কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে বিপজ্জনক করোনা পরিস্থিতি, আরো ৩ জনের মৃত্যু, ১৪১ জনের শনাক্ত


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৩০ জুলাই ২০২১, শুক্রবার, ১১:২৯ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতির অবনতি ঘটেই চলেছে। সর্বশেষ শুক্রবার (৩০ জুলাই) রাতে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, জেলায় নতুন করে ১৪১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আগের দিন বুধবার (২৮ জুলাই) ১৫৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

সর্বশেষ এ রিপোর্টে মোট ৬১১ জনের নমুনা পরীক্ষায় মোট ১৪১ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। এর বিপরীতে এদিন জেলায় মোট ৩৩ জন সুস্থ হয়েছেন। এছাড়া জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

সর্বশেষ মারা যাওয়া ৩ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ১ জন, হোসেনপুর উপজেলার ১ জন ও ভৈরব উপজেলার ১ জন রয়েছেন।

করোনায় মারা যাওয়া তিনজনই পুরুষ।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার একজন (৭২), হোসেনপুর উপজেলার একজন (৯০) ও ভৈরব উপজেলার একজন (৭৫)।

মারা যাওয়া ৩ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর ও হোসেনপুর উপজেলার দুইজন কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

এছাড়া ভৈরব উপজেলায় নিজবাড়িতে মৃত্যুবরণ করেছেন।

ফলে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বর্তমান রোগীর সংখ্যা ১০৫ জন বেড়েছে।

আগের দিন বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) জেলায় করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ছিল ২২১৭ জন। এখন জেলায় বর্তমান রোগীর সংখ্যা মোট ২৩২২ জন।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাব থেকে গত সোমবার (২৬ জুলাই), মঙ্গলবার (২৭ জুলাই), বুধবার (২৮ জুলাই) ও শুক্রবার (৩০ জুলাই) পাওয়া ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৫৯ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

মোট ৬১১ জনের নমুনার মধ্যে বাকি ৪২৩ জনের নমুনা বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাব ও রেপিড এন্টিজেন টেস্টের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয়। এতে মোট ৮২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) ১৬৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৭ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এছাড়া শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং হোসেনপুর, তাড়াইল, পাকুন্দিয়া, কটিয়াদী, কুলিয়ারচর, ভৈরব, নিকলী, বাজিতপুর, ইটনা ও অষ্টগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ২৫৭ জনের রেপিড এন্টিজেন টেস্টে ৬৫ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া মোট ১৪১ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৫৬ জন শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া বাকি ৮৫ জনের মধ্যে হোসেনপুর উপজেলায় ১৪ জন, তাড়াইল উপজেলায় ১ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৭ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৬ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ২ জন, ভৈরব উপজেলায় ৩১ জন, নিকলী উপজেলায় ৭ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১৪ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ২ জন শনাক্ত হয়েছে।

নতুন সুস্থ হওয়া ৩৩ জনের মধ্যে ভৈরব উপজেলার ২৭ জন ও ইটনা উপজেলার ৬ জন রয়েছেন।

মোট শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে বর্তমানে আক্রান্ত ও সন্দেহজনক মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২০৩ জন যাদের মধ্যে ১০ জন আইসিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ৪৪ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং ১৯ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

হাসপাতালটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৯০১৪ জন শনাক্ত, ৬৫৩৯ জন সুস্থ এবং ১৫৩ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ২৩২২ জন। তাদের মধ্যে ৮৭ জন হাসপাতালে ও ২২৩৫ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ২৩২২ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৯১২ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ১৭২ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৪৪ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৩৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২২৬ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৩২৪ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৪৮ জন, ভৈরব উপজেলায় ২৮৮ জন, নিকলী উপজেলায় ৪১ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১৪২ জন, ইটনা উপজেলায় ২৭ জন, মিঠামইন উপজেলায় ২৯ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৩৪ জন রয়েছেন।

জেলায় মোট মৃত্যু ১৫৩ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৫৪ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৮ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৯ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৯ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৭ জন, ভৈরব উপজেলায় ২৯ জন, নিকলী উপজেলায় ৭ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১২ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন এবং মিঠামইন উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

জেলার একমাত্র অষ্টগ্রাম উপজেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোন মৃত্যু নেই।

এদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৭৬ হাজার ৬৬৫ জন কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন।

অন্যদিকে গত ৮ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত মোট ৫৯ হাজার ৩০৭ জন এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

এরপর গত ১৯ জুন থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৩৯ হাজার ১৯৭ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

সাপ্তাহিক ছুটির কারণে গত ২৪ ঘন্টায় কেউ সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নেননি।

এছাড়া গত ২৬ জুলাই থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৭৪৪ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

সাপ্তাহিক ছুটির কারণে গত ২৪ ঘন্টায় কেউ এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেননি।

এ পর্যন্ত মোট ১ লাখ ৯৮ হাজার ৫৬১ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৮৫০৮ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য কিশোরগঞ্জ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর