কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় ইউএনও আসার খবরে বাল্য বিয়ের বরপক্ষের পলায়ন


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ১২ এপ্রিল ২০২১, সোমবার, ৬:১৫ | পাকুন্দিয়া  


আজ সোমবার (১২ এপ্রিল) মেয়েটির বিয়ের দিন। সব প্রস্তুতি সম্পন্ন। কিছুক্ষণের মধ্যে বর আসবে। অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন মেয়েপক্ষ। কিন্তু এরই মধ্যে বরযাত্রীর পরিবর্তে বাড়িতে গিয়ে হাজির হলেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক।

মুহুর্তেই পণ্ড হয়ে যায় সব প্রস্তুতি। ইউএনও আসার খবরে রাস্তা থেকেই পালিয়ে যায় বরপক্ষ।

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার এগারসিন্দুর গ্রামে দুপুরে এমন ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, উপজেলার এগারসিন্দুর গ্রামের জনৈক ব্যক্তির সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়ের (১৬) একই উপজেলার কুড়তলা গ্রামের প্রবাসী এক যুবকের সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়।

সোমবার (১২ এপ্রিল) আনুষ্ঠানিকভাবে মেয়েকে বরের হাতে তুলে দেওয়ার কথা। এ উপলক্ষে উভয় পক্ষের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন।

বাল্য বিয়ের আয়োজন চলছে এমন খবর জানতে পারেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (অ.দা.) একেএম লুৎফর রহমান। খবর পেয়ে দুপুরে পুলিশ নিয়ে তিনি ওই বাড়িতে গিয়ে হাজির হন।

প্রশাসনের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায় বরপক্ষ।

এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অ.দা.) একেএম লুৎফর রহমান বাল্য বিয়ের কুফল সম্পর্কে মেয়ের বাবা-মাকে অবহিত করেন।

বিষয়টি বুঝতে পেরে মেয়ের বয়স ১৮বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবেন না মর্মে অঙ্গীকার করে মুচলেকায় সাক্ষর করেন মেয়ের বাবা-মা।

পাকুন্দিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (অ.দা.) একেএম লুৎফর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীর বিয়ে হচ্ছে এমন খবর পেয়ে ওই বাড়িতে গিয়ে বিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

বরপক্ষকে পাওয়া যায়নি। মেয়ের বয়স ১৮বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবেন না মর্মে অঙ্গীকার করেন মেয়ের বাবা-মা।

এ বিষয়ে মুচলেকায় সাক্ষর দেওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর