কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে করোনায় ১ জনের মৃত্যু, ১২৩ জনের শনাক্ত, সৈয়দ নজরুল মেডিকেলে রেকর্ড রোগী


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৩১ জুলাই ২০২১, শনিবার, ১১:৩৮ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতির অবনতি ঘটেই চলেছে। সর্বশেষ শনিবার (৩১ জুলাই) রাতে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, জেলায় নতুন করে ১২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আগের দিন শুক্রবার (৩০ জুলাই) ১৪১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

সর্বশেষ এ রিপোর্টে মোট ৪০৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় মোট ১২৩ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। এর বিপরীতে এদিন জেলায় মোট ৬৮ জন সুস্থ হয়েছেন। এছাড়া জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

সর্বশেষ মারা যাওয়া ব্যক্তি একজন নারী (৪৫)। তিনি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বাসিন্দা।

তিনি কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

হাসপাতালটিতে বর্তমানে একদিনে সর্বোচ্চ ২২৯ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন।

ফলে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বর্তমান রোগীর সংখ্যা ৫৪ জন বেড়েছে।

আগের দিন শুক্রবার (৩০ জুলাই) জেলায় করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ছিল ২৩২২ জন। এখন জেলায় বর্তমান রোগীর সংখ্যা মোট ২৩৭৬ জন।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাব থেকে গত সোমবার (২৬ জুলাই), মঙ্গলবার (২৭ জুলাই), বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) ও শনিবার (৩১ জুলাই) পাওয়া ১৮৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৯২ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

মোট ৪০৩ জনের নমুনার মধ্যে বাকি ২১৬ জনের নমুনা বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাব ও রেপিড এন্টিজেন টেস্টের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয়। এতে মোট ৩১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে শুক্রবার (৩০ জুলাই) ১৫৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ২২ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এছাড়া শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ৬১ জনের রেপিড এন্টিজেন টেস্টে ৯ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া মোট ১২৩ জনের মধ্যে ভৈরব উপজেলায় সর্বোচ্চ ৫৬ জন শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া বাকি ৬৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ১০ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৪০ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ২ জন, নিকলী উপজেলায় ১ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৮ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১ জন শনাক্ত হয়েছে।

নতুন সুস্থ হওয়া ৬৮ জনের মধ্যে ৬২ জন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার।

এছাড়া বাকি ৬ জনের মধ্যে কুলিয়ারচর উপজেলার ১ জন ও মিঠামইন উপজেলার ৫ জন রয়েছেন।

মোট শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে বর্তমানে আক্রান্ত ও সন্দেহজনক মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২২৯ জন যাদের মধ্যে ১০ জন আইসিইউতে এবং ১৫ জন এইচডিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ৪৭ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং ১৭ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

হাসপাতালটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৯১৩৭ জন শনাক্ত, ৬৬০৭ জন সুস্থ এবং ১৫৪ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ২৩৭৬ জন। তাদের মধ্যে ৯৫ জন হাসপাতালে ও ২২৮১ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ২৩৭৬ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৮৫৪ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ১৭২ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৪৪ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৩৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২৩৬ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৩৬৪ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৪৯ জন, ভৈরব উপজেলায় ৩৪৪ জন, নিকলী উপজেলায় ৪২ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১৫০ জন, ইটনা উপজেলায় ২৭ জন, মিঠামইন উপজেলায় ২৪ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৩৫ জন রয়েছেন।

জেলায় মোট মৃত্যু ১৫৪ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৫৫ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৮ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৯ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৯ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৭ জন, ভৈরব উপজেলায় ২৯ জন, নিকলী উপজেলায় ৭ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১২ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন এবং মিঠামইন উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

জেলার একমাত্র অষ্টগ্রাম উপজেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোন মৃত্যু নেই।

এদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৭৬ হাজার ৬৬৫ জন কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন।

অন্যদিকে গত ৮ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত মোট ৫৯ হাজার ৩০৭ জন এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

এরপর গত ১৯ জুন থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৪২ হাজার ৭৭৭ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৩৫৮০ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

এছাড়া গত ২৬ জুলাই থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৮০৪ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৬০ জন এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

এ পর্যন্ত মোট ২ লাখ ১ হাজার ৪৮১ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ২৯২০ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য কিশোরগঞ্জ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর