কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনা: ঘরবন্দী মধ্যবিত্ত পরিবারে হাহাকার


 মাজহার মান্না | ১ মে ২০২০, শুক্রবার, ১১:৩১ | মত-দ্বিমত 


নভেল করোনাভাইরাস মানুষের স্বাভাবিক জীবনচক্রকে ওলটপালট করে দিয়েছে। অদৃশ্য এ অনুজীবের সংক্রমণে জনজীবন বিপর্যন্ত। সবকিছুই স্থবির হয়ে পড়ায় অনেকের জীবনে এখন দুর্দিন চলছে।

এ অবস্থায় প্রতিনিয়ত তাদের সময় কাটছে একধরনের অনিশ্চয়তা আর উৎকণ্ঠার মধ্যদিয়ে। একপ্রকার বাধ্য হয়েই সিংহভাগ মানুষ বর্তমানে গৃহবন্দী অবস্থায় থাকায় দিশেহারাই শুধু নয়, কর্মহীনতার চরম সঙ্কটেও আবর্তিত।

এ ক্ষেত্রে মধ্যবিত্ত আর নিম্ন শ্রেণীর মানুষের জীবন বিপন্ন প্রায়। রুজি রোজগারে এসেছে এক অশনি সঙ্কেত। অনেকে অভাবে থেকেও মুখ ফোটে কারো কাছে বলতে পারছে না।

সমাজে এমন পরিবারের সংখ্যা নেহায়েত কম নয়। লজ্জায় হাত পাততে না পেরে তারা পরিবার নিয়ে নিদারুণ কষ্টে দিনাতিপাত করছেন। কবে এই দুঃসময়কে অতিক্রম করা যাবে তেমন নির্দেশনাও কেউই দিতে পারছে না।

করোনার আতঙ্কে সবাই সর্বক্ষণ শঙ্কিত। ঘরবন্দী মানুষ বর্তমানে চরম দুর্গতির মধ্যে পরিবার-পরিজনের দৈনন্দিন চাহিদা মেটাতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে অনেকের চাকরি হারানোর আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

শুধু তাই নয়, প্রাত্যহিক মজুরিতে বঞ্চিত শ্রেণী এখন বাড়িওয়ালারও কঠোর রোষানলে পতিত হচ্ছে। বিভিন্ন এলাকায় সময়মতো বাড়ি ভাড়া দিতে না পারায় মালিকদের দুর্ব্যবহারই শুধু নয়, ঘর থেকে বের করে দেয়ার হুমকিও জুটছে কপালে। অনেককে বের করেও দিয়েছে বাড়িওয়ালা। ফলে করোনাভাইরাসের চরম দুর্যোগে অসহায় মানুষগুলোর সর্বস্ব হারানোর ব্যথাও কম নয়।

কর্মক্ষম চাকরিজীবী যারা বেকার হয়ে বর্তমানে কষ্টে আছেন তাদের এখন প্রতিটি মূহুর্ত কাটছে এক তীব্র অনিশ্চয়তায়। হতদরিদ্রদের মাঝে প্রতিনিয়তই হানা দিচ্ছে খাদ্য সঙ্কটের মতো জৈবিক ক্ষুধা। যারা দিন এনে দিন খায় তাদের রুজি রোজগার আজ চরম হুমকির মুখে। ত্রাণ সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে সরকারের পক্ষ থেকে। সেটাও যে সবার ভাগ্যে জুটছে এমন নয়।

আবার যারা মধ্যবিত্ত, একটু সম্পন্ন মানুষ তারা ঘরের বাইরে এসে ত্রাণের জন্য হাত পাততেও বিব্রত হচ্ছেন। চাকরিজীবী মধ্যবিত্তরা, যারা মূলত বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত তাদের বেতন ভাতাও আটকে আছে মালিক পক্ষের কাছে।

স্বাস্থ্য আর জীবনের ঝুঁকিতে আজ বিপন্ন মানুষ। ঘরে বসে অবসর জীবনযাপন করতে অভ্যস্ত নয়, এমন বেকার হয়ে পড়া মানুষগুলো দিন কাটাচ্ছে অর্ধাহারে, অনাহারে। লাজে-শরমে বুক চেপে ক্ষুধার যন্ত্রণা বয়ে চলছে মধ্যবিত্ত পরিবারের সম্ভ্রান্ত ব্যক্তিরাও।

শুনেছি ইসলাম ধর্মে উল্লেখ আছে, ‘যারা কারো কাছে হাত পাততে পারে না, তাদেরকে খুঁজে খুঁজে দান করার কথা’। বর্তমান পরিস্থিতিতে কে কার খোঁজ নেবে! সবাই যেন হাশর মাঠের সাদৃশ্যে আছে। সবাই ভুক্তভোগী। গা ঢাকা দিয়ে আছে বিত্তবানরা। যদিও কিছুসংখ্যক লোক দানের সাময়িক মহড়া চালাচ্ছেন।

যাই হোক, তারা তো মাঠে আছেন। কিছু লোক কিছুদিনের জন্য হলেও তো উপকৃত হচ্ছে। নামের জন্যই হোক আর উদার হস্তেই হোক জীবন মরণ সংগ্রামে সবার দানই গুরুত্বপূর্ণ।

করোনার এমন আক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য শারীরিক জীবনীশক্তি সঞ্চয় অপরিহার্য। এটা তো আর উপোস থেকে হবে না। খাওয়া-পরা দরকার। এই খাওয়া-পরা জুটানোর কাজটি যিনি করছেন তিনি যে নিয়তেই দিক, তার একটি ভাল কাজ সম্পন্ন হচ্ছে বলে মনে করি। আশা করবো যারা এখনও ত্রাণ অনুদানে মাঠে নামেননি তারাও নামবেন এরূপ মহৎ কাজে।

আর তা না হলে নিজেরা কেউ সুখে থাকতে পারবেন না। করোনার প্রকোপে ও ক্ষুধার যন্ত্রণায় মানুষগুলো নেমে পড়বে লুটতরাজে আর হানাহানিতে। সেদিন কোনো হৃদয় বিদারক উপলব্ধি কারো কাজে আসবে না। আর তাই দেশ ও জাতিকে বাঁচাতে তথা প্রত্যকেই প্রত্যেককে বাঁচাতে সবার হৃদয়ে উদারতা প্রকাশের বোধহয় এখনই মোক্ষম সময়।

সরকারের পক্ষ থেকে দুস্থ ও নিম্নবিত্তের মাঝে নিত্যপণ্য সরবরাহের নিশ্চয়তা প্রদান করা হয়েছে। ঘরবন্দী মানুষের খাবার পাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা নিশ্চিত হলেও সবাই পাচ্ছে না বলেও অভিযোগ আছে। ফলে সাহায্য চাওয়ার জন্য নির্দিষ্ট হেলপ হটলাইন খোলা হয়েছে।

ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের পক্ষে হটলাইন ‘৩৩৩’ নম্বরে ফোন করে খাদ্য সহায়তা চাওয়া হলে তা ঘরে পৌঁছে দেয়ার কথা বলা হয়েছে। এতে সাময়িক ও তাৎক্ষণিক প্রয়োজন মিটলেও স্থায়ী ব্যবস্থাপনায় ফিরে যেতে ব্যর্থ হলে সমস্যার পুরোপুরি সুরাহা হতে কত সময় লাগবে কে জানে?

কথায় আছে, অভাব যখন কাছে আসে তখন আর হিতাহিত জ্ঞান কাজ করে না। তাদের অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সোচ্চার হয়েছেন। তবে এ ক্ষেত্রে অনেকের মতামত আবার ভিন্নতর। কেউ কেউ বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় মধ্যবিত্ত এসব মানুষদের প্রণোদনা দিয়ে অধিকার সুরক্ষার দাবি জানিয়েছে।

তারা সোস্যাল মিডিয়াসহ বিভিন্ন মাধ্যমে একে-অপরকে প্রশ্ন রাখছেন প্রণোদনা জাতীয় কিছু নেই? ক্ষুধার উন্মাদনাও নেই? কাউকে তো কিছু চাইতেও দেখছি না। ইশারা ইঙ্গিতে দু’একজন বলার চেষ্টা করলেও ঐ যাকে বলে হালকার ওপর ঝাঁপসা। পাছে কে কী মনে করল! তাহলে তো মানসম্মান গেল বলে! অবশ্য আমাদের দেশে এইরকম বলার লোকের অভাব নেই। এ বিষয়ে যথেষ্ট সন্দিহান!

# মাজহার মান্না: সাংবাদিক-লেখক ও কর আইনজীবী, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর