কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের পত্রপত্রিকা


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ৬ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ১০:৩৭ | সাহিত্য 


১৯৮৪ সালে জেলায় উন্নীত হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ জনপদটি বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলার একটি মহকুমা হিসেবে পরিচিত ছিল। শিল্প-সংস্কৃতির দিক থেকে সমগ্র ময়মনসিংহের মধ্যে কিশোরগঞ্জ ছিল বরাবরই সমৃদ্ধ ও স্বয়ংসম্পূর্ণ। তবে পত্রপত্রিকা প্রকাশনায় কিশোরগঞ্জের অগ্রযাত্রা খুব বেশিদিন আগের নয়। এখানে সর্বপ্রথম পত্রিকা প্রকাশ পায় গত শতকের প্রথমার্ধে আনুমানিক ১৯০৪ অথবা ১৯০৫ সালের দিকে। কিশোরগঞ্জে পত্রিকা প্রকাশনার ধারাবাহিক ইতিবৃত্ত তুলে ধরা হলো।

সাপ্তাহিক আর্যগৌরব: ১৯০৪ সালের দিকে বৃহত্তর ময়মনসিংহের মধ্যে মাত্র ৭টি মুদ্রণযন্ত্র ছিল। ৭টির মধ্যে একটি ছিল কিশোরগঞ্জে; নাম আর্যযন্ত্র। এই আর্যযন্ত্র প্রেস থেকেই কিশোরগঞ্জের প্রথম পত্রিকা ‘আর্যগৌরব’ প্রকাশ পেয়েছিল বলে অনুমান করা হয়। এর সম্পাদক ছিলেন গাঙ্গাটিয়ার জমিদার, সমাজসেবক ও আইনজীবী গিরীশ চন্দ্র চক্রবর্তী। পত্রিকাটি কতদিন টিকে ছিল সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলা যায় না।

কিশোরগঞ্জ বার্তাবহ: গাঙ্গাটিয়ার জমিদার গিরীশ চন্দ্র চক্রবর্তীর সম্পাদনায় ১৯২৪ সালের দিকে কিশোরগঞ্জ বার্তাবহ পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৯১৩ সালে নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পর ১৯২৬ সালে পূর্ববঙ্গ সফরে এসেছিলেন। ময়মনসিংহ থেকে তিনি আঠারোবাড়ি হয়ে ট্রেনে কুমিল্লার উদ্দেশ্যে (মতান্তরে আগরতলার উদ্দেশ্যে) রওয়ানা হয়েছিলেন। পথে গৌরীপুর, ঈশ্বরগঞ্জ, নীলগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও গচিহাটা স্টেশনে হাজারো জনতা কবিগুরুকে স্বতঃস্ফূর্ত অভ্যর্থনা জানিয়েছিল।

দিনটি ছিল ১৯২৬ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি। কিশোরগঞ্জ রেলস্টেশনে বিপুল সংখ্যক জনতা কবিকে ফুলের মালা, ফুলের তোড়া প্রদানসহ কবির ওপর ফুলের পাঁপড়ি ছিটিয়ে দিয়েছিল। সেদিন কবির উদ্দেশ্যে প্রশস্তিমূলক যে অভিনন্দনপত্রটি পাঠ করে কবির হাতে অর্পণ করা হয়, সেটি পরে কিশোরগঞ্জ বার্তাবহ পত্রিকায় ছাপা হয়েছিল। পত্রিকাটি ডিমাই কাগজে ১/৪ সাইজে ৮ পৃষ্ঠায় ছাপা হতে। মূল্য ছিল মাত্র এক আনা। তিন থেকে সাড়ে তিন বছর এ পত্রিকা টিকেছিল।

উর্দু মাসিক আখতার: কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলাধীন বৌলাই জমিদার পরিবারের সাহিত্যানুরাগী উর্দু কবি মাহবুবুর রব খালেদ (খালেদ বাঙ্গালী) নিজের সম্পাদনায় ১৯২৬ সালে এই উর্দু পত্রিকার প্রকাশনা শুরু করেন। পত্রিকাটি বেশ কয়েক বছর টিকে ছিল।

সাপ্তাহিক কৃষক বিলাপ: গত শতকের পঞ্চাশের দশকে সাপ্তাহিক কৃষক বিলাপ পত্রিকাটি প্রকাশ পেত। এর সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন শেরেবাংলা একে ফজলুল হকের স্নেহধন্য ও ঘনিষ্ঠ সহযোগী তাড়াইল উপজেলাধীন বান্দুলদিয়া গ্রামের বিশিষ্ট রাজনীতিক ও এমএলএ শাহ্ মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ। কৃষক বিলাপ পত্রিকায় অবহেলিত কৃষকশ্রেণির বঞ্চনার কথা এবং তাদের বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরা হতো।

সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ বার্তা: কিশোরগঞ্জ মহকুমা মাল্টিপারপাস সোসাইটির পৃষ্ঠপোষকতায় ১৯৪৬ সালে এ পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ছিলেন বিশিষ্ট কবি আজহারুল ইসলাম।  মাল্টিপারপাস সোসাইটির বিভিন্ন কল্যাণমূলক কর্মকা-ের খবরাখবর এ পত্রিকায় প্রকাশ পেত। ডিমাই ১/৪ সাইজের এ পত্রিকাটির আয়ুষ্কাল ছিল মাত্র ছয় মাস।

কিশোরগঞ্জ বুলেটিন: সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ বার্তা বন্ধ হওয়ার পর এর উত্তরসূরী হিসেবে কিশোরগঞ্জ বুলেটিন নামক পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। পত্রিকাটির সম্পাদক কে ছিলেন কিংবা এটি কতদিন স্থায়ী হয়েছিল সে বিষয়ে সঠিক কানো তথ্য পাওয়া যায় না।

পাক্ষিক নতুনপত্র: ১৯৬২ সালের ১৪ আগস্ট মহকুমা প্রশাসক এম এ সায়ীদের সক্রিয় চেষ্টায় পাক্ষিক নতুনপত্রের প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ছিলেন স্থানীয় গুরুদয়াল কলেজের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক জিয়াউদ্দীন আহমদ। এটি মূলত সামরিক শাসক আইয়ূব খানের তথাকথিত মৌলিক গণতন্ত্রীদের পত্রিকা হিসেবে প্রকাশ পেয়েছিল। প্রথমে ডিমাই সাইজে ৮ পৃষ্ঠায় প্রকাশ পেত। পরে ১৯৬৩ সালে ডিমাই ১/৪ সাইজে ম্যাগাজিন হিসেবে প্রকাশ পায়। কিছুদিন পর আবারও পূর্বের আকৃতিতে অর্থাৎ পত্রিকা সাইজে প্রকাশ পেতে থাকে। অধ্যাপক জিয়াউদ্দীন আহমদের পর কবি খলিলুর রহমান সম্পাদকের দায়িত্ব পান। ১৯৬৬-৬৭ সালের দিকে পত্রিকাটি মাসিক হিসেবে প্রকাশ পেতে শুরু করে। তখন সম্পাদক হন মহকুমা তথ্য অফিসার গোলাম ছারোয়ার। সম্পাদনা পরিষদের সভাপতি ছিলেন মহকুমা প্রশাসক এস এ বারী ইপিসিএস। নতুনপত্র নামক নিজস্ব প্রেসে পত্রিকাটি মুদ্রিত হতো। এ পত্রিকায় মূলত আইয়ুব খানের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের বিবরণই বেশি প্রকাশ পেত।

সাপ্তাহিক কাণ্ডারী: বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর ১৯৭২-৭৩ সালের দিকে এ পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ছিলেন এডভোকেট সাইফুল হক সেলিম। ট্যাবলয়েড সাইজের এ পত্রিকায় জাতীয় ও স্থানীয় সংবাদ, ক্রীড়া, বিনোদন ও সাহিত্য বিষয়ক রচনা প্রকাশ পেত। পত্রিকাটি খুব বেশিদিন স্থায়ী হয়নি।

সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ বার্তা: ১৯৭৪-৭৫ সালের দিকে এ পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। কে সম্পাদক ছিলেন তার কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায় না। তবে মহকুমা প্রশাসনের চৌকস ম্যাজিস্ট্রেট নাসিরউদ্দিন এ পত্রিকা প্রকাশের পেছনে মূল অনুঘটক ছিলেন এবং তিনিই সম্পাদক ছিলেন বলে অনুমান করা হয়। অনিয়মিতভাবে কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশের পর পত্রিকাটি আর টিকে থাকেনি।

পাক্ষিক নরসুন্দা: সরকারি অনুমোদন নিয়ে মু. আ. লতিফের সম্পাদনায় ১৯৮১ সালের ১ ডিসেম্বর এ পত্রিকার প্রথম সংখ্যা প্রকাশ পায়। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে বছর দেড়েক পর্যন্ত পত্রিকার প্রকাশনা অব্যাহত ছিল। দীর্ঘ বিরতির পর ১৯৯১ সালে সাপ্তাহিক হিসেবে আবারও পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়ে পুনরায় বন্ধ হয়ে যায়। ২০০৪ সালে আবার প্রকাশনা শুরু হলেও শেষ পর্যন্ত টিকে থাকেনি।

পাক্ষিক নতুন দেশ: ১৯৮১ সালে কিশোরগঞ্জ থেকে পত্রিকাটির ৭টি সংখ্যা প্রকাশ পায়। বাম রাজনীতিক একেএম শামসুল হক রেনু ছিলেন এ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক। পত্রিকাটি পরে আর টিকে থাকেনি।

মাসিক বাজিতপুর বার্তা: ১৯৮৪ সালে বাজিতপর থানা সদর থেকে এ পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। সরকারি অনুমোদনহীন ট্যাবলয়েড সাইজের এ পত্রিকার মোট ৫টি সংখ্যা প্রকাশ পায়। সম্পাদক ছিলেন আনোয়ারুল ইসলাম।

পাক্ষিক গ্রামবাংলা: ১৯৮৫ সালের ১৪ এপ্রিল ভৈরব প্রেসক্লাবের উদ্যোগে পাক্ষিক গ্রামবাংলা প্রকাশ পেতে শুরু করে। সম্পাদক ছিলেন সাংবাদিক বশীর আহমদ। দু’বছর নিয়মিত প্রকাশের পর বন্ধ হয়ে যায়। তারপর আবারও কিছুদিন প্রকাশ পেয়ে ১৯৯৪ সালে একেবারে বন্ধ হয়ে যায়।

পাক্ষিক ভাটির দর্পন: গত শতকের আশির দশকে কুলিয়ারচর উপজেলা থেকে পত্রিকাটি প্রকাশ হতে শুরু করে। সম্পাদক ছিলেন মোঃ জিল্লুর রহমান। কিছুদিন চলার পর মূলত আর্থিক সঙ্কটে পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায়।

সাপ্তাহিক শুরূক: ১৮৮৬ সালের ১৫ অক্টোবর সঙ্কলন হিসেবে শুরূকের যাত্রা শুরু হয়। সম্পাদক ছিলেন মুহাঃ ফজলুর রহমান। এরপর ৫ম হতে ৮ম সংখ্যা পর্যন্ত সম্পাদক ছিলেন মোঃ শাহ্ আলম। ৯ম হতে ১৬তম সংখ্যা প্রকাশ পায় রুহুল কুদ্দুস সেলিমের সম্পাদনায়। অতঃপর ১৯৯১ সালে সরকারি অনুমোদন নিয়ে সাপ্তাহিক হিসেবে পত্রিকাটি আত্মপ্রকাশ করে। এ সময় ধারাবহিকভাবে সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন রুহুল কুদ্দুস সেলিম, মাওলানা আবু সাঈদ সেকান্দরনগরী ও অধ্যক্ষ মোঃ গোলাম রব্বানী। প্রকাশক ছিলেন বেগম সাজারাতুন রহমান। এখনও মাঝে-মধ্যে পত্রিকাটি ট্যাবলয়েড আকারে প্রকাশ পেয়ে থাকে।

সাপ্তাহিক দূরবীণ: ১৯৮৬-৮৭ সালের দিকে সরকারি অনুমোদন ছাড়া এ পত্রিকার পরীক্ষামূলক কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশ পায়। সম্পাদক ছিলেন ফজলুল করিম খান চৌধুরী। কিছুদিন চলার পর পত্রিকাটি আর টিকে থাকেনি।

সাপ্তাহিক তৃতীয় কণ্ঠ: ১৯৮৯ সালে ভৈরব থেকে এ পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ছিলেন খন্দকার কামরুজ্জামান কাজল। ট্যাবলয়েড সাইজে পত্রিকাটি প্রকাশ পেত। তবে এ পত্রিকার প্রকাশনা খুব বেশিদিন স্থায়ী হয়নি।

সাপ্তাহিক জনবার্তা: অধ্যক্ষ জালাল আহমদের সম্পাদনায় ১৯৯১-৯২ সালের দিকে কিশোরগঞ্জ শহর থেকে এ পত্রিকার যাত্রা সূচিত হয়। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে পত্রিকাটি প্রকাশ পেত। কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশের পর পত্রিকাটি বন্ধ হয়ে যায়।

সাপ্তাহিক প্রকাশ: কিশোরগঞ্জ শহরের গৌরাঙ্গবাজারে অবস্থিত খেলাঘর প্রেসের মালিক মোঃ ওমর ফারুক ছিলেন সাপ্তাহিক প্রকাশ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক। তিনি ট্যাবলয়েড সাইজে এ পত্রিকার কয়েকটি পরীক্ষামূলক সংখ্যা প্রকাশ করেছিলেন। এরপর পত্রিকাটি আর প্রকাশ পায়নি।

সাপ্তাহিক কথাবার্তা: কিশোরগঞ্জ শহরের কথাকলি প্রেস থেকে (পৌর মার্কেট) ১৯৯২ সালে সাপ্তাহিক কথাবার্তা পত্রিকার পরীক্ষামূলক সংখ্যা প্রকাশ পায়। সম্পাদক ছিলেন মোঃ দেলোয়ার হোসেন। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে মাত্র ৩/৪টি সংখ্যা প্রকাশের পর এটি আর আলোর মুখ দেখেনি।

সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ বার্তা: ১৯৯১ সালের ৩ মে সরকারি অনুমোদন নিয়ে শহরের আখড়াবাজার থেকে পূর্ণাঙ্গ জাতীয় পত্রিকার অবয়ব নিয়ে সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ বার্তার প্রকাশনা শুরু হয়। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ব্রডশীটে পত্রিকাটি প্রকাশ পেত। সম্পাদক ছিলেন কাজী শাহীন খান। পত্রিকাটি মোট ৪ পৃষ্ঠায় বছরখানেক ধরে প্রকাশিত হয়। পত্রিকার সম্পাদক একটি দৈনিক পত্রিকার ছাড়পত্র পাওয়ার পর এই সাপ্তাহিকটি বন্ধ করে দেন।

সাপ্তাহিক পরিক্রমা: ১৯৯১ সালে সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে পত্রিকাটি প্রকাশিত হয়। সম্পাদক ছিলেন সাংবাদিক মোঃ সাইদুজ্জামান। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে বছরখানেক নিয়মিত প্রকাশিত হয়। পরে আর পত্রিকাটি টিকে থাকেনি।

সাপ্তাহিক মণিহার: ১৯৯১ সালের ২৮ এপ্রিল সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে এই সাপ্তাহিকটির পথচলা শুরু হয়। শহরের কিশোর অফসেট প্রিন্টার্স থেকে মুদ্রিত হতো। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন বদরুল আনাম। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে  ৮ পৃষ্ঠায় নিয়মিত প্রকাশিত হয়। বছরখানেক অব্যাহত থাকার পর পত্রিকাটি পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়।

সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ সংবাদ: ১৯৯১ সালের মাঝামাঝি সময়ে ফজলুল করিম খান চৌধুরী নিজের সম্পাদনায় পত্রিকাটি প্রকাশ করতে শুরু করেন। বছর দুয়েক চলার পর আর্থিক কারণে পত্রিকাটি বন্ধ হয়ে যায়। সম্পাদকের মৃত্যুর পর তার পুত্র কাইজার সম্পাদকের দায়িত্ব নেন। তিনি দু’একটি সংখ্যা প্রকাশের পর এটি একেবারে বন্ধ হয়ে যায়।

সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ প্রবাহ: সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে ১৯৯১ সালে এই সাপ্তাহিক পত্রিকার যাত্রা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন মোঃ রেজাউল করিম (বাবুল রেজা)। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে নিয়মিত ৮ পৃষ্ঠায় প্রকাশ পেত। বছর দুয়েক পর পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায়।

পাক্ষিক আল হাসান: এডভোকেট মোঃ মতিউল হাসান ছিলেন এই সাপ্তাহিকটির সম্পাদক ও প্রকাশক। সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে ১৯৯২ সালে পত্রিকাটির যাত্রা শুরু হয়। ট্যাবলয়েড সাইজে নিউজপ্রিন্ট কাগজে নিয়মিত ৮ পৃষ্ঠায় এটি ছাপা হতো। বছর দুয়েক চলার পর পত্রিকাটি বন্ধ হয়ে যায়।

পাক্ষিক ভৈরব: ১৯৯৩ সালে ভৈরব উপজেলা সদর হতে পাক্ষিক ভৈরবের যাত্রা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন খন্দকার কামরুজ্জামান কাজল। পত্রিকাটি ট্যাবলয়েড সাইজে নিউজপ্রিন্ট কাগজে মুদ্রিত হতো। অনিয়মিতভাবে প্রায় দু’ বছর চলার পর ১৯৯৬ সালে প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায়।

সাপ্তাহিক/দৈনিক গৃহকোণ: ১৯৯৩ সালে সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে জেলার ভৈরব উপজেলা হতে পত্রিকাটির প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক এমএ লতিফ। দীর্ঘদিন সাপ্তাহিক হিসেবে প্রকাশ পাওয়ার পর বর্তমানে দৈনিক হিসেবে প্রকাশ পাচ্ছে। উন্নতমানের নিউজপ্রিন্ট কাগজে নিয়মিত ৮ পৃষ্ঠায় প্রকাশ পায়।

সাপ্তাহিক মফস্বলচিত্র: খন্দকার কামরুজ্জামান কাজল ছিলেন এ পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক। ১৯৯৬ সালে ঢাকার আরামবাগ থেকে পত্রিকার প্রকাশকর্ম শুরু হয়। ভৈরবেও একটি শাখা অফিস ছিল। পত্রিকাটি বেশিদিন স্থায়ী হয়নি।

দৈনিক আজকের দেশ: কিশোরগঞ্জ শহরের আখড়াবাজার থেকে ১৯৯২-৯৩ সালের দিকে এই দৈনিকটির প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদকের নিজস্ব প্রেসে (শাহীন প্রিন্টার্স) এটি  ছাপা হয়ে থাকে। সম্পাদক ও প্রকাশক কাজী শাহীন খান। প্রথমে নিউজপ্রিন্ট কাগজে ব্রডশীটে প্রকাশ পেলেও পরে ট্যাবলয়েড সাইজে প্রকাশ পায়। প্রকাশকর্ম এখনও অব্যাহত আছে।

মাসিক ন্যায়দণ্ড: ১৯৯৬ সালে কিশোরগঞ্জ শহর থেকে মাসিক ন্যায়দণ্ডের প্রকাশযাত্রা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন এডভোকেট সাইফুল হক সেলিম। পত্রিকাটির সরকারি ছাড়পত্র ছিল। ম্যাগাজিন আকৃতির এই পত্রিকাটি নিউজপ্রিন্ট কাগজে মুদ্রিত হতো। পরে সম্পাদক হন এস. আলম আশিক। দীর্ঘদিন যাবত পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ আছে।

মাসিক মদিনার বাণী: ১৯৯৪ সালের ১০ মার্চ সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে পাকুন্দিয়ার সুখিয়া গ্রাম থেকে এই পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন মোঃ তৈয়বুর রহমান। ইসলাম ধর্ম বিষয়ক সংবাদ, ধর্মবেত্তাদের জীবনী ও ধর্মীয় বিষয়াদিই ছিল এই পত্রিকার মূল অনুষঙ্গ। কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশের পর পত্রিকাটি আর টিকে থাকেনি।

প্রাত্যহিক চিত্র: ১৯৯৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে কিশোরগঞ্জ শহর থেকে এই দৈনিকের শুভযাত্রা সূচিত হয়। সম্পাদকের দায়িত্ব পান আহমেদউল্লাহ। সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে নিউজপ্রিন্ট কাগজে ব্রডশীটে নিয়মিত ৪ পৃষ্ঠায় এটি প্রকাশ পেত। বছরখানেক চলার পর আর্থিক সঙ্কটে পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায়।

দৈনিক একুশে কাগজ: ১৯৯১ সালে সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে ২০০১ সালে এই পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। ভৈরবের ছেলে খন্দকার কামরুজ্জামান কাজল ছিলেন পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক। কিশোরগঞ্জ শহরের সমবায় ভবনে পত্রিকার অফিস নেওয়া হয়েছিল। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে নিয়মিত ৪ পৃষ্ঠায় কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশ পায়। পরে পত্রিকাটি আর টিকে থাকেনি।

দৈনিক শতাব্দীর কণ্ঠ: ২০০১ সালে কিশোরগঞ্জ থেকে পত্রিকাটি সরকারি অনুমোদন (ছাড়পত্র) লাভ করে। পত্রিকার সম্পাদক হন আহমেদউল্লাহ্। এডভোকেট খন্দকার ফরিদ আহমদ ছিলেন পত্রিকার মূল উদ্যোক্তা। শুরুতে নিউজপ্রিন্ট কাগজে  ব্রডশীটে ৪ পৃষ্ঠায় প্রকাশ পেত। ২০০৩ সাল থেকে পত্রিকাটি ট্যাবলয়েড সাইজে রূপান্তরিত হয়। তখন ৮ পৃষ্ঠায় প্রকাশ পেলেও পরে এটি ৪ পৃষ্ঠায় নেমে আসে। এখনও প্রকাশনা অব্যাহত আছে।

সাপ্তাহিক যুগ-দর্পন: ২০০২ সালে সরকারি অনমোদন নিয়ে জেলার ভৈরব উপজেলা থেকে এ পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন মোঃ আনোয়ার হোসেন। ট্যাবলয়েড সাইজের পত্রিকাটিতে স্থানীয় ও জাতীয় সংবাদ প্রকাশ পেত।

পাক্ষিক হাওর তরঙ্গ: নিকলী উপজেলা সদর থেকে ২০০২ সালের মাঝামাঝি সময়ে ট্যাবলয়েড আকারে এই পাক্ষিক পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক আহসানুল হক জুয়েল। কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশের পর পত্রিকাটি আর টিকে থাকেনি।

মাসিক কিশোরকথা: সাদ বাংলাদেশ নামক এনজিও’র অর্থায়নে ২০০৩ সালে ভৈরব উপজেলা থেকে শিশু-কিশোর উপযোগী এই মাসিক পত্রিকাটি প্রকাশিত হয়। কিশোর বয়সী নূরে আলম রিপন ছিলেন এ্ই পত্রিকার সম্পাদক। হোয়াইট প্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে পত্রিকাটি প্রকাশ পেত। শিশু-কিশোরদের লেখা নিয়েই সাজানো হতো পত্রিকার অবয়ব। কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশের পর এটি বন্ধ হয়ে যায়।

সাপ্তাহিক আলোরমেলা: ২০০৩ সালের ২৩ অক্টোবর কিশোরগঞ্জ শহর থেকে পত্রিকাটি প্রকাশ পেতে শুরু করে। খায়রুল ইসলাম চৌধুরী ছিলেন এ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে ৮ পৃষ্ঠায় পত্রিকার প্রকাশনা অব্যাহত থাকে। দীর্ঘদিন চলার পর পত্রিকাটি বন্ধ হয়ে যায়।

আজকের সারাদিন: সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে ২০০৪ সালের ৫ অক্টোবর (রেজি. নম্বর-১৪১১) কিশোরগঞ্জ শহর থেকে এই দৈনিকের উদ্বোধনী সংখ্যা প্রকাশ পায়।  সম্পাদকের নিজস্ব প্রেসে (কিশোর অফসেট প্রিন্টার্স) পত্রিকাটি মুদ্রিত হতো। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন মু. কামরুল আনাম। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে নিয়মিত ৮ পৃষ্ঠায় পত্রিকা প্রকাশ পেত। সম্পাদকের অকাল মৃত্যুর কারণে প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায়। সম্প্রতি প্রয়াত সম্পাদকের স্ত্রীর সম্পাদনায় পত্রিকাটি ৪ পৃষ্ঠায় অনিয়মিতভাবে প্রকাশ পাচ্ছে।

সাপ্তাহিক কুলিয়ারচর: ২০০৪ সালের ১৫ এপ্রিল সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে কুলিয়ারচর উপজেলা থেকে এই সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। উন্নতমানের হোয়াইটপ্রিন্ট অফসেট কাগজে নিয়মিত ৮ পৃষ্ঠায় ট্যাবলয়েড সাইজে পত্রিকাটি প্রকাশ পেত। সম্পাদক ও প্রকাশক ছলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, শিল্পপতি ও রাজনীতিক শরীফুল আলম। বর্তমানে প্রকাশনা বন্ধ আছে।

দৈনিক প্রথম কণ্ঠ: ২০০৪ সালের দিকে বিশিষ্ট রাজনীতিক মোঃ মাসুদ হিলালীর তত্ত্বাবধানে দৈনিক প্রথম কণ্ঠ নামে একটি নতুন পত্রিকার কয়েকটি প্রস্তুতি সংখ্যা প্রকাশ পায়। সরকারি ছাড়পত্র না পাওয়ায় পত্রিকাটি পরে আর অব্যাহত থাকেনি।

সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ: কিশোরগঞ্জ শহরের পুরানথানাস্থ সৈয়দ মঞ্জিল হতে ২০০৫ সালে এই সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। এটি সরকারি ছাড়পত্র পেয়েছিল। নিউজপ্রন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে এই পত্রিকার মাত্র কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশ পায়। পরে পত্রিকাটি আর টিকে থাকেনি। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন সৈয়দ আব্দুল মোমেন।

সাপ্তাহিক উজান স্রোত: ২০০৬ সালের ১৪ এপ্রিল (১ বৈশাখ) ভৈরব থেকে এই পত্রিকার উদ্বোধনী সংখ্যা প্রকাশ পায়। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন কমান্ডার আবদুর রউফ। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে মুদ্রিত পত্রিকাটি খুব বেশিদিন টিকে থাকেনি।

সাপ্তাহিক দিনের গান: ২০০৬ সালের ৪ সেপ্টেম্বর ভৈরব থেকে ৮ পৃষ্ঠার এ  পত্রিকাটি প্রকাশ পেতে শুরু করে। পত্রিকাটি সরকারি ছাড়পত্রপ্রাপ্ত। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে এটি প্রকাশ পায়। সম্পাদক ও প্রকাশক সোহেল সাশ্রু। এখনও নিয়মিত প্রকাশিত হয়।

মাসিক বাজিতপুর সমাচার: বাজিতপুর উপজেলার সরারচর হতে ২০০৬ সালের জুলাই মাসে পত্রিকাটির প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন মুহাম্মদ বদরুল আলম। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে মুদ্রিত পত্রিকাটির কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশ পেয়েছিল। পরে আর প্রকাশ পায়নি।

সাপ্তাহিক হোসেনপুর বার্তা: সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে ২০১০ সালে জেলার হোসেনপুর উপজেলা থেকে এই সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক প্রদীপ কুমার সরকার। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে নিয়মিত ৮ পৃষ্ঠায় প্রকাশ পেয়ে থাকে। এখনও প্রকাশনা অব্যাহত আছে।

দৈনিক সাতকাহন: ২০১০ সালের ২০ নভেম্বর সরকারি অনুমোদন নিয়ে কিশোরগঞ্জ শহর থেকে এই দৈনিকের প্রকাশ-যাত্রা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক এ টি এম নিজাম। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে প্রথমে ৮ পৃষ্ঠায়, পরে ৪ পৃষ্ঠায়  প্রকাশ পেতে থাকে। সাড়ে তিন বছর চলার পর প্রকাশনা বন্ধ হয়ে কিছুদিন পর আবারও সীমিত পরিসরে প্রকাশ পায়। বর্তমানে অন্লাইনে প্রকাশ পাচ্ছে।

পাক্ষিক বাতি: শিক্ষাবিদ ও রাজনীতিক অধ্যক্ষ শরীফ আহমদ সাদী ২০১০ সালে কিশোরগঞ্জ থেকে পাক্ষিক বাতি নামক পত্রিকার প্রকাশনা শুরু করেন। সরকারি ছাড়পত্রপ্রাপ্ত পত্রিকাটি উন্নতমানের হোয়াইটপ্রিন্ট অফসেট পেপারে ট্যাবলয়েড সাইজে ৪ রঙা হয়ে প্রকাশ পেত। ৮ পৃষ্ঠার এ পত্রিকা যথেষ্ট পাঠকপ্রিয় হয়েছিল। শরীফ আহমদ সাদী নিজে এ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক। এখনও অনিয়মিত ঢাকা থেকে প্রকাশ পেয়ে থাকে।

দৈনিক আমার বাংলাদেশ: ২০১১ সালে সরকারি অনুমোদন নিয়ে কিশোরগঞ্জ শহরের রথখলা থেকে এই দৈনিকের যাত্রা শুরু হয়। সম্পাদক সুলতান রায়হান ভূঞা রিপন, প্রকাশক- মোঃ টিপু সুলতান। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে নিয়মিত ৪ পৃষ্ঠায় পত্রিকাটি প্রকাশ পায়।

নরসুন্দাপাড়ের কথা: ২০১১ সালে সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে এই সাপ্তাহিকটি প্রকাশ পেতে শুরু করে। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে নিয়মিত ৪ পৃষ্ঠায় এখনও প্রকাশ পাচ্ছে। সম্পাদক সুলতান রায়হান ভূঁইয়া রিপন, প্রকাশক মোঃ টিপু সুলতান। কিশোরগঞ্জ শহরের রথখলায় পত্রিকার কার্যালয় অবস্থিত।

ডেইলি কিশোরগঞ্জ টাইমস: ২০১৩ সালে সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে জেলার প্রথম ও একমাত্র ইংরেজি দৈনিক হিসেবে এ পত্রিকার যাত্রা শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক এডভোকেট মুহাঃ লুৎফর রশীদ রানা। তার স্ত্রী নারীনেত্রী বিলকিস বেগম হন ব্যবস্থাপনা সম্পাদক। নিউজপ্রিন্ট কাগজে নিয়মিত ৮ পৃষ্ঠায় প্রকাশ পেত। বছরখানেক চলার পর প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায়।

সাপ্তাহিক সময়ের দৃশ্যপট: জেলার ভৈরব উপজেলা থেকে ২০১৩ সালে এই সাপ্তাহিক পত্রিকার শুভযাত্রা সূচিত হয়। হোয়াইটপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে নিয়মিত ৮ পৃষ্ঠায় প্রকাশ পায়। সম্পাদক ও প্রকাশক মোঃ জাকির হোসেন কাজল। এখনও অনিয়মিতভাবে প্রকাশনা অব্যাহত আছে।

সাপ্তাহিক অবলম্বন: ২০১৪ সালে সরকারি অনুমোদন (ছাড়পত্র) নিয়ে জেলার ভৈরব উপজেলা থেকে এই সাপ্তাহিক পত্রিকার শুভযাত্রা সূচিত হয়। ট্যাবলয়েড সাইজের এই পত্রিকায় স্থানীয় ও জাতীয় সংবাদ, ফিচার ও সমসাময়িক বিষয়ে প্রবন্ধ-নিবন্ধ প্রকাশ পায়। সম্পাদক ও প্রকাশক তাজুল ইসলাম ওরফে তাজ ভৈরবী।

সাপ্তাহিক জনপদ সংবাদ: সরকারি ছাড়পত্র নিয়ে ২০১৪ সালে জেলার ভৈরব উপজেলা থেকে সাপ্তাহিক জনপদ সংবাদের যাত্রা শুরু হয়। ট্যাবলয়েড সাইজের এ পত্রিকায় স্থানীয় ও জাতীয় সংবাদের পাশাপাশি সমসাময়িক বিষয়ের ওপর কলাম ও প্রবন্ধ-নিবন্ধ প্রকাশ পায়। সম্পাদক ও প্রকাশক মোঃ হাবিবুর রহমান।

সাপ্তাহিক ইছামতি: বাজিতপুর উপজেলা হতে ২০১৫ সালে এই সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রকাশকর্ম শুরু হয়। সম্পাদক ও প্রকাশক শিল্পী বণিক। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে ৪ পৃষ্ঠার এই পত্রিকাটি বছর দেড়েক টিকে ছিল। সরকারি অনুমোদন না থাকায় প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায়।

পাক্ষিক কটিয়াদী সমাচার: ২০১৬ সালের ২ নভেম্বর এই পাক্ষিক পত্রিকাটি সরকারি ছাড়পত্র লাভ করে। কটিয়াদী উপজেলা থেকে পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়। হোয়াইটপ্রিন্ট অফসেট কাগজে ট্যাবলয়েড সাইজে কখনো ৮ পৃষ্ঠায় কখনো ৪ পৃষ্ঠায় প্রকাশ পায়। সম্পাদক ও প্রকাশক সারোয়ার হোসেন শাহীন।

দৈনিক পূর্বকণ্ঠ:  ২০১৬ সালের ২৪ নভেম্বর ভৈরব উপজেলা থেকে এই দৈনিকের প্রকাশনা শুরু হয়। পত্রিকাটি সরকারি ছাড়পত্র প্রাপ্ত এবং ট্যাবলয়েড সাইজে প্রকাশ পেয়ে থাকে। সম্পাদক ও প্রকাশক সোহেল সাশ্রু।

সাপ্তাহিক প্রচার: ২০১৭ সালে কিশোরগঞ্জ শহর থেকে সাপ্তাহিক প্রচারের প্রকাশকর্ম শুরু হয়। সম্পাদক আবু ওবায়দা। উন্নতমানের হোয়াইটপ্রিন্ট অফসেট পেপারে ৪ রঙা মুদ্রণে পত্রিকাটি বের হতো। ট্যাবলয়েড সাইজের পত্রিকাটি খুব বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। ৩/৪টি সংখ্যা প্রকাশের পর প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায়। পত্রিকাটির সরকারি ছাড়পত্র ছলি না।

সাপ্তাহিক নবধারা: সরকারি ছাড়পত্র নয়ে ২০১৮ সালে এই পত্রিকার প্রকাশনা শুরু হয়কয়েকটি। নিউজপ্রিন্ট কাগজে ট্যালয়েড সাইজে ৮ পৃষ্ঠায় এ পত্রিকাটি প্রকাশ পেয়ে থাকে। সম্পাদক ও প্রকাশক শহীদুল ইসলাম পলাশ।

আগামী পর্ব: কিশোরগঞ্জের ছোটকাগজ




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর