কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে গ্রেপ্তার হলেন মাদরাসা সুপার আমিনুল হক


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বুধবার, ৬:২৮ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় কর্মরত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক প্রধান শিক্ষকের বিষয়ে ফেসবুকে কটাক্ষ করে পোস্ট দিয়ে গ্রেপ্তার হয়েছেন জেলার মিঠামইন উপজেলার শ্যামপুর দারুল উলুম দাখিল মাদরাসার সুপার মো. আমিনুল হক (৪২)।

প্রধান শিক্ষকের দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ২টার দিকে মিঠামইন উপজেলার গোপদিঘী ইউনিয়নের ধলাই গ্রামের বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার পরিদর্শক (ইন্টিলিজেন্স এন্ড কমিউনিটি পুলিশিং) জয়নাল আবেদীনের নেতৃত্বে সদর মডেল থানা পুলিশের একটি টিম এই অভিযান চালায়।

গ্রেপ্তার হওয়া শ্যামপুর দারুল উলুম দাখিল মাদরাসার সুপার মো. আমিনুল হক ধলাই গ্রামের জাফর আলীর ছেলে।

অন্যদিকে মামলার বাদী মো. হারুন অর রশিদ একই গ্রামের মো. আবুল হাসিমের ছেলে। তিনি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মাইজখাপন ইউনিয়নের পাতুয়াইর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

মাদরাসা সুপার মো. আমিনুল হকের বিরুদ্ধে তিনি ফেসবুকে মিথ্যা মানহানিকর তথ্য ও উপাত্ত প্রচার প্রকাশ করা এবং এলাকায় শত্রুতা, ঘৃণা, বিদ্বেষ সৃষ্টি করে পারস্পরিক সম্প্রীতি বিনষ্ট করে অস্থিরতা ও বিশৃংখলার সৃষ্টির অভিযোগ এনে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫/২৯/৩১ ধারায় মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলাটি (নং-৪৫) দায়ের করেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, মিঠামইন উপজেলার গোপদিঘী ইউনিয়নের শ্যামপুর গ্রামে ১৯৯৯ সালে শ্যামপুর দারুল উলুম দাখিল মাদরাসা প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০১০ সালে মাদরাসাটি সরকারি এমপিওভুক্ত হয়।

এ অবস্থায় মাদরাসার সুপার মো. আমিনুল হক ও মাদরাসার সভাপতির মধ্যে এলাকার স্থানীয় প্রভাব নিয়ে দ্বন্দ্ব শুরু হয়।

এই দ্বন্দ্বের জের ধরে মাদরাসার সুপার মো. আমিনুল হক ২০১০ সালে মাদরাসার টিনশেড ঘরটি খুলে নিয়ে তার বাড়ির পাশে ধলাই বাজারে স্থাপন করায় বর্তমানে মাদরাসার নির্ধারিত স্থানে মাদরাসার কোন অস্তিত্ব নেই।

সুপার মো. আমিনুল হক মাদরাসার ঘরটি নিয়ে যাওয়ার পর থেকে এলাকাবাসী নির্ধারিত স্থানে মাদরাসাটি পুনঃনির্মাণ করার জন্য দাবি করে আসছে।

প্রধান শিক্ষক মো. হারুন অর রশিদের বাড়ি একই গ্রামে হওয়ায় তিনিও এলাকাবাসীর সাথে মাদরাসাটি পূর্বের জায়গায় ফিরিয়ে আনার দাবিতে ফেসবুকে পোস্ট দেন।

তার এই ফেসবুক পোস্টের কারণে মাদরাসা সুপার মো. আমিনুল হক ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে প্রধান শিক্ষক মো. হারুন অর রশিদকে অকথ্য ও অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন এবং তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন মিথ্যা, বানোয়াট, মানহানিকর তথ্য ও উপাত্ত প্রচার ও প্রকাশ করে তা অব্যাহত রাখেন।

এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুবকর সিদ্দিক পিপিএম কিশোরগঞ্জ নিউজকে জানান, প্রধান শিক্ষক মো. হারুন অর রশিদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাত ৮টা ২৫ মিনিটে থানায় মামলাটি রেকর্ড করা হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক জয়নাল আবেদীন আসামিকে গ্রেপ্তারের জন্য রাত ২টার দিকে মিঠামইন উপজেলার গোপদিঘী ইউনিয়নের ধলাই গ্রামের বাড়িতে অভিযান চালান।

তাকে গ্রেপ্তার করে কিশোরগঞ্জে আনার পর বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর