কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দুঃসহ স্মৃতি আজও ভুলতে পারেনি শোলাকিয়াবাসী


 স্টাফ রিপোর্টার | ৭ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ৭:২৬ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহের চেকপোস্টে ঈদুল ফিতরের দিন জঙ্গি হামলার তিন বছর পূর্তি আজ। ২০১৬ সালের ৭ জুলাই এই হামলার ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্য এবং এলাকার এক গৃহবধূ নিহত হন। এছাড়া বন্দুকযুদ্ধে এক জঙ্গি ঘটনাস্থলে নিহত হয়।

দেশের ইতিহাসে গুলশানের হলি আর্টিজানে অস্ত্রধারী জঙ্গিদের ভয়াবহ হামলার ৬ দিন পর শোলাকিয়ায় এই রক্তাক্ত হামলার ঘটনা ঘটেছিল।

ওই দিন জামাতের আগে শোলাকিয়া ঈদগাহের প্রায় আধাকিলোমিটার দূরে চরশোলাকিয়া এলাকার সবুজবাগ মোড়ে মুফতি মোহাম্মদ আলী জামে মসজিদের সামনে অবস্থানরত পুলিশ সদস্যদের ওপর বোমা হামলার পর দুই পুলিশ সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা করে জঙ্গিরা।

ঘটনার পর পুলিশ-র‌্যাবের সম্মিলিত প্রতিরোধে হামলায় অংশ নেয়া দুই জঙ্গির একজন নিহত ও আরেকজন আহত অবস্থায় আটক হয়। ভয়ংকর সেই জঙ্গি হামলার দুঃসহ স্মৃতি আজও ভুলতে পারেনি এলাকার মানুষ। সেই দিনটির কথা মনে হলে ভয়ে আঁতকে ওঠে শোলাকিয়ার মানুষ।

এদিকে ৩ বছর পার হলেও এ ঘটনায় করা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ এখনো শুরু হয়নি।

জানা গেছে, আলোচিত এই ঘটনার পর এর রহস্য উন্মোচন করে গত বছরের ১২ সেপ্টেম্বর ঘটনায় বিভিন্নভাবে সম্পৃক্ত ২৪ জনের নাম উল্লেখ করে আদালতে চার্জশিট দেয় পুলিশ। অভিযুক্তদের মধ্যে ১৯জন বিভিন্ন স্থানে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় মামলা থেকে তাদের অব্যাহতি দেয়া হয়।

এর পর গত বছরের ২৮ নভেম্বর অভিযুক্ত পাঁচ আসামি জঙ্গি নেতা বড় মিজান, রাজিব গান্ধী, সোহেল মাহফুজ, আনোয়ার হোসেন ও স্থানীয় যুবক জাহিদুল হক তানিমের বিরুদ্ধে  অভিযোগ গঠন করে আদালত।

সবুজবাগ চরশোলাকিয়া এলাকার নিরিবিলি একটি গলি। শোলাকিয়া ঈদগাহের উত্তর-পশ্চিম কোণায় এর অবস্থান। গলিটার পশ্চিম দিকের শেষ মাথায় মুফতি মোহাম্মদ আলী মসজিদ। এই মসজিদের সামনেই টহলরত পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছিল জঙ্গিরা। প্রথমে বোমা হামলা। পরে চাপাতি দিয়ে দুই পুলিশকে কুপিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে দুই জঙ্গি।

প্রথমে বোমা হামলা যখন করা হয় পুলিশ ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। যে যার মতো প্রাণ রক্ষার চেষ্টা করে। দুই পুলিশ সদস্য কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম ও কনস্টেবল আনসারুল হক বোমার স্পৃন্টারে আহত হয়ে মাটিতে পড়ে যান। এ সময় আহত দুই পুলিশকে চাপতি দিয়ে কোপায় জঙ্গিরা।

এ ঘটনার একাধিক ভিডিও হয় আশপাশের কয়েকটি বাসার তিন তলা ও পাঁচতলা থেকে। এছাড়া একটি বাসার সিসি ক্যামেরায়ও ধরা পড়ে হামলার ঘটনা।

পরে পুলিশ-র‌্যাব এসে প্রায় তিন ঘন্টা গোলাগুলি করে আবির রহমান নামে এক জঙ্গিকে নিহত করে ও আরেক শরীফুল ইসলাম ডন নামে আরেক জঙ্গিকে আহত অবস্থায় আটক করে।

ঘটনার দিন দু’পক্ষের গোলাগুলির সময় সবুজবাগ গলির বাসার ভেতরে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন ঝর্ণা রাণী ভৌমিক নামের এক গৃহবধূ। এছাড়া গুরুতর আহত হন আট পুলিশ সদস্য।

পরবর্তী সময়ে সরকার ও পুলিশের পক্ষ থেকে নিহত দুই পুলিশের পরিবারকে বিভিন্ন সময় নগদ অর্থ অনুদানসহ বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা দেওয়া হয়। আহতদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়।

রোববার (৭ জুলাই) দুপুরে এ প্রতিবেদক গিয়েছিলেন সবুজবাগ গলিতে। গলিটার নাম এখন ‘ঝর্ণারাণী ভৌমিক সড়ক’।  গলির ভেতরে বিভিন্ন বাসার দেয়ালে এখনো গুলির চিহ্ন। এগুলো এখনো মুছেনি।

এলাকাবাসী ভুলতে পারছেন না সেই দুঃসহ স্মৃতি। সেই ভৌমিক নিবাসে এখনো শোকের আবহ। যে জানালাটা ভেদ করে গুলি ভেতরে গিয়ে ঝর্না রাণী মারা যান, জানালাটার পাশে টানানো ঝর্না রাণীর ছবি। নিচে লেখা ‘৭ জুলাইয়ের স্মৃতি’।

শুধু ঝর্ণা রানী ভৌমিকের পরিবারের সদস্যরা নয়, সেই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় এলাকাবাসীও এখনো ভুলতে পারেনি সেদিনের দুঃসহ স্মৃতি।

স্থানীয় বাসিন্দা হাফিজুর রহমান রেনু জানান, এখনো সেদিনের কথা মনে হলে তাঁরা আঁতকে ওঠেন। বিশেষ করে শিশুদের মন থেকে এই ঘটনার স্মৃতি দূর হচ্ছে না কিছুতেই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর