কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভিন্ন প্রেক্ষাপটে এবার ব্যতিক্রম ঈদ উৎসব পালন


 মাজহার মান্না | ২৫ মে ২০২০, সোমবার, ৩:২৮ | মত-দ্বিমত 


সবাইকে ঈদ মোবারক। সুদৃশ্য পৃথিবী অদৃশ্য শত্রুর কাছে আজ ধরাশায়ী। নভেল করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে দেশে যখন চারিদিকে বাড়ছে চাপা কান্নার রোল তখন ভিন্ন বাস্তবতায় এবার উদ্যাপিত হচ্ছে মুসলিম উম্মাহ সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদ-উল-ফিতর।

এক মাস রোজা রাখার পর খুশির ঈদ এলেও মহামারি করোনার কারণে তা নিরানন্দ হয়ে গেছে। ঈদের খুশির বদলে মানুষের মনে আতঙ্ক আর নানা দুশ্চিন্তা ভর করেছে। এ পরিস্থিতিতে মসজিদে মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন মুসল্লিরা।

তবে অন্যবার ঈদের নামাজ শেষে একজন আরেকজনের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগ করে নেয়ার যে দৃশ্য দেখা যেত এবার তা দেখা যায়নি। নামাজ শেষে বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বের মানুষকে করোনা মহামারি থেকে রক্ষায় মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করা হয়। পাশাপাশি যে কোনো বিপদ থেকে দেশকে হেফাজতের জন্য প্রার্থনা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোলাকুলি ও হাত মেলাতে মানা থাকায় সেগুলো মেনেই ঈদের নামাজ আদায় করেছেন মুসল্লিরা। নামাজ শেষে কাউকেই দেখা যায়নি হাত মেলানো বা কোলাকুলি করতে। অনেকেই একটু কষ্ট মনে নিয়েই ফিরেছেন ঘরে। ফলে এবারের ঈদ পালিত হচ্ছে একেবারেই ভিন্ন আঙ্গিকে ভিন্ন প্রেক্ষাপটে।

বৈশ্বিক করোনা মহামারির জন্য ঈদ উপলক্ষে চারিদিকে আনন্দ-উৎসবে মুখর চিরচেনা সেই আনন্দ নেই এবার। ঈদে বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজনকে দাওয়াত দেয়া দূরের কথা, করোনাভাইরাস সংক্রমণের ভয়ে কেউ যেন বাসায় প্রবেশ না করে সেদিকে লক্ষ্য সবার।

বিশেষ প্রয়োজনে কোনো আত্মীয় দরজায় কড়া নাড়লেও প্রয়োজনটা মিটিয়ে বাইরে থেকে বিদায় দিতে পারলে ভালো হয় এমন অবস্থা এখন। কেননা প্রতিনিয়ত সকলে আতঙ্ক আর উৎকণ্ঠায় করোনাকাল পার করছেন।

সময়টা এখন করোনার, কোভিড-১৯ আক্রান্তের শঙ্কায় বিশ্ববাসী। এ অবস্থায় সরকারের নির্দেশনায় এবারই প্রথম কিশোরগঞ্জের ২৭০ বছরের পুরোনো ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহে উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হয়নি।

ঈদের দিন ভোর থেকে বিশালায়তনের এ ঈদগাহ ময়দানে লাখো মানুষের পদচারণায় মুখর থাকতো, সেখানে এবারের ঈদে এমন নির্জনতা কেউ দেখেনি আগে। দেশে-বিদেশের লাখো লাখো মুসল্লির খোলা মাঠে একত্রে নামাজ আদায়ের যে অভূত দৃশ্য শোলাকিয়ায় চোখে পড়তো, তা যেন আজ অদৃশ্য শত্রুর কাছে পরাজিত। বৈশ্বিক করোনা মহামারির জন্য এবারের ঈদে ইতিহাসের নতুন সাক্ষী হয়ে থাকল এই শোলাকিয়া!

করোনার সাথে যুদ্ধের বাস্তবতার মধ্যেই এবার ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তান্ডবে নদীর নোনাজলে ঈদের দিন কাটছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উপকূলবাসীর। করোনা আতঙ্কের সঙ্গে ঘূর্ণিঝড় আম্পান মাটি চাপা দিয়ে গেছে তাদের শেষ আনন্দটুকুও।

ঈদ আসলে যেখানে আনন্দে মেতে উঠবার কথা, সেখানে দুর্গত এসব পরিবারে চলছে হাহাকার। এই ঈদে নেই উদযাপন। বরং নিরানন্দ আর মলিনতা নিয়েই অসহায় মানুষগুলো পার করছেন ঈদের দিনটি। তাদের সবার মনে যেন আজ বিরাজ করছে বিবর্ণ ঈদ।

ব্যতিক্রমধর্মী পরিবেশ ও প্রেক্ষাপটে এবার ঈদে আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে সরাসরি অনেকের দেখা সাক্ষাৎ হয়নি। দূরে থেকেও ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে প্রিয়জনদের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিচ্ছেন। কথা বলছেন ফোনে। দেখা করছেন ভার্চুয়ালি। এভাবেই এবার ঈদ উদ্যাপন করে সন্তোষ্ট থাকছেন সবাই।

সবশেষে দৃঢ় প্রত্যাশা, সংকটের দীর্ঘতম রজনী শেষে একসময় ভোরের আলো ফুটবে। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এ করোনাকাল অতিক্রম করে আমরা ফিরে যাবো স্বাভাবিক জীবনে। সেই দিনের জন্য আমাদের ধর্য্য ধারন ধরে অপেক্ষায় থাকতেই হবে।

এ জন্য করোনা মোকাবেলায় সকলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হবেন না। সুস্থ থাকুন, ভাল থাকুন। সবাইকে আবারও ঈদের শুভেচ্ছা।

# মাজহার মান্না: সাংবাদিক-লেখক ও কর আইনজীবী, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর