কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বরেণ্য চলচ্চিত্র পরিচালক পাকুন্দিয়ার কৃতীসন্তান জীবন রহমান আর নেই


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, ১১:৫০ | বিশেষ সংবাদ 


ইচ্ছে ছিল দেশবাসীকে একটি গঠনমূলক সুন্দর চলচ্চিত্র উপহার দেয়ার। কিন্তু এই শেষ ইচ্ছেটি অপূর্ণ রেখেই না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন বরেণ্য চলচ্চিত্র পরিচালক জীবন রহমান (৫৬)। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে তিনি কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী পৌরসভার কটিয়াদী পূর্বপাড়া মহল্লায় বোনের বাসায় তিনি ইন্তেকাল করেছেন।

তিনি ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়া ছাড়াও দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিস, কিডনী ও লিভারের জটিলতায় ভুগছিলেন।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী তাহমিনা রহমান মিতু ও একমাত্র মেয়ে তানজিনা রহমান মীম এবং অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) বাদ জুমআ নিজ গ্রাম  পাকুন্দিয়া উপজেলার মঠখোলা গ্রামে নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁকে সমাহিত করা হয়।

জীবন রহমানের চলচ্চিত্র জগতে পদযাত্রা শুরু ৯০ দশকের শুরুতে। তার পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র ‘গহর বাদশা বানেছা পরী’। প্রথম ছবিই সুপারহিট হয়। এতে সাড়া পড়ে যায় রূপালী ফিতার রঙিন ভুবনে।

এরপর একে একে বেশ কিছু ব্যবসাসফল ছবি নির্মাণ করে চলচ্চিত্র জগতে এক খ্যাতিমান পরিচালক হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেন জীবন রহমান।

তার নির্মিত ১৫টি ছবিই ব্যবসা সফল হয়েছে। সুস্থ ধারার চলচ্চিত্র ‘মহাসংগ্রাম’ এর জন্য ২০০৫ সালে তারুণ্য যুব কল্যাণ সংঘ জীবন রহমানকে শ্রেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে ভাসানী স্মৃতি পুরস্কার প্রদান করে।

জীবন রহমান ১৯৬৪ সালে পাকুন্দিয়া উপজেলার মঠখোলা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পাকুন্দিয়া হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাস করে ঢাকা কমার্স কলেজ থেকে এইচএসসি এবং বিকম পাশ করেন তিনি।

সে সময় চলচ্চিত্র পরিচালক খসরু নোমানের সাথে পরিচয় হয়। সেই সুবাদে ধীরে ধীরে তিনি চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করেন। ১৯৮২ সালে খসরু নোমানের সহকারী হিসাবে নাম লেখান চলচ্চিত্র জগতে। নির্মাণ করেন ‘সোহেল রানা’।

এরপর দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, কাজী হায়াৎ সহ বেশ কয়েকজন পরিচালকের সাথে চলচ্চিত্র নির্মাণে কাজ করেন এবং পাশাপাশি অভিনয় করেন।

৯০ দশকের শুরুর দিকে তার পরিচালনায় ‘গহর বাদশা বানেছা পরী’ চলচ্চিত্র নির্মিত হয়। এটি তার পরিচালনায় প্রথম চলচ্চিত্র। প্রথম ছবিতেই তার অভাবনীয় সাফল্য সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায় তাকে।

এছাড়া তিনি  মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় মুক্তিযুদ্ধের দুটি ডকুমেন্টারী নির্মাণ করেছেন, যা ব্যাপক ভাবে প্রশংসিত হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর