কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কালপর্বিক ধারাবাহিকতায় কিশোরগঞ্জের সাহিত্য (পর্ব-৪)


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ৪ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:০৭ | সাহিত্য 


মোঃ রফিকুল হক আখন্দ একজন কবি ও গবেষণাধর্মী লেখক। ১৯৬২ সালের ১৭ জুন কটিয়াদী উপজেলার কাজীরচর গ্রামে জন্ম। পিতা- মৌলবী মোঃ নাজিরুল হক আখন্দ, মাতা- আনোয়ারা খাতুন। তার প্রকাশিত বইগুলো হচ্ছে- ‘স্বপ্ন তোমাকে ছুটি’ (কবিতা,২০০০), ‘পরাজিত প্রার্থনা’ (কবিতা, ২০০৭), ‘বাগেরহাটের খানজাহান ও তার উত্তরাধিকার’ (গবেষণা, ২০০৭), ‘কিশোরগঞ্জের লোকজপ্রথা ও লোকভাষা’ (গবেষণা, ২০০৯), ‘কটিয়াদীর প্রামাণ্য ইতিহাস’ (গবেষণা, ২০১১), ‘তোল প্রদীপ্ত জল’ (কবিতা, ২০১১), ‘তুতনের ভূতবন্ধু’ (শিশুতোষ গল্প, ২০১২), ‘কিশোরগঞ্জ চরিতকোষ’ (গবেষণা, ২০১৫), ‘বৃহত্তর ময়মনসিংহের ইতিহাস’ (গবেষণা, ২০১৭), ‘কিশোরগঞ্জের ইতিহাস’ (গবেষণা, ২০১৮) ইত্যাদি।

বাঁধন রায় একজন প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ কবি। তার পিতার নাম মৃত জ্যোতিশ চন্দ্র রায় এবং মাতার নাম বিমলা রায়। কিশোরগঞ্জ শহরের নগুয়ার স্থায়ী বাসিন্দা বাঁধন রায়ের জন্ম ১৯৬৩ সালের ২১ অক্টোবর। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘অনন্তকাল হেঁটে যাবো’ (২০০০)। এছাড়া কবিতার বই ‘দিনরাত্রির মিষ্টি কাব্য’ ‘নীলজল সমুদ্রে হাঙর চিৎকার’ ‘তোমার জন্ম আছে মৃত্যু থাকতে নেই’ এবং ছড়ার বই ‘চান্নিপশর ছড়ার আসর’ তার অন্যান্য প্রকাশনার মধ্যে অন্যতম।

মাহফুজ পারভেজ কিশোরগঞ্জ শহরের গৌরাঙ্গবাজারের পৈতৃক বাসায় ১৯৬৫ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার প্রকৃত নাম একেএম মাহফুজুল হক। পিতার নাম ডা. এএ মাজহারুল হক। একজন তরুণ কবি, প্রাবন্ধিক, কলাম লেখক ও গবেষক হিসেবে তিনি সুপরিচিত। তার বেশ কয়েকটি বই প্রকাশ পেয়েছে। তন্মধ্যে ‘আমার সামনে নেই মহুয়ার বন’ (কাব্য ১৯৯৩), ‘শেখ মুজিব: নবমূল্যায়ন’ (প্রবন্ধ ১৯৯৪), ‘বাংলাদেশের রাজনীতি ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব’ (প্রবন্ধ ১৯৯৫), ‘বিদ্রোহী পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং শান্তিচুক্তি’ (প্রবন্ধ ১৯৯৯), ‘শত বর্ষের প্রেমের কবিতা: বিরহের কবিতা’ (সম্পাদনা ১৯৯৯) উল্লেখযোগ্য।

পারভেজ চৌধুরী করিমগঞ্জ উপজেলার কিরাটন গ্রামে ১৯৬৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম কবি মহীউদ্দিন খান চৌধুরী এবং মাতার নাম রোকেয়া মল্লিক চৌধুরী। একটি সাহিত্য বলয়ের অগ্রসর পরিবারে বেড়ে ওঠা পারভেজ চৌধুরী নিতান্ত ছেলে বয়স থেকেই লেখালেখিতে হাতেখড়ি নেন। তার প্রকাশিত বই ‘ভুবনকাহালীর ইতিবৃত্ত’ (পথ নাটক ১৯৯৫),  ‘চৌরসন্ধি’ (নাটক ১৯৯৬), ‘স্বপ্নযাজক’ (নাটক ১৯৯৭) এবং ‘কিছুটা দুঃখবাদী হওয়া যায়’ (কাব্য ১৯৯৮)।

বিজন কান্তি বণিক তরুণ ছড়াকার ও কবি। পিতা ললিত মোহন বণিক ও মাতা যোগমায়া বণিকের ঔরসে ১৯৬৪ সালের ৯ সেপ্টেম্বর তার জন্ম। স্থায়ী নিবাস কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই গ্রামে। তার প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘তোমার আঁচলে আমার পৃথিবী’ (যুগল ১৯৯০),  ‘নির্বাসিত অহংকার’ (২০০০) ও ‘আসছে ধেয়ে’ (ছড়া, ২০১৫)।

নাট্যসাহিত্য তথা নাটকের বই লেখার ক্ষেত্রেও এ জেলার কয়েকজন কৃতী লেখক বিশেষ অবদান রেখেছেন। তন্মধ্যে অধ্যাপক জিয়াউদ্দিন আহমদ, সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলাম পট্টু মিয়া, মুহাম্মদ বাকের (বাজিতপুর), গোলাম শফিক (বাজিতপুর), অধ্যাপক মোহাম্মদ আশরাফ (বাজিতপুর), সুধেন্দু বিশ্বাস, হীরেন্দ্র কিশোর রায় (কটিয়াদী), মুক্তি চৌধুরী (করিমগঞ্জ), পারভেজ চৌধুরী (করিমগঞ্জ), মহিউদ্দিন ছড়া, ম.ম. জুয়েল, মো. মাসুদুর রহমান, প্রয়াত নারায়ণ সাহা, প্রয়াত আব্দুল আজিজ, সাগর রহমান (ভৈরব), বদিউজ্জামান বাচ্চু (কটিয়াদী), মাহবুবা খন্দকার পাঁপড়ি (পাকুন্দিয়া), সবুজ সারোয়ার (ভৈরব), হুমায়ূন কবীর (পাকুন্দিয়া) প্রমুখ অন্যতম।

তথ্যভিত্তিক প্রবন্ধ রচনার ক্ষেত্রে এ জেলার অনেক গুণী ব্যক্তি নিরলস কাজ করে চলেছেন। তাদের সকলের নাম আমাদের জানা নেই। অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক, ড. দুর্গাদাস ভট্টাচার্য, মোহাম্মদ সাইদুর, অধ্যক্ষ প্রফেসর রফিকুল ইসলাম খান, অধ্যাপক প্রাণেশ কুমার চৌধুরী, সিরাজুল ফরিদ (পাকুন্দিয়া), মাহফুজুর রহমান (পাকুন্দিয়া), অ্যাডভোকেট নাসিরউদ্দিন ফারুকী, মুহম্মদ বাকের (বাজিতপুর), এম.এ. কাইয়ুম, গোলাম শফিক (বাজিতপুর), অধ্যাপক মোহাম্মদ আজিজুল হক, অধ্যাপক মো. আবুল কাশেম সালতু, অধ্যাপক আতাউর রহমান (ভৈরব), অ্যাডভোকেট মো. নবী হোসেন (কটিয়াদী), অ্যাডভোকেট অনামিকা রেজা রোজী, অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা (বাজিতপুর), অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক, মুহম্মদ হাবিবুল্লাহ (পাকুন্দিয়া), অধ্যাপক শরীফ আহমদ সাদী, জাহাঙ্গীর আলম জাহান, রহিমা আখতার কল্পনা, অধ্যাপক মাহফুজ পারভেজ, অধ্যাপক মো. আবুল কাশেম, অধ্যাপক মোহাম্মদ আশরাফ, মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম মিশা, মহিবুর রহমান, প্রভাষক শফিকুল ইসলাম দুলাল, প্রিন্স রফিক খান (নিকলী), অধ্যক্ষ শরীফ আহমদ (ভৈরব), বশীর আহমদ (ভৈরব), মো. মহিউদ্দিন (রঙ্গারকোণা, সদর), নজীর আহমেদ (করিমগঞ্জ) আমিনুর রহমান মুকুল, মোতাহার হোসেন, গাজী মহিবুর রহমান প্রমুখ এ জেলার কয়েকজন গুণী প্রাবন্ধিক। ভৈরব উপজেলার অধ্যাপক হেলালউদ্দিনও একজন বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক। তার ৩/৪টি বইও ইতোমধ্যে প্রকাশ পেয়েছে। একই উপজেলার শরীফ হোসেন একজন বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক হিসেবে সমাদৃত হয়েছেন।

এছাড়া করিমগঞ্জ থানার সতেরদরিয়া গ্রামের বিশিষ্ট সাংবাদিক আতাউস সামাদ ও তাড়াইল থানার খ্যাতিমান কথাসাহিত্যিক রাহাত খান সাংবাদিকতার পাশাপাশি সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয়ে পত্রপত্রিকায় নিয়মিত কলাম লিখতেন।  চিন্তাশীল প্রবন্ধকার হিসেবেও তাদের খ্যাতি রয়েছে।

স্বাধীনতা উত্তর সত্তর দশকে কিশোরগঞ্জে একঝাঁক তরুণ লেখক ও কবির গর্বিত এবং ঋজু আবির্ভাব লক্ষ করা যায়। এ সময়টিকে কিশোরগঞ্জ সাহিত্যাঙ্গনের একটি সু-সময় বলা যেতে পারে। এই সুসময়ে যারা সাহিত্য জগতে সুখ্যাতি অর্জন করেন তাদের মধ্যে অন্যতম প্রধান কয়েকজন হচ্ছেন ফারুক মাহমুদ, আজিজুল হক এরশাদ, মোহাম্মদ ফিরোজ, আশুতোষ ভৌমিক, মোহাম্মদ আশরাফ, মাসুদ বিবাগী, শিবব্রত নন্দী দুলাল, আক্কাছ আল-মাজী, রতন কুমার রক্ষিত, শহীদ খান প্রমুখ অন্যতম।

স্বাধীনতা উত্তর সত্তর ও আশির দশকে সাহিত্যজগতে অনুপ্রবেশ ঘটলেও লেখালেখির ক্ষেত্রে যাদের প্রকৃত বিকাশ ঘটে গত শতকের আশি ও নব্বই দশকে, তাদের অনেকেরই প্রকাশিত বই রয়েছে। কিন্তু ওই সকল লেখকদের বিস্তারিত তথ্য না থাকায় তাদের সম্পর্কে বিষদ আলোকপাত করা গেল না।

এ রকম উল্লেখযোগ্য কয়েকজন লেখক হচ্ছেন, এএফ আকরাম হোসেন (স্বল্পমারিয়া, সদর), প্রয়াত আবু বক্কর সিদ্দিক হিরো, রেজা রহমান, আশরাফুল মোসাদ্দেক, রিফাত চৌধুরী, আমানউল্লাহ, রফিক হাসান, উপল হাসান, কফিল আহমেদ, কুমকুম সরকার, সেলিমুজ্জামান খোকা, সৈয়দুজ্জামান, আবুল এহসান, এনামুল মজিদ জুয়েল, রওশন আলী রুশো (ইটনা), সালেহ আহমদ (করিমগঞ্জ), রফিকুল ইসলাম সাজু (বাজিতপুর), নাসরুল আনোয়ার (বাজিতপুর), রেজাউল হাবীব রেজা (করিমগঞ্জ)।

ডা. দীন মোহাম্মদ পেশায় একজন এমবিবিএস চিকিৎসক। সরকারি চাকরির অবসরে তিনি নিয়মিত গল্প লিখতেন। সেই সকল গল্প নিয়ে প্রকাশ করেন ‘অবেলায় আলোছায়া’। অবসরে আসার পর তিনি গানের বাণী লেখায় মনোনিবেশ করেছেন। বাজিতপুর থানার জনৈক আব্দুল হেকিম মাস্টার ‘বাজিতপুর উপজেলার গুণীজন’ নামে একটি বই প্রকাশ করেছেন। তার বইটি বোদ্ধামহলে সমাদৃত হয়।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই গ্রামের একজন স্বশিক্ষিত চারণ কবি আব্দুল খালেক। তিনি মুখে মুখে কবিতা রচনা করে অনেকের কাছেই স্বভাব কবি হিসেবে পরিচিত হয়েছেন। অষ্টগ্রাম থানার কেএম আমিনুল হক ওরফে রজব আলী ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালে একজন কুখ্যাত আলবদর কমান্ডার হিসেবে অনেক অপকর্মের হোতা। তিনি তার আলবদর জীবনের স্মৃতিকথা নিয়ে প্রকাশ করেছেন সরল স্বীকারোক্তিমূলক গ্রন্থ ‘আমি আলবদর বলছি’ (১৯৮৮)। মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে।

অষ্টগ্রাম থানার পাওন গ্রামে ১৯৬৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন শহীদুল ইসলাম ফারুক। তার পিতার নাম আবু সাইদ ভূঞা। তিনি মূলত একজন ঔপন্যাসিক। এ যাবৎ তার প্রায় ৩০টি উপন্যাস প্রকাশ পেয়েছে। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি হচ্ছে যথাক্রমে ‘রেবেকা’ (১৯৯৩), ‘এখন ভালবাসা’ (১৯৯৩) ‘অপরাজিত প্রেম’ (১৯৯৪), ‘ভালবাসা চাই’ (১৯৯৪), ‘খলনায়ক’ (১৯৯৫), ‘ভ্রমর’ (১৯৯৫), ‘তুমি আছ হৃদয়ে’ (১৯৯৬), ‘আমার ভালবাসা’ (১৯৯৬), ‘অনুরাগের ছোঁয়া’ (১৯৯৬), ‘প্রেমিক’ (১৯৯৬), ‘প্রেম ও তৃষ্ণা (১৯৯৯) ইত্যাদি।

রোমেন রায়হান একজন লব্ধ প্রতিষ্ঠিত ছড়াকার। তিনি ১৯৬৯ সালের ১৪ জুন করিমগঞ্জ থানার খৈলাকুড়ি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মো. বজলুর রহমান। রোমেন রায়হানের প্রকাশিত ছড়াগ্রন্থের না ‘ম্যাঁও’ (১৯৯৩), ‘ফিফটি ফিফটি প্রেমের ছড়া’ (১৯৯৪), ‘আয় আয় চাঁদ মামা’ (১৯৯৭), ‘ছড়াটুন’ (১৯৯৭)। পেশায় তিনি একজন চিকিৎসক।

আশির দশকের মাঝামাঝি থেকে শুরু করে গত শতকের নব্বই দশকে এবং একবিংশ শতকের শূন্য দশকে আরো কিছু নবীন লিখিয়ের উপস্থিতি লক্ষ করা যায়। তাদের মধ্যে বদরুজ্জামান আলমগীর (সরিষাপুর, বাজিতপুর), ডা. কামরুজ্জামান জাহাঙ্গীর (সরিষাপুর, বাজিতপুর), সৈয়দ সারোয়ার (পাকুন্দিয়া), ইশারফ হোসেন (সরারচর, বাজিতপুর), প্রিন্স রফিক খান (নিকলী), রনজু রাইম (তালজাঙ্গা, তাড়াইল), মেরাজ রাহীম (কটিয়াদী), শিল্পী বণিক (বাজিতপুর), খুজিস্থা বেগম জোনাকী, আফরোজা সুলতানা সোমা, জহুরা তামান্না, হাসিনা সালাউদ্দিন, আহমাদ ফরিদ, মুশফিকুর রহমান, মাহবুবা খান দ্বীপান্বিতা, মুজাহিদুল ইসলাম তমাল, বাসিরুল আমিন, হারুন অর রশিদ (কটিয়াদী), মো. হারুন আল-রশীদ (কাটাবাড়িয়া, কিশোরগঞ্জ সদর), শফিকুল ইসলাম উচ্ছ্বাস, শাহ মো. মোশাহিদ, সৈয়দ শিশির, কাওসার খান (কুলিয়ারচর),  র.ম. পাশা, সামিউল হক মোল্লা, প্রশান্ত কুমার দাস, রাজন দেবনাথ, সুমন দ্বীপ, ইয়াসীন আহমেদ, জিয়াউদ্দিন আহমেদ খোকা, ডা. সুলতানা রাজিয়া, ফেরদৌস চৌধুরী (কার্তিকখিলা, তাড়াইল), হামিদ মেহবুব (কুলিয়ারচর), ছাদেকুর রহমান রতন (তাড়াইল) অনিন্দ্য আসিফ, সোলায়মান কবির ও আসিফুজ্জামান খন্দকার (পাকুন্দিয়া), শাহনাজ মুন্নি (করিমগঞ্জ), জান্নাতুল ফেরদৌস পান্না ও তাহমিনা সুলতানা নিপা (পাকুন্দিয়া), মোহাম্মদ জালালউদ্দিন (করিমগঞ্জ), আমিনুল ইসলাম সেলিম, সাদরুলউলা, রতন রহমান, আকিব শিকদার, ফরিদ-উজ-জামান পলাশ, নাদিরা পারভীন, তন্ময় আলমগীর, জামাতুল ইসলাম পরাগ, আহমদ আমিন, সামিউল হক মোল্লা, মোহাম্মদ শামীম রেজা, আহমেদ রউফ, ফয়সাল আহমেদ, প্রিয়ন্তিকা পুষ্প, সোলায়মান কবির, আলী আকবর, তাজ ইসলাম, মোহাম্মদ নূর আলম গন্ধী, শাহজাহান কবীর, শাতিল আহমেদ প্রমুখ অন্যতম।

গত শতকের আশি ও নব্বই দশকে কিশোরগঞ্জে বেশ কিছু তরুণ লিখিয়ের আবির্ভাব ঘটেছিল। তাদের অনেকের লেখাতেই উজ্জ্বল সম্ভাবনা লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতেই তাদেরকে আর সাহিত্য জগতে খুঁজে পাওয়া যায় না। এদের মধ্যে কোকোলা ধর, দুলাল রায়, স্মৃতিকণা রায়, রামপরী চৌহান, আ.স.ম. মকবুল, সাব্বির মাহমুদ, মো. মাহবুবুর রহমান বুলবুল (করিমগঞ্জ), নারায়ণ সরকার, হাসিনা সালাউদ্দিন, লায়লা আর্জুমান্দ ঝর্না, মাহবুবা হাফিজ মিতা, মরিয়মুন্নেছা সুমি, উম্মে ফাইজুন্নাহার সুমি, শফিকুর রহমান তুষার, আতিকুর রহমান, কানিজ আমিনা লাভলী প্রমুখ অন্যতম।

গত শতকের সত্তর আশি ও নব্বই দশকে কিশোরগঞ্জ সাহিত্যাঙ্গনে তারুণ্যদীপ্ত একঝাঁক নতুন লিখিয়ের আবির্ভাব ঘটে। এ রকম কয়েকজনের মধ্যে যাদের নাম উল্লেখযোগ্য তারা হচ্ছেন নীলোৎপল কর, তিনি নাট্যমঞ্চে আলোকসজ্জা বিষয়ক বই ‘মঞ্চালোক প্রকাশ করেন। বিশিষ্ট সঙ্গীতজ্ঞ নিখিলরঞ্জন নাথ টুক্কু (বাজিতপুর), সঙ্গীতের স্বরলিপি বিষয়ক তার ‘শতগান’ নামে তিনখণ্ডের তিনটি বই প্রকাশ পায়।

তাড়াইল থানার দামিহা গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও উদ্যমী লেখক মো. আবুল হাশেম ভূঞা। তার প্রকাশিত ও লিখিত বইসমূহ হচ্ছে যথাক্রমে ‘প্রতিদান’ (উপন্যাস ১৯৯৪), ‘টোপ’ (প্রবন্ধ ১৯৯৫), ‘মৌলবাদ’ (প্রবন্ধ ১৯৯০) ‘আমি অঙ্গীকার বলছি’ (প্রবন্ধ ১৯৭৬), ‘মুখ ও মুখোশ’ (প্রবন্ধ ১৯৯৭), ‘চুরুটের কাগজ’ (প্রবন্ধ ১৯৯৭)।

পাকুন্দিয়া থানার বাহরামখানপাড়া গ্রামের তরুণ কবি আ.ক.ম. ভূইয়া হুমায়ুন প্রকাশ করেছেন তার কবিতার বই ‘বিলাপ’ (১৯৯৮), অধ্যাপক আতাউর রহমান (ভৈরব)-এর গল্পের বই ‘প্রতিবিম্ব’ (২০০৩), মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ (শিমুলকান্দি, ভৈরব)-এর উপন্যাস ‘কলকাতায় নমিতা’ (২০০০), গল্পগ্রন্থ ‘শিমুলডাঙ্গার সেতু’ (২০০১) শরীফ হোসেন (ভৈরব)-এর লেখা জীবনীগ্রন্থ ‘কালোত্তীর্ণ রেবতী বর্মণ’ এবং বানানরীতি বিষয়ক গ্রন্থ ‘বাংলা বানানরীতি’, সুরাইয়া পারভীন (পঞ্চবটি, ভৈরব)-এর কবিতার বই ‘নোঙরের গল্প বাঁচাচ্ছি’, জগলুল হায়দার বাবু (ভৈরব)-এর ছড়ার বই ‘ছড়ায় ছড়ায় ১০০ মনীষীর জীবনী’ (২০০২), সানন্দা রুবী এবং শিপলু সাহা (ভৈরব)-এর যৌথকাব্য ‘দুঃখ বিলাস’, কিশোরেগঞ্জ সদর উপজেলার স্বল্পমারিয়া গ্রামের তরুণ কবি শিবলী সাদিক্ল-এর কবিতার বই ‘অধিবিদ্যার ময়ুর’, পাকুন্দিয়া থানার চরফরাদি গ্রামের খ্যাতিমান লেখক  মাহফুজুর রহমানের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বই ‘বদি মিয়ার রাজাকারের ডায়েরী’, তাড়াইল থানার কার্তিকখিলা গ্রামের বিশিষ্ট লেখক মো. মতিউর রহমানের ভ্রমণকাহিনী ‘হাওরা থেকে হাওয়া মহল’, কটিয়াদী থানার করগাঁও গ্রামের বিশিষ্ট তরুণ কবি রিফাত চৌধুরীর যৌথকাব্য ‘জংশন’, সদর উপজেলার কাটাবাড়িয়া গ্রামের কবি সামসুন্নাহার ওসমান-এর কবিতার বই ‘সুখ-দর্শন’, একই গ্রামের মমতাজ শহীদ মিতুর গল্পের বই ‘প্রণয়ের খেলা’ (২০০০), উপন্যাস ‘বেঁচে থাকার ব্যর্থ আশা’ (২০০৩) এবং ‘প্রাণের চেয়েও ভালবাসি’ (২০০৩)।

কিশোরগঞ্জ শহরের তরুণ কবি আবুল এহসানের কবিতার বই ‘তামা ও সবুজ’, আমিনুর রহমান মুকুলের কবিতার বই ‘সময়ের সাহসী উচ্চারণ ’ (১৯৮৫) এবং ‘তবুও স্বপ্ন দেখি বাঁচার’ (১৯৮৯), নিকলী থানার ছাতিরচর গ্রামের তরুণ কবি মহিবুর রহিমের কবিতার বই ‘অতিরিক্ত চোখ’, সদর থানার কর্শাকড়িয়াইল গ্রামের তরুণ কবি শামীম সিদ্দিকীর কবিতার বই ‘ভূগোলের সবুজ বাকল’ (১৯৯৭), কিশোরগঞ্জ শহরের চরশোলাকিয়ার তরুণ কবি কানিজ আমিনা লাভলীর কবিতার বই ‘স্বপ্নের বালুচর’ এবং ‘বঞ্চিত মুখের ছবি’ পাকুন্দিয়া থানার জুনাওয়াল গ্রামের বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও লেখক মো. সিরাজুল ইসলাম-এর মৎস্যচাষ বিষয়ক শিক্ষামূলক বই ‘আধুনিক মৎস্য চাষ’ (২০০৩), গীতিকবিতার বই ‘জীবন আমার ধন্য’ (২০০৩) ও ‘হৃদয়র ঢেউ’ (২০০৩), ছড়ার বই ‘হাল্কা ছড়া ঝাল্কা ছড়া’ (২০১১), পাকুন্দিয়া থানার জুনাওয়াল গ্রামের তরুণ লেখক শফিকুল ইসলাম দুলাল-এর ছড়ার বই ‘বৃষ্টি পড়ে টাপুর টুপুর’ (২০০৩) ও জীবনীগ্রন্থ ‘হাসনা আরা হাই’ (২০০৪),  কটিয়াদী থানার ভাংনাদি গ্রামের তরুণ লেখক নূরে মালেকের কবিতার বই ‘রক্তাক্ত মিছিল’ (১৯৯০) ও উপন্যাস ‘ঈশান কোণে মেঘ’ (২০০১), কটিয়াদী থানা সদরের তরুণ গল্পকার ও ঔপন্যাসিক রুহুল আমি রাজু’র উপন্যাস ‘হৃদয়ে যদি লেখা যেতো’ (১৯৯৭), কটিয়াদী থানার তরুণ লেখক হামিদ মো. জসিম-এর উপন্যাস ‘এক রাতের বন্ধু শেখ রাসেল’ (১৯৯৪) এবং ‘শেখ রাসেলের রক্তমাখা শার্ট’ (১৯৯৭), কিশোরগঞ্জ শহরের হয়বতনগর সাহেববাড়ির তরুণ ছড়াকার সৈয়দ এনাম-উল-আজিমের কবিতার বই ‘ভালবাসার দিনরাত্রি’ (২০০০) এবং গল্পের বই ‘বেদনার রঙধনু’ (২০০০), শোহেল মাহমুদ-এর কবিতার বই ‘শূন্য চোখে উড়িয়ে দেবো’, প্রয়াত ছড়াকার হালিম আক্কাছ-এর ছড়ার বই ‘নামকীর্তন’, তরুণ কবি ও ছড়াকার মহিউদ্দিন ভূইয়া (মহিউদ্দিন ছড়া)-এর কবিতার বই ‘পালাও কবিতা’ (১৯৮৬), ছড়ার বই ‘কিরিংকিরিক’ (১৯৮৭), ত্রয়ী নাট্য সংকলন ‘উত্তরাধিকার’ (১৯৯৯), তরুণ কবি সুশীল কুমার শীল-এর কবিতার বই ‘এখানে রোদ দাও’, কিশোরগঞ্জ শহরের তরুণ কবি বাবুল রেজা’র কবিতার বই ‘ভাঙনের শব্দ’ (১৯৯৭)। তিনি জেলা শহর থেকে প্রকাশিত ‘সাপ্তাহিক কিশোরগঞ্জ প্রবাহ’ ও ‘দৈনিক প্রাত্যহিক চিত্র’ নামক পত্রিকা দুটোর সম্পাদক ছিলেন।

ভৈরব থানার তরুণ লেখক জিয়া রহমান বেশ কয়েকজন গল্পকারের গল্পের সমন্বয়ে সম্পাদনা করেন গল্পগ্রন্থ ‘মেঘনার জল ছুঁয়েছে আকাশ’ (২০০১)। এছাড়াও তার একক লেখা গল্প নিয়ে প্রকাশিত হয় গল্পের বই ‘বৃষ্টি ও কান্নার দ্বৈরথ’ (১৯৯৬), ভৈরব উপজেলার আরেক তরুণ সাহিত্যিক ও নাট্যকর্মী সাগর রহমান; তার লেখা ‘আকাশের মতো একেলা’ (১৯৯৭) ও ‘কিছুটা তো চাই’ (২০০২) নামক দু’টি উপন্যাস এবং ‘তোমার কপালে চাঁদ’ (১৯৯৮) নামক একটি কবিতার বই প্রকাশ করেন।

পাকুন্দিয়া থানার মান্দারকান্দি গ্রামের বয়সের প্রবীণ শিক্ষক মো. আবু তাহের এগারসিন্দুরের ঐতিহাসিকতা, উপকথা ও বিভিন্ন কিংবদন্তী নিয়ে প্রকাশ করেন কষ্টলব্ধ গ্রন্থ ‘এগারসিন্দুরের ইতিকথা’। করিমগঞ্জ থানার সতেরদরিয়া গ্রামের তরুণ লেখক রেজাউল হাবীব রেজার ছড়ার বই ‘রিমঝিম লিমেরিক’ (১৯৯১), সৈয়দ নূরুল আউয়াল তারা মিয়া (বৌলাই, কিশোরগঞ্জ)-এর কবিতার বই ‘নিঃশ্বাস’ (১৯৯৪), ছড়ার বই ‘গরমিল’ (১৯৯৫) এবং গানের বই ‘দেশ গড়ার গান’ (১৯৯৭), শামসুল আলম সেলিম-এর প্রবন্ধের বই ‘ইসলামী আন্দোলন কি ও কেন’ (২০০৪), বাজিতপুর থানার হিলচিয়া গ্রামের তরুণ আইনজীবী কাজল কান্তি পাল-এর কবিতার বই ‘অন্ধকারে মশাল জ্বালো’ (১৯৯৬), এসএম আতিকুর রহমান শেখ শহীদ (ইসলামপুর, মাইজখাপন, কিশোরগঞ্জ সদর)-এর প্রকাশিত বইয়ের নাম ‘জগতদুলালী’ (কাব্য ২০০১) ও ‘মনের বাঁধন’ (উপন্যাস ২০০৩)।

এস আহমদ শরীফ (পুরাতন কোর্ট রোড, কিশোরগঞ্জ)-এর প্রকাশিত বই ‘বরফের সূর্য’ (উপন্যাস ২০০৩), ‘অফ টার্মিনাল’ (বিজ্ঞান কল্পকাহিনী ২০০২) ও ‘টারটিডিন গোয়ার্কা’ (বিজ্ঞান কল্পকাহিনী ২০০১)। হেলাল আহমেদ (খামা পাকুন্দিয়া)-এর উপন্যাস ‘জমজ ভালবাসা’, মো. সোহেল মিয়া (সহিলাটি তাড়াইল)-এর কবিতার বই ‘ভালবেসে শুধু তোমাকে চাই’ (২০০২) ও উপন্যাস ‘বাসর রজনী’ (২০০৩) আব্দুল্লাহ আল মামুন পলাশ-এর উপন্যাস ‘একা’ (২০০৩), উবায়দুর রহমান খান নদভীর ইতিহাসগ্রন্থ ‘আফগানিস্তানের ইতিহাস’ (১৯৮৮), গবেষণাগ্রন্থ ‘অমুসলিম মনীষীদের চোখে আমাদের প্রিয় নবী সা.’ (১৯৯০), ‘আফগানিস্তানে আমি আল্লাহকে দেখেছি’ (তার অন্যান্য বিষয়ে আরও কয়েকটি বই রয়েছে)।

ওয়ালিউর রহমান খান-এর ধর্মীয় গবেষণাগ্রন্থ ‘নবী জীবনের অলৌকিক ঘটনাবলী’ (১৯৯৯), মুহিবুর রহমান খান-এর কাব্যগ্রন্থ ‘লাল সাগরের ঢেউ’ (২০০১), অষ্টগ্রাম থানার আলীনগর গ্রামের ডা. ছাদেকউল্লাহ ও মোছাম্মাৎ তাহেরা খাতুনের ঔরসে ১৯৭৮ সালের ২ জানুয়ারি জন্ম নেন তরুণ লেখক জয়নাল আবেদীন মোল্লাহ। তার প্রকাশিত কবিতার বই ‘উদাস নীলিমা’ (১৯৯৭)।

অষ্টগ্রাম থানার কাস্তুল গ্রামে পিতা মো. তৈয়ব আলী ও মাতা মোছা. খোশনাহার বেগমের ঔরসে ১৯৭৭ সালের ২০ মে জন্ম নেন নজরুল ইসলাম সাগর। তিনি একজন তরুণ কবি। তার প্রকাশিত কাব্যের নাম ‘গাং শালিকের ভীড়ে’ (১৯৯৭)। নিকলী থানার দক্ষিণ জল্লাবাদ গ্রামে ১৯৭৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর জন্ম নেন মুহাম্মদ এনামুল হক জল্লাবাদী। তার পিতার নাম মো. আজিজুল হক এবং মাতার নাম নূরুন্নাহার। তার প্রকাশিত বইয়ের নাম ‘এনজিওদের ষড়যন্ত্রের কবলে বাংলাদেশ’।

সুবীর বসাক সত্তর দশকের একজন লব্ধ প্রতিষ্ঠিত ছড়াকার। কিশোরগঞ্জে শহরের বত্রিশ এলাকায় তার জন্ম। একসময় প্রচুর ছড়া লিখেছেন। মাঝে অনেকদিন বিরতি দিয়ে গত ক’বছর ধরে আবার লেখালেখিতে সক্রিয় হয়েছেন। তার লেখা ছড়া বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে প্রকাশ পেয়ে থাকে। তিনি ‘দৈনিক ইত্তেফাক’-এর কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত আছেন।

কিশোরগঞ্জের সাহিত্য অঙ্গন কখনোই দরিদ্র ছিল না। কালে-কালে রসোত্তীর্ণ সাহিত্য রচনার ক্ষেত্রে বহু লেখক ও স্বনামধন্য কবি-সাহিত্যিক এ জেলায় জন্ম নিয়েছেন। ১৯৩৫ সালে পাকুন্দিয়ায় অনুষ্ঠিত পল্লীসাহিত্য সম্মেলনে জ্ঞানতাপস ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়েছিলেন। পল্লীকবি জসিমউদ্দীন, ড. কাজী মোতাহার হোসেন চৌধুরীসহ অনেক গুণী সাহিত্যিক এ জেলায় বিভিন্ন সময় আগমন করেছেন।

অতীতের সমৃদ্ধ ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় এ জেলার সাহিত্যপ্রেমিক তরুণ প্রজন্ম এখানকার শিল্প-সাহিত্যের জমিনকে উর্বর থেকে উর্বরতর করে তুলেছেন। এ উর্বরতা ভেদ করে আগামীতে অবশ্যই কালোত্তীর্ণ সাহিত্যের সোনালী ফসল জাতির সাহিত্যভাণ্ডারকে কিছুটা হলেও পূর্ণতা দিতে পারবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

কৈফিয়ত: এ রচনা কিছুতেই কিশোরগঞ্জ জেলার সামগ্রিক সাহিত্যের বিবরণ নয়। এ রচনা অনেকের নাম, বইয়ের নাম তথ্যপ্রাপ্তির অভাবে লিপিবদ্ধ করা যায়নি। ভবিষ্যতে অন্য কেউ এ বিষয়ে বিশদ অনুসন্ধানের মাধ্যমে বিস্তারিত তুলে ধরবেন বলে আশা করি।

আগামী পর্ব: কিশোরগঞ্জের ছড়া, ছড়াকার ও ছড়ার গতি-প্রকৃতি




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর