কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ডাকাতির দুই বছর পর লুণ্ঠিত আলামতসহ সিআইডি’র হাতে যুবক গ্রেপ্তার


 স্টাফ রিপোর্টার | ৮ মে ২০২১, শনিবার, ৮:১৭ | অপরাধ 



কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে ডাকাতির দুই বছর পর মামলার লুণ্ঠিত আলামত একটি স্যামসাং স্মার্টফোন সহ মো. হাবিবুর রহমান (৩৫) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে সিআইডি, কিশোরগঞ্জ জেলা।

বৃহস্পতিবার (৬ মে) দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে গাজীপুর জেলা সদরের জিএমপি চত্বর বাজার সংলগ্ন হাতিয়াবো মোড়লপাড়ার মোড় থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পরদিন শুক্রবার (৭ মে) এ ব্যাপারে মো. হাবিবুর রহমান আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

গ্রেপ্তার হওয়া মো. হাবিবুর রহমান গাজীপুর সদরের আব্দুল মান্নানের ছেলে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি, কিশোরগঞ্জ জেলার পুলিশ পরিদর্শক সুনীল কুমার দাস বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ২০১৯ সালের ৮ এপ্রিল রাত পৌনে ১টার দিকে কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপজেলার তালজাঙ্গা মোল্লা পাড়ার মাসুদ রানার বাড়িতে ডাকাতদল হানা দেয়।

৭/৮ জনের ডাকাতদলটি মাসুদ রানার বসতবাড়ীর বারান্দার গ্রিল ভেঙ্গে বসতঘরে প্রবেশ করার সময় টের পেয়ে মাসুদ রানা চিৎকার দিলে ডাকাতদল তার বসত ঘরের দরজা ভেঙ্গে মাসুদ রানাকে এক ডাকাত কুপিয়ে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে।

তখন ডাকাতদলটি টাকা-পয়সা ও স্বর্ণালংকার নেওয়ার জন্য মাসুদ রানা ও তার স্ত্রীকে জিম্মি করে হুমকি দিতে থাকলে মাসুদ রানা বাড়িতে টাকা-পয়সা স্বর্ণালংকার নাই বলেন। এ সময় অন্য এক ডাকাত হাতুড়ি দিয়ে মাসুদ রানার মুখে সজোরে বারি মারলে মাসুদ রানার উপরের পাটির চারটি দাঁত ভেঙ্গে যায় এবং ঠোঁট ফেটে যায়।

ওই সময় ডাকাতরা মাসুদ রানার স্ত্রীর দিকে এগিয়ে গেলে মাসুদ রানা বাধা দেওয়ার সাথে সাথে আরেকজন ডাকাত তার হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে মাসুদ রানার কাঁধে বারি দিয়ে হাড় ভাঙ্গা জখম করে।

তখন ডাকাত দলের এক সদস্য মাসুদ রানার খাটের ড্রয়ার ভেঙ্গে নগদ ২০ হাজার টাকা ও মাসুদ রানার একটি স্যাম্পুনি বাটন মোবাইল সেট নিয়ে যায়। ডাকাতির এক পর্যায়ে মাসুদ রানার হাত পা তার স্ত্রীর ওড়না দিয়ে বেঁধে ফেলে।

ওই সময় আশপাশের লোকজন টের পেয়ে গেলে ঘরের বাইরে থাকা ডাকাত দলের এক সদস্য বাঁশি বাজায় এবং সংকেত পেয়ে ডাকাতদলটির সদস্যরা ঘর থেকে বের হয়ে কয়েকজন ধানের ক্ষেতের আইল দিয়ে এবং কয়েকজন ডাকাত মোটর সাইকেল দিয়ে পালিয়ে যায়।

স্থানীয় লোকজন জখমী অবস্থায় মাসুদ রানাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য প্রথমে তাড়াইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে ওই দিন রাতেই কর্তব্যরত চিকিৎসকের নির্দেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করান।

ওইদিন রাত ৩টার দিকে ডাকাতদল এই ঘটনাস্থল থেকে দেড়/দুই কিলোমিটার দূরত্বে তাড়াইল উপজেলার আড়াইউড়া গ্রামের ফায়জুল মিয়ার বাড়ীতে দরজা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে ঘরের সদস্যদের দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নগদ ৯ হাজার ৪শ’ টাকা, চারআনা ওজনের স্বর্ণের কানের দুল, আধা ভরি ওজনের রুপার চেইন, একটি নোকিয়া বাটন মোবাইল সেট এবং একটি স্যামসাং স্মার্ট মোবাইল সেট ডাকাতি করে নিয়ে যায়।

উভয় বাড়ীতে যে ডাকাত দলের যে সদস্যরা ডাকাতি করেছে তাদের বয়স ২০/৩০ বৎসরের মধ্যে, পোশাক, শরীরের গঠন, ভাষা এবং অপরাধ প্রক্রিয়া একই ধরনের ছিল।

মাসুদ রানা এই দুই বাড়ীতে ডাকাতির ঘটনার বিষয়ে তাড়াইল থানায় এজাহার দায়ের করিলে এটি মামলা (নং-১০, তারিখ-১০/০৪/২০১৯ খ্রিঃ, ধারা-৩৯৫/৩৯৭ পেনাল কোড) হিসেবে রেকর্ড করা হয় এবং থানায় কর্মরত এসআই গোলাম কবির বিশ্বাসকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়।

এসআই গোলাম কবির বিশ্বাস তদন্তকালে ডাকাত কর্তৃক লুন্ঠিত বাদীর একটি সিম্পুনি মোবাইল সেট উদ্ধারসহ চারজন আসামিকে গ্রেপ্তার করেন।

মামলাটি পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স এর নির্দেশে কিশোরগঞ্জ পিবিআই তদন্তের দায়িত্ব পেলে কিশোরগঞ্জ পিবিআই এর পুলিশ পরিদর্শক মো. আবুল কালামকে তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়।

পুলিশ পরিদর্শক মো. আবুল কালাম পূর্বের উদ্ধারকৃত মোবাইলের সূত্র ধরে কুখ্যাত ডাকাত সুলতানকে শ্যেন অ্যারেস্ট দেখিয়ে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন এবং মামলার তদন্ত শেষে দুইজন আসামিকে অভিযুক্ত করে এবং তিনজন আসামিকে অব্যাহতি প্রদান করে তাড়াইল থানার অভিযোগপত্র নং-৭৪, ধারা-৩৯৫/৩৯৭/৪১২ পেনাল কোড আদালতে দাখিল করেন।

মামলার বাদী আদালতে এই পুলিশ রিপোর্টের বিরুদ্ধে না-রাজীর আবেদন করলে আদালত বাদীর আবেদন মঞ্জুর করে মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলাকে নির্দেশ প্রদান করেন। সিআইডির তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পান পুলিশ পরিদর্শক সুনীল কুমার দাস।

পুলিশ পরিদর্শক সুনীল কুমার দাস মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পেয়ে গত ২১ মার্চ ডকেট পেয়ে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেন।

তদন্তকালে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই মামলার দ্বিতীয় ঘটনাস্থল থেকে ডাকাতি করা স্যামসাং স্মার্ট মোবাইল সেটটি বৃহস্পতিবার (৬ মে) দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে গাজীপুর জেলা সদরের জিএমপি চত্বর বাজার সংলগ্ন হাতিয়াবো মোড়লপাড়ার মোড়ে মো. হাবিবুর রহমানের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারকৃত ডাকাতির মোবাইলের বিষয়ে মো. হাবিবুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করিলে সে স্বীকার করে যে, তার সৌদি প্রবাসী এক বন্ধুর কাছ থেকে মোবাইল সেটটি সে উপহার হিসেবে পেয়েছে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর