কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বিস্মৃতপ্রায় কবি আজহারুল ইসলাম


 ড. মাহফুজ পারভেজ | ৩ আগস্ট ২০২১, মঙ্গলবার, ১০:৪৫ | বিশেষ সংবাদ 



কবি আজহারুল ইসলাম (১৯১০-১৯৯৭)

কলকাতায় বিখ্যাত আজাদ পত্রিকায় তিনি সাংবাদিকতা করতেন। পাকিস্তান সৃষ্টির পর ঢাকায় আসেন তিনি। আজাদ পত্রিকাতেই মওলানা আকরাম খানের সঙ্গে কাজ করেন। পাঠ্যপুস্তকে তার কবিতা সে আমলে অন্তর্ভুক্ত ছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর পরই কিশোরগঞ্জ শহরে বসবাস শুরু করেন তিনি। 'কবি সাহেব' নামে শহরের সবাই ভদ্রলোককে সম্মান করতেন। তিনি আজহারুল ইসলাম।

তখনই তাঁর যথেষ্ট বয়স। ছোট্ট শহরে একাকী হেঁটে বেড়ান। পাবলিক লাইব্রেরিতে যান নিয়মিত। বিদগ্ধ অধ্যাপক ও সুধীজনের মাঝখানে মগ্ন থাকেন তিনি।

খুবই কম জানতাম তাঁর সম্পর্কে যদি না প্রখ্যাত সাংবাদিক আখতার-উল আলম বিস্তারিত না বলতেন। মধ্য আশি দশকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার সময় সাংবাদিকতায় যুক্ত হওয়ার সুবাধে ঢাকার তখনকার জনপ্রিয় দৈনিক ইত্তেফাকে অনেকের মতো তাঁর সান্নিধ্য লাভের সুযোগ ঘটে। তিনি তখন ইত্তেফাকের ভারপ্রাপ্ত সম্পদক। একদিন বললেন, 'তোমাদের কিশোরগঞ্জ যাবো। সেখানে ঈশা খাঁ'র রাজধানী জঙ্গলবাড়ি, দূর্গ এগারসিন্ধু, কবি চন্দ্রাবতীর স্মৃতি মন্দির দেখবো। তুমি সঙ্গে চলো।'

আখতার-উল আলম সাহেবের ছিলো ঐতিহ্য প্রীতি। তুলনামূলক ডান ঘরানার মানুষ হিসেবে পরিচিত ছিলেন তিনি। ইত্তেফাকের আগে আজাদে তিনি কাজ করেছিলেন।

সে আমলে যাতায়াতের অবস্থা মোটেও ভালো ছিল না। ভাড়া করার জন্য গাড়িও পাওয়া যেতো না। এতো ব্র্যান্ড আর মডেলও তখন ছিলো না। ফলে শিল্পপতি জহুরুল ইসলামের বরাতে ইসলাম চেম্বারের কর্মকর্তাদের জন্য বরাদ্দকৃত গাড়ির বহর থেকে একটি টু-ডোর টয়োটা পাবলিকা তিন দিনের জন্য নিয়ে ছুটলাম নিজের শহর কিশোরগঞ্জে।

কিশোরগঞ্জে ইত্তেফাকের স্থানীয় সংবাদদাতা সুবীর বসাক যুক্ত হলেন কাফেলায়। আলম সাহেবে মনের আনন্দে ঘুরে বেড়ালেন প্রত্ন, ইতিহাস ও সংস্কৃতি ঘনিষ্ঠ স্থানগুলোতে। ফিরে আসার আগে তিনি বললেন, 'এখানে কবি আজহারুল ইসলাম সাহেব থাকেন। চলো দেখা করে আসি।'

নিয়ে গেলাম কবি সাহেবের স্টেশন রোডস্থ সদর থানা সংলগ্ন বাসায়। সাদরে আমন্ত্রণ জানালেন কবি সাহেব তাঁর একদার স্নেহভাজন সহকর্মীকে। আলম সাহেব খুবই শ্রদ্ধার সঙ্গে কথা বললেন। আজাদের পুরনো দিনগুলোর কথা হলো। অনেক স্মৃতির আদান-প্রদান করলেন দুইজনেই। কথা বেশি বলছিলেন আলম সাহেবই। স্বল্পভাষী কবি শুনছিলেন বেশি আর মাঝেমাঝে সম্মতিতে মাথা নাড়ছিলেন।

আলম সাহেব সবার সামনেই স্বীকার করলেন, পাকিস্তান আমলের প্রবীণ সাংবাদিকদের একজন ছিলেন আজহার সাহেব। কবি হিসেবেও তখন তাঁর প্রসিদ্ধি ছিল। এ রকম নানা কথা চুপ করে অনেকক্ষণ শুনলেন কবি সাহেব। মুচকি হাসলেন। তারপর হঠাৎ বললেন, 'রংপুরের লোকজন বিশেষ ভালো না। তবে আখতার-উল আলম ভালো লোক।'

কথাটা শুনে উপস্থিত সবাই এবং রংপুরবাসী আখতার-উল আলম প্রাথমিকভাবে চমকে উঠলেন। খানিক স্তব্ধতার পর কবি সাহেবের সূক্ষ্ম রসিকতায় সবাই অট্টহাসিতে ঘর কাঁপিয়ে দিলেন। তখন এরশাদ নির্মম সামরিক স্বৈরশাসনের জন্য কুখ্যাত। ভারতের কুচবিহার থেকে রিফিউজি হিসেবে রংপুরে আশ্রয় গ্রহণকারী এরশাদের বিষয়টি নামোল্লেখ না করেও বলার ধরনে সবাই চমৎকৃত হলেন।

শেষ জীবন কিশোরগঞ্জের ইতিহাস, ঐতিহ্য আর প্রকৃতির সঙ্গে একাকার হয়ে কবি আজহারুল ইসলাম ৮৭ বছর বয়সে পরলোকগমন করেন ২ আগস্ট ১৯৯৭ সালে। তাঁর জন্ম ১৪ মার্চ ১৯১০। পৈএিক নিবাস হোসেনপুর উপজেলার জগদল গ্রাম। নিভৃতিতে পেরিয়ে গেলো বিস্মৃতির অতলে থাকা এই কবির ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী।

কবির প্রকাশিত গ্রন্থসমূহের সংখ্যা মোটেও কম নয়। এরমধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য: অনুবাদকর্ম 'রুবাইয়াত ই সাইফুদ্দিন বাখারজী', যা প্রকাশিত হয় ১৯৩৮ সালে অবিভক্ত ব্রিটিশ বাংলায়। পাকিস্তান আমলে প্রকাশ পায় 'মনিরার বিরাগ' (১৯৫২), 'ছায়াপথ' (১৯৬৫), 'ভগ্নাংশ' (১৯৬৭) এবং স্মৃতি ও ইতিহাস বিষয়ক গ্রন্থ 'কিশোরগঞ্জ আমার কিশোরগঞ্জ'। স্থানীয় ইতিহাসবিদ মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন শাহজাহান কবির জীবন ও কর্ম ভিত্তিক 'ঐতিহ্য ও প্রকৃতির কবি আজহারুল ইসলাম' শীর্ষক গ্রন্থ রচনা করেছেন।

কবি আজহারুল ইসলাম ঐতিহ্যপন্থী ও মুসলিম স্বাতন্ত্রিক মতাদর্শের মানুষ হলেও সাহিত্য সাধনা ও ব্যক্তিগত জীবনে ছিলেন উদার, ধর্মনিরপেক্ষ ও অসাম্প্রদায়িক মনোভাব সম্পন্ন। কিশোরগঞ্জের নাগরিক সমাজে ধর্ম, বর্ণ, রাজনীতির ঊর্ধে তিনি ছিলেন সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য, সম্মানের ও আদরণীয়।

কবির কোনও পুত্র ছিল না। তবে তাঁর একাধিক কন্যা শহরের সাংস্কৃতিক-নাগরিক জীবনের উজ্জ্বল মুখ হিসেবে পরিচিত ছিল। কলকাতা, ঢাকা ইত্যাদি বড় শহরে পারিবারিকভাবে বসবাসের অভিজ্ঞায় তাদের নান্দনিক বিভা ও দ্যুতি সুস্পষ্টভাবে বিচ্ছুরিত হতো মফস্বল শহরের কাঠামোয়।

তাঁর এক মেয়ে উলফাত আমার বোনের সহপাঠী ও পরবর্তীতে চিকিৎসক। কবি-কন্যা নুসরাত কিশোরগঞ্জ কিন্ডারগার্টেন নামে প্রসিদ্ধ 'সরকারি আদর্শ শিশু বিদ্যালয়'-এ প্রাথমিক শিক্ষাকালে আমার সহপাঠী ছিলো সত্তর দশকে।

তখন সে স্কুল থেকে আমরা আটজন ট্যালেন্টপুলে প্রাইমারি বৃত্তি পেয়ে পুরো কিশোরগঞ্জে আলোড়ন সৃষ্টি করে ছিলাম। এক স্কুল থেকে এতোজনের বৃত্তি পাওয়ার বিষয়টি ছিল একটি রেকর্ড। বৃত্তিপ্রাপ্ত আট জনের চারজন ছেলে আর চারজন মেয়ে। আমি ছাড়া বাকী তিনজন ছিল শাহ আবদুল বাসেত (কিশোরগঞ্জের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী), ওমর ফারুক জুয়েল (বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কিডনি বিভাগের চিকিৎসক), কামরুজ্জামান (অজ্ঞাত)।

মেয়েদের মধ্যে নুসরাত ছাড়া অন্যরা ছিল সার্কেল অফিসার ওয়াজিউল্লাহ সাহেবের কন্যা নাসরিন জুলফিকার রিনা (অ্যাপেলো হাসপাতালে কর্মরত), স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা খালেদা আপার কন্যা নাসরিন ইসলাম পপি (কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়), শিক্ষক বি.কে. রায়ের কন্যা স্নিগ্ধা রায় মিঠু (জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়)।

নুসরাত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চশিক্ষা শেষ করে সরকারি চাকরিতে যোগ দেন। তবে কিছুদিন পর ক্যান্সারে তার মৃত্যু হয়। কবির মৃত্যুবার্ষিকীতে কবি-কন্যাকেও স্মরণ করি।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর