কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আগানগর ইউপি সচিবের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:৫১ | ভৈরব 


ভৈরব উপজেলার আগানগর ইউপি সচিব মো. মনিরুজ্জামানের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়ম, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আগানগর ইউপি চেয়ারম্যান মমতাজ উদ্দিনের সরলতার সুযোগে দীর্ঘদিন ধরে অভিযুক্ত ইউপি সচিব বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি করে যাচ্ছে।

সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে ইউপি সচিব মো. মনিরুজ্জামানের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পরিষদের ৯ জন ইউপি সদস্য লিখিত অভিযোগ করেছেন। গত ৩০ সেপ্টেম্বর কিশোরগঞ্জের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক (ডিডিএলজি) বরাবর এই অভিযোগ করা হয়েছে।

আগানগর ইউপি সচিব মো. মনিরুজ্জামানের বিরুদ্ধে পাওয়া বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির সংযুক্ত কপিসহ লিখিত অভিযোগ করেন আগানগর ইউপি সদস্য মুছা মিয়া, ইউপি সদস্য দানিছ মিয়া, ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলম, ইউপি সদস্য আবু কালাম, ইউপি সদস্য বিল্লাল হোসেন, ফারুক সিকদার, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য কুলসুম বেগম, নাজমা বেগম ও বিলকিস আক্তার।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, আগানগর ইউপি চেয়ারম্যান একজন বয়ঃবৃদ্ধ সহজ-সরল ব্যক্তি, তাই তাঁর সরলতার সুযোগ নিয়ে ইউপি সচিব মনিরুজ্জামান পরিষদে ব্যাপক আর্থিক অনিয়ম ও দুর্নীতি চালিয়ে যাচ্ছে। তাঁর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে কমবয়সী নাবালিকা মেয়েদের বয়স বাড়িয়ে অনৈতিকভাবে জন্ম সনদ দেয়ার মাধ্যমে বাল্য বিবাহকে উৎসাহ প্রদান, চেয়ারম্যান মমতাজ উদ্দিনের স্বাক্ষর জাল করে ২০১৮ সালের নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসের ২০৮টি ভিজিডি কার্ডের চাল উত্তোলনের মাধ্যমে আত্মসাত, ২০১৬ সাল থেকে অদ্যাবধি পরিষদের এক পার্সেন্ট বরাদ্ধকৃত টাকা খরচের হিসেবে দিতে সচিবের গড়িমসি, ইউপি পরিষদ কর্তৃক আদায়কৃত ট্যাক্স, ট্রেড লাইসেন্সের নির্ধারিত টাকা ব্যাংকে জমা না দেয়া, জন্মনিবন্ধন ও মৃত্যুনিবন্ধনের টাকা সংশ্লিষ্ট কোডে জমা না দেয়া, ইউপি সদস্যদের ১২ মাসের সম্মানী ভাতার ৩ মাস প্রদান করে বাকী ৯ মাসের ভাতা বিভিন্ন অজুহাতে আত্মসাতসহ ইউপি সদস্যদের সাথে চরম দুর্ব্যবহার করার অভিযোগ করা হয়।

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক, ভৈরব উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ভৈরব প্রেসক্লাবে এই অভিযোগের লিখিত অনুলিপি দেয়া হয়েছে।

অভিযুক্ত ইউপি সচিব মো. মনিরুজ্জামান বলেন, লিখিত অভিযোগে যে সকল অভিযোগ আনা হয়েছে আমার বিরুদ্ধে তা আদৌ সত্য নয় বলে জানান।

তিনি বলেন, পরিষদের কিছু ইউপি সদস্য ঈর্ষান্বিত হয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে। আমার বিরুদ্ধে ইউপি চেয়ারম্যানের কোন অভিযোগ নেই। ভিজিডি কার্ডের চাল বিতরণ করা হয়েছে আরো ১০ মাস আগে। এসব ভিজিডি কার্ডের ডিও থাকে চেয়ারম্যানের নামে। কোন সুযোগই নেই চাল আত্মসাত করার।

তবে আগানগর ইউনিয়নের টুকচানপুর গ্রামের নবী হোসেন নামে এক যুবক ভিজিডি কার্ডের চাল বিতরণে সাহায্য করত। সে ভিজিডি কার্ড গুলো চুরি করে নিয়ে যাওয়ায় মূলত এ অভিযোগটা করতে পারছে। তিনি বলেন, তদন্ত করলে অভিযোগগুলো সত্য কি মিথ্যা সবই জানতে পারবেন।

ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা বলেন, এ বিষয়ে আমি ডাক ফাইলে অভিযোগের একটি অনুলিপি পেয়েছি। এবিষয়ে জেলা থেকে আমাকে অবগত করা হলে, তাছাড়া আমি যেহেতু অনুলিপি পেয়েছে এর সুষ্ঠু তদন্ত করে সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর