কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নতুন করে ৬৫ জনসহ মোট ২৮৯ জন কোয়ারেন্টাইনে


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৮ মার্চ ২০২০, শনিবার, ৪:২৭ | বিশেষ সংবাদ 


করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কিশোরগঞ্জে নতুন করে ৬৫ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। শনিবার (২৮ মার্চ) পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় এই ৬৫ জনকে কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জনের কার্যালয় সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

তথ্য অনুযায়ী, কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩টি উপজেলার মধ্যে সদর উপজেলায় ১ জন, তাড়াইলে ১ জন, কটিয়াদীতে ৩ জন ও ভৈরবে ৬০ জনকে নতুন করে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

এছাড়া এই ২৪ ঘন্টায় ১৬১ জন তাদের কোয়ারেন্টাইন সমাপ্ত করেছেন। তাদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৩ জন, হোসেনপুরে ৭ জন, করিমগঞ্জে ১ জন, তাড়াইলে ২ জন, পাকুন্দিয়ায় ৩ জন, কটিয়াদীতে ১৪ জন, কুলিয়ারচরে ১৩ জন, ভৈরবে ৯২ জন, বাজিতপুরে ১৩ জন, ইটনায় ৮ জন, মিঠামইনে ৩ জন ও অষ্টগ্রামে ২ জন তাদের কোয়ারেন্টাইন সমাপ্ত করেছেন।

এ নিয়ে কিশোরগঞ্জ জেলায় মোট কোয়ারেন্টাইনের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯৬১ জনে। তাদের মধ্যে মোট ৬৭২ জন তাদের কোয়ারেন্টাইন সমাপ্ত করেছেন।

বর্তমানে জেলায় মোট ২৮৯ জন কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। তাদের মধ্যে ৯ জন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে এবং বাকি ২৮০ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। তাদের সবাই বিদেশ ফেরত।

কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩টি উপজেলার মধ্যে বর্তমানে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ১১ জন, হোসেনপুরে ১৭ জন, করিমগঞ্জে ১১ জন, তাড়াইলে ১০ জন, পাকুন্দিয়ায় ১৯ জন, কটিয়াদীতে ৯৩ জন, কুলিয়ারচরে ১৮ জন, ভৈরবে ৭৭ জন, নিকলীতে ৬ জন, বাজিতপুরে ১৪ জন, ইটনায় ৫ জন, মিঠামইনে ৫ জন ও অষ্টগ্রামে ৩ জন কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।

এর মধ্যে অষ্টগ্রাম উপজেলার ৩ জনই প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে এবং ভৈরব উপজেলার ৫ জন ও নিকলী উপজেলার ১ জন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, কোয়ারেন্টাইনে থাকা প্রবাসীদের মধ্যে মোট ৬৭২ জন তাদের কোয়ারেন্টাইন সমাপ্ত করেছেন। এই সময়ে তাদের মধ্যে করোনা ভাইরাসের কোন লক্ষণ দেখা যায়নি।

এদিকে কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে, ১ মার্চ থেকে কিশোরগঞ্জ জেলায় বিদেশ প্রত্যাগতদের মোট সংখ্যা ৯৭৭ জন। তাদের মধ্যে মোট ৯৬১ জনের ঠিকানা ও অবস্থান চিহ্ণিত করা হয়েছে।

এই ৯৬১ জন বিদেশ প্রত্যাগতদের মধ্যে মোট ৯২৮ জন হোম কোয়ারেন্টাইন এবং ৩৩ জন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। তাদের মধ্যে হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকা মোট ৬৭২ জন তাদের কোয়ারেন্টাইন সমাপ্ত করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলায় কোভিড-১৯ এ এখন পর্যন্ত কোন আক্রান্ত নেই।

কোভিড-১৯ চিকিৎসায় প্রস্তুতি হিসেবে জেলার সরকারি হাসপাতালসমূহে মোট ৮৪টি বেড ও বেসরকারি হাসপাতালসমূহে মোট ১৭টি বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে মোট ৫৬২ জন চিকিৎসক ও ৬০১ জন নার্স প্রস্তুত রয়েছেন।

৩২৩টি ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী (পিপিই) মজুদ রয়েছে এবং ২৩৩টি বিতরণ করা হয়েছে।

এছাড়া কোভিড-১৯ আক্রান্ত ব্যক্তির জরুরী চিকিৎসায় স্থানান্তরের জন্য দুইটি অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখা হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর