কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের হাওরে দুস্থ মানুষের পাশে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ


 স্টাফ রিপোর্টার | ৬ মে ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১১:২৫ | বিশেষ সংবাদ 



করোনার এই সময়ে হাওরে বোরো ধান কাটা এং মাড়াইয়ের কাজ শেষ পর্যায়ে। হাওর অধ্যুষিত কিশোরগঞ্জ জেলার প্রধান ফসল ধানের সঠিক মূল্য না পাওয়ায় হাওর জনপদে কৃষকদের মধ্যে স্বস্তি কমে এসেছে। ফলে গোটা হাওরের প্রান্তিক, বর্গাচাষী, কৃষি শ্রমিকসহ করোনায় কর্মহীনরা ঈদের প্রকৃত আনন্দ থেকে অনেকটাই বঞ্চিত ছিল।

ঠিক এমনি অবস্থায় কর্মহীন বেকার এবং দুস্থদের মধ্যে ঈদ-আনন্দ ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য ত্রাতার ভূমিকায় এগিয়ে আসে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও কিশোরগঞ্জ সমকাল সুহৃদ সমাবেশ।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে বৃহস্পতিবার (৬ মে) হাওরের সেইসব দরিদ্র ও দুস্থ পরিবারের মধ্যে ঈদ-উপহার ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণের এক চমৎকার আয়োজনের মধ্য দিয়ে আল খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ এক অনন্য উদাহরণ সৃষ্টি করেছে।

ইটনা ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে অসহায় দুস্থ ৭০০ মানুষের মধ্যে চালসহ ঈদ করার জন্য যাবতীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেয়ার এক অন্যরকম আনন্দঘন অনুষ্ঠানে সর্বস্তরের মানুষ যোগদান করে মহতী কর্মযজ্ঞকে স্বাগত জানান।

ইটনা উপজেলা পরিষদের সামনের মাঠে আয়োজিত খাদ্য বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক।

এতে অন্যান্যদের মধ্যে ইটনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাফিসা আক্তার, আল খায়ের ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ম্যানেজার তারেক মাহমুদ সজীব, সমকালের সহকারী সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম আবেদ, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মুর্শেদ জামান বিপিএম, সমকালের নিজস্ব প্রতিবেদক সাইফুল হক মোল্লা দুলু, সমকাল সুহৃদ কিশোরগঞ্জের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. জহিরুল ইসলাম, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মো. আসলামুল হক আসলাম প্রমুখ।

স্বাগত বক্তব্যে সিরাজুল ইসলাম আবেদ বলেন, সমকাল সব-সময় সাধারণ মানুষের পাশে থেকে আর্ত-মানবতার সেবায় কাজ করতে আগ্রহী। বিশেষ করে হাওরের সাধারণ মানুষের প্রতি আমাদের একটি বিশেষ টান রয়েছে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বলেন, দেশের সবচেয়ে অবহেলিত ও বঞ্চিত এলাকা হাওর। হাওরের বোরো ফসল ধান লটারির মতো। কোন বছর গোলায় তুলতে পারে, আবার কোন বছর সমুদয় ফসল মার খেয়ে কৃষক সর্বস্বান্ত হন।

সবেমাত্র বোরো ধান কাটা ও মাড়াই শেষ হতে যাচ্ছে। করোনার এই সময়ে তাদের ঘরে ঈদ সামগ্রী নেই। এ অবস্থায় তাদের মধ্যে এ বছর ঈদুুুুুল ফিতরের আনন্দ ফিরিয়ে আনতে আমাদের এই উদ্যোগ।

তিনি বলেন, সমকাল ও আল খায়ের প্রতি বছর হাওরের দরিদ্র মানুষের কাছে ছুটে আসেন। তাদের পাশে চাল, ডাল থেকে শুরু করে এমন কিছু বাদ যায় না- যা তারা দেন না। আমি তাদের এই মহৎ উদ্যোগ হাওরে আরও বেশি সম্প্রসারিত করুক আমি তাদের প্রতি অনুরোধ রাখছি।

উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান বলেন, ঈদকে কেন্দ্র করে আজকের এই মহৎ আয়োজন হাওরের কয়েকশ’ মানুষের মধ্যে ঈদের প্রকৃত আনন্দ যোগ করেছে। তাই আল খায়ের ও সমকালকে ধন্যবাদ জানাই। কারণ মানবিক উদ্যোগ হচ্ছে সবকিছুর উর্ধ্বে।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে দরিদ্র নারী-পুরুষের মধ্যে ঈদের আনন্দ বিলিয়ে দেওয়ার জন্য উদ্যোগটি বাস্তবায়ন করায় তাদের কাছে হাওরের জন-প্রতিনিধি হিসেবে আমি কৃতজ্ঞ। সেইসাথে তাদের সবাইকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।

আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ম্যানেজার তারেক আহমেদ সজিব বলেন, বাংলাদেশসহ ৫৪টি দেশে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন আর্ত-মানবেতায় কাজ করে আসছে। ২০১৬ সালের চৈত্রের বন্যায় কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলে সমুদয় বোরা ধান তলিয়ে যাওয়ায় সুহৃদকে সাথে নিয়ে আমরা হাওরে একাধিকবার কোরবানি বঞ্চিত দুস্থদের গরু জবাই করে রান্না করে কোরবানির গোস্ত সবাইকে খাইয়েছি। এরপর থেকে অসংখ্যবার হাওরে নানা খাদ্রয সহায়তা নিয়ে আমরা এসেছি।

ভবিষ্যতে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন কিশোরগঞ্জে কাজের পরিধি আরও বৃদ্ধি করবে বলে তিনি আশ্বস্ত করেন।

একই দিন অষ্টগ্রাম খেলার মাঠে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জেমস, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রফিকুল আলম, অষ্টগ্রাম থানার ওমি মো. কামরুল ইসলাম মোল্যার উপস্থিতিতে ৩৫০ জন দুস্থ-কর্মহীন মানুষের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এ সময় প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য বক্তারা কিশোরগঞ্জ সমকাল সুহৃদ তরুণ ও আল খায়ের ফাউন্ডেশন’র কর্মীদের মধ্যে অসহায় দুস্থদের পাশে দাঁড়াবার প্রত্যয় ও মানবিকতার আবেদনের প্রশংসা করে বলেন, নিজের অংশ থেকে অন্যকে দিতে পারার যে আনন্দ তা পৃথিবীতে বিরল।

সেই বিরল আনন্দ লাভের জন্য সমকাল ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশন দরিদ্রদের মুখে একটু হাসির ঝিলিক উপহার দিচ্ছে। এটি আমাদের সবার জন্যই নতুন এক শিক্ষা ও নতুন এক আনন্দ বয়ে এনেছে।

যারা সহযোগিতা পেয়েছে, তাদের কারো পায়ে জুতো নেই। তারা নিতান্তই সুবিধাবঞ্চিত। তাই প্রকৃত বঞ্চিতদের ঈদ আনন্দ আয়োজনের জন্য দৈনিক সমকাল ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনকে ধন্যবাদ জানাই।

অষ্টগ্রাম সদরের সাহিদা বেগম, নূরজাহান, আশরাফুলসহ শতাধিক লোক ‘আমরার ঈদ আনন্দের সাথে অইবো। বেবাক কিছু দিছে। চাল, দুধ, চিনি সেমাই কোনডার কমতি নাই’- এসব কথা বলে ঈদ-সামগ্রী কাঁধে নিয়ে ব্যাপক উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর