ্রামে যেতে হলে টিকিট পাবো বলে কল্পনাই করা যায় না।

তার মতে এ গ্রেডের একটি স্টেশন এমন হতে পারে না। আবার কেউ কেউ স্টেশনের যাত্রীর সেবা মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেন। ক্ষোভ প্রকাশ করে তারা বলেন, অপক্ষেমান যাত্রীদের জন্য পর্যাপ্ত বেঞ্চের অভাব, পারাপারে পুরনো ওভার ব্রীজ, এমন কি পাবলিক টয়লেট নিয়ে নানা সমস্যা রয়েছে। শুধু তাই নয়, রেলওয়ে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর দায়িত্বে অবহেলার কারণে প্রায়ই প্লাটফর্মে চুরি-ছিনতাই হয় বলেও অভিযোগ যাত্রীদের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্র জানায়, স্টেশনে আসন বৃদ্ধি করতে হলে বগি বা কোচ বাড়াতে হবে। নতুবা আসন বৃদ্ধি সম্ভব হবে না। এ জন্য নাগরিক আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ভৈরব রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার এ কে এম কামরুজ্জামান এ প্রতিবেদককে জানান, এ গ্রেডের স্টেশনে আসনের তুলনায় বহুগুণে যাত্রীরা চলাচল করছে। ফলে এই স্টেশন থেকে স্ট্যান্ডিং টিকিট বিক্রির মাধ্যমে বিপুল অঙ্কের রাজস্ব আদায় হয়।

এছাড়া আমরা যাত্রীদের চাহিদার কথা বিবেচনা করে আসন বৃদ্ধির বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর