কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


একদিনে কিশোরগঞ্জের চার উপজেলায় চার খুন


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২১ আগস্ট ২০১৯, বুধবার, ৬:১৯ | বিশেষ সংবাদ 


ছবি: বামে কিশোরগঞ্জ সদরের ঘাতক মেয়ের জামাই হাবিবুল, ডানে পাকুন্দিয়ার ঘাতক ছোট ভাই কেজি মতি।

একদিনে কিশোরগঞ্জ জেলার চার উপজেলায় চারটি পৃথক হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (২১ আগস্ট) সকাল সোয়া ৬টা থেকে থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত সময়ের মধ্যে জেলার করিমগঞ্জ, মিঠামইন, কিশোরগঞ্জ সদর ও পাকুন্দিয়া উপজেলায় এই চারটি খুনের ঘটনা ঘটে।

এর মধ্যে করিমগঞ্জে চাচাতো ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে একজন, মিঠামইনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতির লোকজনের বল্লমের আঘাতে একজন, কিশোরগঞ্জ সদরে মেয়ের জামাইয়ের ছুরিকাঘাতে শাশুড়ি এবং পাকুন্দিয়ায় ছোট ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে বড় ভাই খুন হয়েছেন। এছাড়া এসব ঘটনায় অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে।

চার উপজেলার চারটি হত্যাকাণ্ডের মধ্যে তিনটি হত্যাকাণ্ডেরই ঘাতকদের আটক করেছে পুলিশ। এর মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদরে ঘাতক মেয়ের জামাই হাবিবুল ইসলাম (২৫), পাকুন্দিয়ায় ঘাতক ছোট ভাই শামসুল মুসলিমিন মতি ওরফে কেজি মতি (৫৫) এবং করিমগঞ্জে মূল অভিযুক্ত চাচাতো ভাই সবুজ মিয়া (৫০) সহ ৬জন পুলিশের হাতে আটক হয়েছে।

বুধবার (২১ আগস্ট) সকাল সোয়া ৬টার দিকে পাকুন্দিয়া উপজেলার জাঙ্গালিয়া ইউনিয়নের চরটেকী গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ছোট ভাই শামসুল মুসলিমিন মতি ওরফে কেজি মতির ছুরিকাঘাতে ব্যবসায়ী বড় ভাই আলী আসগর মোস্তফা মুকুল (৬২) খুন হয়েছেন। নিহত আলী আসগর মোস্তফা মুকুল এবং ঘাতক শামসুল মুসলিমিন মতি ওরফে কেজি মতি চরটেকী গ্রামের মৃত হারুন অর রশীদের ছেলে। এ ঘটনায় ঘাতক মতিকে এলাকাবাসীর সহায়তায় আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার (২১ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মিঠামইন উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের ভরা নয়াহাটি গ্রামে গোষ্ঠীগত দ্বন্দ্বের জের ধরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতির লোকজনের হামলায় বল্লমের আঘাতে শাহজাহান মিয়া (৫৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরো অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। নিহত শাহজাহান মিয়া ভরা নয়াহাটির মৃত ধন মিয়ার ছেলে।

বুধবার (২১ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার দানাপাটুলী ইউনিয়নের দানাপাটুলী পশ্চিম পাড়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে মেয়ের জামাই হাবিবুল ইসলাম (২৫) এর ছুরিকাঘাতে হাতে শাশুড়ি মোছা. হালিমা খাতুন (৫০) খুন হয়েছেন। এ সময় শাশুড়ির কোলে থাকা ঘাতক জামাইয়ের তিন বছর বয়সী শিশু আনন্দ হোসেন বাবার ছোরার আঘাতে আহত হয়।

ঘটনার পর পরই স্থানীয় জনতার সহায়তায় পুলিশ ঘাতক মেয়ের জামাই হাবিবুল ইসলামকে আটক করে। ঘাতক হাবিবুল ইসলাম কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার দানাপাটুলী ইউনিয়নের মনোহরপুর গ্রামের মৃত কালাম উদ্দিনের ছেলে। অন্যদিকে নিহত মোছা. হালিমা খাতুন দানাপাটুলী পশ্চিম পাড়ার সৌদি প্রবাসী মো. সায়াম উদ্দিনের স্ত্রী।

সর্বশেষ বুধবার (২১ আগস্ট) বেলা আড়াইটার দিকে করিমগঞ্জ উপজেলার সুতারপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ সুতারপাড়া গ্রামে ছোটদের খেলাকে কেন্দ্র করে চাচাতো ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে সুলাল মিয়া (৫২) নামে এক ব্যক্তি খুন হয়েছেন। এছাড়া আরো একজন আহত হয়েছে। নিহত সুলাল মিয়া দক্ষিণ সুতারপাড়ার মৃত আব্দুল হামিদের ছেলে। এ ঘটনায় পুলিশ মূল অভিযুক্ত চাচাতো ভাই সবুজ মিয়াসহ ৬জনকে আটক করেছে। সবুজ গ্রামের নজিম উদ্দিনের ছেলে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর