কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে জামিনে গিয়ে যুবককে কুপিয়ে হত্যায় এক আসামির ফাঁসি



 স্টাফ রিপোর্টার | ১৮ অক্টোবর ২০২১, সোমবার, ৬:৫০ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জের পল্লীতে চাঞ্চল্যকর বাচ্চু মিয়া (৩৫) হত্যাকাণ্ডে মো. জসিম উদ্দিন (৪৮) নামের একজন আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত জসিম উদ্দিনের তিন ভাই মো. সামির উদ্দিন (৫৩), মো. জালাল উদ্দিন (৪৫) ও মো. কামাল উদ্দিন (৩৯) এবং পিতা মো. আব্দুল মজিদ (৭৩) এই চারজন আসামিকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় আসামিদের উপস্থিতিতে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক নার্গিস ইসলাম এ রায় দেন।

রায়ে মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি মো. জসিম উদ্দিনকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত মো. জসিম উদ্দিন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার কর্শাকড়িয়াইল ইউনিয়নের মনাকর্ষা গ্রামের মো. আব্দুল মজিদের ছেলে।

অন্যদিকে নিহত বাচ্চু মিয়া একই গ্রামের মো. আব্দুর রহিমের ছেলে।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, যৌথ পুকুরে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে একই বাড়ির মো. আব্দুল মজিদের পরিবারের সাথে মো. আব্দুর রহিমের পরিবারের বিরোধ চলে আসছিল।

এর জের ধরে মো. আব্দুর রহিমের বড় ছেলে হারুন-অর রশীদকে ২০০৭ সালের জুন মাসে কুপিয়ে আহত করে প্রতিপক্ষ মো. আব্দুল মজিদের পরিবারের লোকজন।

এ ঘটনায় মো. আব্দুর রহিম ২০০৭ সালের ৫ জুন কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় মো. আব্দুল মজিদের চার ছেলে জসিম উদ্দিন, সামির উদ্দিন, জালাল উদ্দিন ও কামাল উদ্দিনকে আসামি করে মামলা করেন।

এই মামলায় জামিনে বের হয়ে আসামিরা প্রতিপক্ষকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছিল।

এ পরিস্থিতিতে ২০০৮ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর বিকালে কর্শাকড়িয়াইল নতুন বাজারে ধান বিক্রি করার জন্য যাওয়ার পথে মো. আব্দুর রহিমের মেজো ছেলে বাচ্চু মিয়াকে জসিম উদ্দিন ও তার ভাইয়েরা কুপিয়ে হত্যা করে।

এ ঘটনায় নিহত বাচ্চু মিয়ার ভাই হারুন-অর রশীদ বাদী হয়ে ছয়জনকে আসামি করে ওইদিনই কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা করেন।

তদন্ত শেষে পুলিশ জসিম উদ্দিন, তার তিন ভাই সামির উদ্দিন, জালাল উদ্দিন ও কামাল উদ্দিন এবং পিতা মো. আব্দুল মজিদ এই পাঁচজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়।

সাক্ষ্য-জেরা সোমবার (১৮ অক্টোবর) সকালে জসিম উদ্দিনকে মৃত্যুদণ্ড এবং বাকি চার অভিযুক্তকে খালাস দিয়ে বিচারক মামলার রায় ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে এপিপি রাখাল চন্দ্র দে এবং আসামি পক্ষে এডভোকেট মিজানুর রহমান আদালতে মামলাটি পরিচালনা করেন।

ভিডিও:


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর